kalerkantho


পরাজিতরা আক্রান্ত,সংঘর্ষে নিহত ৩

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



পরাজিতরা আক্রান্ত,সংঘর্ষে নিহত ৩

নান্দাইলে পরাজিত মেম্বারের বাড়িতে হামলা চালান বিজয়ী প্রার্থীরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপের ভোটগ্রহণের পর অন্তত ১২ জেলায় সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। বেশির ভাগ স্থানেই আক্রান্ত হয়েছেন পরাজিত প্রার্থী ও তাঁদের কর্মী-সমর্থকরা। হামলা হয়েছে তাঁদের বাড়িঘরে। এর মধ্যে গাজীপুরের শ্রীপুরে পরাজিত প্রার্থীর চাচাতো ভাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংঘর্ষ-হামলায় আহত হয়েছে আরো অন্তত ১৭৪ জন। এ ছাড়া চতুর্থ ধাপের নির্বাচনের আগে এ নিয়ে কিশোরগঞ্জের ভৈরব ও ফরিদপুরের মধুখালীতে হামলা সংঘর্ষে নিহত হয়েছে দুজন।

এর আগে পাবনার চাটমোহরে শনিবার রাতে ভোটের ফল ঘোষণা নিয়ে বিক্ষোভ-অবরোধের সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে একজন নিহত

হন। শনিবার তৃতীয় ধাপে ৬১৪টি ইউনিয়নে ভোট হয়েছে। এবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে তৃতীয় ধাপের ভোটগ্রহণের দিন পর্যন্ত সহিংসতায় অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে কয়েক হাজার। চতুর্থ ধাপের ভোট হবে আগামী ৭ মে। এর আগের এই নির্বাচন নিয়ে নিহত হলেন দুজন।

ফল ঘোষণার আগে পিটিয়ে হত্যা : গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা ইউনিয়নে ফল ঘোষণার আগে শনিবার রাতে সদস্য প্রার্থীর চাচাতো ভাইকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আবুল খসরু (৫০) নামের এই ব্যক্তি বারতোপা গ্রামের মৃত আবুল ফয়েজ মিয়ার ছেলে।

স্বজনদের অভিযোগ, ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডে সদস্য পদপ্রার্থী মো. সুরুজ্জামানের নেতৃত্বে তাঁর কর্মী-সমর্থকরা ফল ঘোষণার প্রায় আধা ঘণ্টা আগে বারতোপা দক্ষিণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পাশে আবুল খসরুর ওপর হামলা চালায়। এই ওয়ার্ডে বিজয়ী হয়েছেন সুরুজ্জামান। খসরু পরাজিত প্রার্থী শামসুল আলমের চাচাতো ভাই।

শামসুল আলম জানান, খসরুকে পিটিয়ে আহত করে সুরুজ্জামানের লোকজন। মুমূর্ষু অবস্থায় তাঁকে প্রথমে মাওনা আলহেরা হাসপাতালে এবং পরে রাজধানীর উত্তরায় বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে বিজয়ী প্রার্থী সুরুজ্জামান বলেন, ‘হামলার ঘটনাটি সাজানো।’

শ্রীপুর থানার ওসি মোস্তফা কামাল বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি হামলায় নয়, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে আবুল খসরু মারা গেছেন। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া গেলে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।’

ভোটের আগেই ভৈরব ও মধুখালীতে সংঘর্ষে দুজন নিহত : কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত সিদ্দিক মিয়া (৬০) নামের একজন মারা গেছেন। শনিবার রাতে বাজিতপুর উপজেলার ভাগলপুরে জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান। গত বৃহস্পতিবার সংঘর্ষে আহত হন সিদ্দিক মিয়া। এর জের ধরে শুক্রবার বিকেলে মৌলানা জহিরুল ইসলাম নামের একজনের হাত-পায়ের রগ কাটা হয়। তিনি ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ভৈরব থানার ওসি বদরুল আলম তালুকদার বলেন, ‘ইউপি সদস্য প্রার্থী হুমায়ুন ও জয়নালের পক্ষের বিরোধ দীর্ঘদিনের। তাঁদের মধ্যে প্রায়ই সংঘর্ষ হয়। উভয় পক্ষের বিরুদ্ধে হত্যা মামলাসহ মোট ১২টি মামলা রয়েছে।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সায়দুল্লাহ মিয়া জানান, মূলত গ্রামের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে বিষয়টি সম্পৃক্ত নয়।

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার বাগাট ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মতিয়ার রহমানের বড় ভাই মো. আতিয়ার রহমান খানকে (৫৫) কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। শনিবার রাতে বাগাট বাজারে নির্বাচনী ক্যাম্পে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় আরো অন্তত সাতজন আহত হয়েছে। এই ঘটনার জের ধরে আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকরা রাত ১২টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। পরে পুলিশ ২৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় পুলিশ বিএনপি প্রার্থী আব্দুর রহিম ফকিরসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

মধুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক বকুল বলেন, পরাজয় নিশ্চিত জেনে বিএনপি প্রার্থী ও তাঁর লোকরা আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বড় ভাইকে হত্যা করেছে। তবে উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন আহমেদ সতেজ বলেন, বাগাটের ঘটনাটি কোনো রাজনৈতিক ঘটনা নয়।

মধুখালী থানার ওসি রুহুল আমিন জানান, এ ব্যাপারে একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন।

পরাজিত প্রার্থী ও তাঁদের কর্মীদের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর, সংঘর্ষে আহত ১৭৪ জন : গতকাল গাজীপুরের শ্রীপুরের বরমী ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ঠাকুরতলা মোড় এলাকায় পরাজিত দুই সদস্য প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের দফায় দফায় সংঘর্ষে নারীসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। সংঘর্ষের সময় একটি মুদি দোকান ও একটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়। এদিকে আগামী ৭ মে চতুর্থ ধাপের নির্বাচন নিয়ে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সূত্রাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজনের ওপর হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সন্ধ্যায় বামনদহ এলাকায় প্রচার চালানোর সময় এ ঘটনা ঘটে। এতে আহত হয়েছে অন্তত পাঁচজন।

শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলাশার, বিনোদপুর ও শৌলপাড়া ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় ১৭ জন আহত হয়েছে। তুলাশারে আওয়ামী লীগের পরাজিত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আমিন উদ্দিন ফকিরের সমর্থকদের অর্ধশতাধিক বাড়িঘরে ভাঙচুর করেছে বিজয়ী প্রার্থী জাহিদ ফকিরের সমর্থকরা। বিনোদপুর ইউনিয়নে বিজয়ী সদস্য প্রার্থী লিটন মুন্সীর সমর্থকদের ওপর হামলা করেছে পরাজিত প্রার্থী রাজ্জাক মুন্সীর সমর্থকরা। এ সময় লিটন মুন্সীর বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়। শৌলপাড়া ইউনিয়নের সারেঙ্গা গ্রামের পরাজিত দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রুদ্রকর ইউনিয়নে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা হামলা করেছে বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর। ময়মনসিংহের নান্দাইল সদর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামে বিজয়ী সদস্য প্রার্থীর লোকজন পরাজিত দুই প্রার্থীর বাড়িঘরে হামলা চালিয়েছে। এ সময় লুটপাট করা হয় বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের কাদিরপুর ও খারুয়া ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর গ্রামে বিজয়ী ও পরাজিত সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়নের উত্তর চরলক্ষ্মী গ্রামে ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য পদে বিজয়ী প্রার্থীর কর্মীরা পরাজিত সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের কয়েকটি বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় তারা দরজা-জানালা ভাঙচুর করে। পরে দুটি দোকানে ভাঙচুর চালায়। মারধর করা হয় কয়েকজনকে। পিটিয়ে হাত ভেঙে দেওয়া হয় একজনের।

নীলফামারী সদরের রামগঞ্জ ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী দুই পরাজিত সদস্যের মধ্যে সহিংসতায় ১১ ব্যক্তি আহত হয়েছে। প্রতিপক্ষের হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় পাঁচ পরিবারের ১১টি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের বেলঘর গ্রামে বিজয়ী সদস্য প্রার্থীর বাড়িতে হামলা চালায় পরাজিত প্রার্থীর কর্মীরা। ভাঙচুর করে ১০টি বসতঘর। হামলায় আহত হয়েছে অন্তত পাঁচজন।

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার সদর ইউনিয়নে পরাজিত সদস্য প্রার্থীর সমর্থক এক স্কুল শিক্ষককে কুপিয়ে জখম করেছে বিজয়ী প্রার্থীর লোকজন। গুরুতর আহত শিক্ষক আব্দুল খালেককে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ভোট কারচুপিতে বাধা দেওয়ার জের ধরে বেলকুচি উপজেলার ভাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী আবু সাইদ তাঁর দলবল নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা পল্লী চিকিৎসক ইকবাল হোসেনের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালান বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার সাতৈর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের রূপদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আবার ভোট গণনার দাবিতে নৌকা প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের বিক্ষোভের সময় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এতে পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছে।

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার গণ্ডা, বাঘবেড়, হরিনগর, সান্দিকোনা, মাসকাসহ কয়েকটি স্থানে সহিংসতায় অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে। বাঘবেড় গ্রামে এক সদস্য প্রার্থীর লোকজন ভাঙচুর করেছে মুক্তিযোদ্ধা কাজিম উদ্দিনের বাড়িঘর। পুলিশ শাহিন মেম্বারসহ দুজনকে আটক করেছে।

মেহেরপুর সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের কালীগাংনীতে সদস্য প্রার্থী আওয়ামী লীগের দুই নেতার কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশকে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেছে বলে এলাকাবাসী দাবি করলেও পুলিশ তা অস্বীকার করেছে। গাইবান্ধা সদর উপজেলার ঘাগোয়া ইউনিয়নের রূপার বাজারে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বিজয়ী সদস্য প্রার্থী ও তাঁর সমর্থকদের ওপর পরাজিত প্রার্থীর লোকজনের হামলায় সাতজন আহত হয়েছে।

চাটমোহর ও রূপগঞ্জে সহিংসতার ঘটনায় মামলা : পাবনার চাটমোহর উপজেলার মধুরাপুর ইউনিয়নের বাহাদুরপুরে ফল ঘোষণা নিয়ে বিক্ষোভ-অবরোধের সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে ইমদাদ নামের একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় মামলা হয়নি। তবে সরকারি কাজে বাধাদানে বাহাদুরপুর গ্রামের চারজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো সাত থেকে আট শ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। চাটমোহর থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার জানান, প্রিসাইডিং অফিসার উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে গতকাল সকালে মামলাটি করেছেন।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চারিতালুক এলাকায় কেন্দ্র দখল করে ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা, পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর হামলাসহ সহিংসতার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে চারিতালুক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মনিরুজ্জামান বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন টিটুসহ ৫০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো দুই থেকে তিন শ জনকে আসামি করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে সাতজনকে।


মন্তব্য