kalerkantho


ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড

মেলাজুড়ে প্রযুক্তির চমক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



মেলাজুড়ে প্রযুক্তির চমক

ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড প্রদর্শনীতে গতকাল ছিল উপচে পড়া ভিড়। ছবি : কালের কণ্ঠ

তথ্য-প্রযুক্তির জগতের সর্বশেষ জগতের অনেক চমক নিয়ে রাজধানীতে সেজেছে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড সম্মেলন-২০১৭। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে প্রযুক্তিপণ্যের সমাহারেও দেখা গেছে বৈচিত্র্য।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এক দল শিক্ষার্থী নিজেদের বানানো রোবট উপস্থাপন করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্সের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী মারুফ হোসেন বলেন, ‘এই রোবটের মাধ্যমে যেকোনো প্রতিবন্ধী ব্যক্তি হাত ও পায়ের ব্যবহার ছাড়াই যন্ত্র সহায়তায় চলাচল করতে পারবে। ’

সফটওয়্যার শোকেসিং, ই-গভর্ন্যান্স এক্সপো, স্টার্টআপ জোন, কিডস জোন, মেড ইন বাংলাদেশ জোন এবং ইন্টারন্যাশনাল জোন—নামেই বলে দিচ্ছে প্রদর্শনীর আয়োজনের ব্যাপকতা। তথ্য-প্রযুক্তির এই আসরে অসংখ্য নগরবাসী ঢুঁ মারছে। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজনের দ্বিতীয় দিনেও গতকাল ছিল দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় এবং তাদের বেশির ভাগই বয়সে কিশোর কিংবা তরুণ। তারা দেখছে ও জানছে প্রযুক্তির অগ্রগতি।

গতকাল দেখা যায়, রাজধানীর বিভিন্ন স্কুল থেকে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড দেখতে বিভিন্ন স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থীরা আসছে দল বেঁধে। শিক্ষকদের

তত্ত্বাবধানে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের ইউনিফর্ম পরে তারা সারিবদ্ধ হয়ে মেলায় প্রবেশ করছে।

নারায়ণগঞ্জ এবিসি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল থেকে এসেছে ৫০ জন শিক্ষার্থীর একটি দল।

তাদের একজন তানিয়া বলে, ‘ডিজিটাল জগৎ নিয়ে আমার কৌতূহল বেশি। বইয়ের পড়ার পাশাপাশি বাস্তবে তথ্য-প্রযুক্তিবিষয়ক বিভিন্ন উদ্ভাবন দেখে আরো জ্ঞান অর্জন করতে পারব। ’

ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক থেকে এসেছেন ৫০ জন শিক্ষার্থীর একটি টিম। তাঁদের মধ্যে আছেন নুসরাত জাহান, শারমিন আক্তার ও মনিরা আক্তার। তাঁদের একজন বলেন, ‘তথ্য-প্রযুক্তি সম্পর্কে প্রায়োগিক জ্ঞানার্জনের জন্য মেলায় এসেছি। দেশে নতুন নতুন যেসব অ্যাপ তৈরি হচ্ছে, সেগুলো সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারছি। ’

এদিকে আইসিটি ব্যবহার করে কিভাবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা করা যায়, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে তা জানাচ্ছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমের সামনে এই স্টলটিতে দর্শনার্থীদের ভিড় দেখা যায়। স্টলে কর্মরত অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ও দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাসে আইসিটির ব্যবহার করা হচ্ছে। দুর্যোগের আভাস পেতে তাত্ক্ষণিকভাবে যে কেউ ‘১০৯০’ নম্বরে ফোন করে জানতে পারবে সর্বশেষ পূর্বাভাস। কর্মকর্তারা আরো জানাচ্ছেন, দুর্যোগ-পরবর্তী ক্ষতি নিরূপণে অনলাইনে তাত্ক্ষণিকভাবে কেন্দ্রীয় তথ্য ভাণ্ডারে তথ্য জমা হয়। জেলা-উপজেলা থেকে অধিদপ্তরে তথ্য পেয়ে দুর্যোগকবলিতদের জন্য সরাসরি বরাদ্দ ও ব্যবস্থা নেওয়া হয়। অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে দুর্যোগ প্রস্তুতির মহড়া, দুর্যোগের তথ্য ও করণীয় সম্পর্কে নানা তথ্য পাওয়া যাবে। এসব বিষয় সর্বসাধারণকে জানানোর লক্ষ্য নিয়েই ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে এসেছে অধিদপ্তর, বলছিলেন কর্মকর্তারা।

দেশের তথ্য-প্রযুক্তি খাতের সর্ববৃহৎ প্রদর্শনী ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে সদ্য প্রয়াত মেয়র আনিসুল হককে স্মরণ করেছে প্রদর্শনীতে আসা নানা শ্রেণি-পেশার দর্শনার্থীরা। প্রদর্শনীতে স্টল নিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। সেই স্টলে একটি ছবি টানানো আছে প্রয়াত আনিসুল হকের। পাশেই আছে শোক বই। এই বইতে মেয়রের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দর্শনার্থীরা আবেগ ব্যক্ত করছে। তারা জানাচ্ছে আনিসুল হকের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার কথা। একজন শোক বইতে লিখেছে, ‘যেখানেই থাকো, ভালো থেকো প্রিয় মেয়র। ’ ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী জেবুন্নেসা শোক বইতে লিখেছেন, ‘আপনার বক্তব্যে তরুণসমাজ খুব উৎসাহিত হতো। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা অনুষ্ঠানে এসেছিলেন, সৌভাগ্য হয়েছিল আপনার বক্তব্য শোনার। ’ পুরান ঢাকা থেকে আসা আবির হোসেন লিখেছেন, ‘প্রিয় মেয়র, আমরা তরুণরা তোমাকে মনে রাখব। ’

গতকাল ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের দ্বিতীয় দিনে ১২টি সেশন অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, হাই স্কুল প্রগ্রামার কনফারেন্স, মিট নাফিস বিন জাফর, স্টার্টআপ বাংলাদেশ, অপরচুনিটি ফর ইনভেস্টরস অ্যান্ড স্টার্ট-আপস, সাইবার সিকিউরিটি রিস্কস, সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ইথিক্যাল হ্যাকিং, এমপ্লয়মেন্ট অব পারসনস নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিজ-অ্যাবিলিটিজ ইন দি আইটি ইন্ডাস্ট্রি ইত্যাদি।

সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ আয়োজিত চার দিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড শুরু হয়েছে বুধবার থেকে। মেলা চলবে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত। চার দিনের এই আয়োজনের স্লোগান-‘রেডি ফর টুমরো’। মেলা প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত। তবে মেলায় প্রবেশের আগে নিবন্ধন করতে হচ্ছে। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের ওয়েবসাইটে (www.digitalworld.org.bd) গিয়ে মেলায় প্রবেশের নিবন্ধন করা যাবে। আবার মেলার প্রবেশমুখে স্থাপিত বুথে গিয়েও নতুন রেজিস্ট্রেশন করা যাবে বিনা মূল্যে।


মন্তব্য