kalerkantho


চরফ্যাশনে মাদকবিরোধী অভিযান

বদলেছে কারবারের স্থান ও কৌশল

চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি   

৫ জুন, ২০১৮ ০০:০০



ভোলার চরফ্যাশনে মাদকবিরোধী অভিযানে হঠাৎ পুলিশের তৎপরতা বেড়েছে। আগে খবর পেয়েও মাদকসংশ্লিষ্ট স্থানে অভিযানে যেত না পুলিশ। এখন স্থানীয় লোকজনের সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ইয়াবাসহ মাদক কারবার ও সেবনে অভিযুক্তকে আটক করে জেলহাজতে পাঠাচ্ছে। এতে বদলে গেছে মাদক কারবারের স্থান ও কৌশল। তবে কারো সংবাদের অপেক্ষায় না থেকে পুলিশি অভিযান চালানোর দাবি এলাকাবাসীর।

চরফ্যাশনের থানা সড়ক, মাছ বাজার এবং ৭ ও ৮ নম্বর ওয়ার্ডে সবচেয়ে বেশি মাদকের আখড়া ছিল। এ ছাড়া খালপাড়ের সড়ক, এতিমখানা, টাউন স্কুল, লঞ্চঘাট, পুরনো ওয়াপদা পুকুরপাড়, পার হাউজ কোয়ার্টার, পূবালী ব্যাংক এলাকা, শরীফপাড়া গরুর হাট, শরীফপাড়া খালপার সেতু এলাকা, সবুজ সিনেমা হল ও সাগরি সিনেমা হল এলাকা, বেতুয়া সৈকত এলাকায় মাদকের স্পট রয়েছে। পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আলাউদ্দিন, উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আখন দুলাল, দক্ষিণ আইচা থানার নজরুলনগর ইউনিয়ন যুবদল সভাপতি গজনবীসহ বেশ কিছু ইয়াবা ও গাঁজা কারবারি ও সেবনকারীকে আটকের পর গা ঢাকা দিয়েছে অনেক মাদক কারবারি ও সেবী। সচেতন নাগরিকরা মনে করেন, পুলিশ যদি সঠিক তদন্ত করে নিজেদের দায়িত্ব মনে করে একের পর এক অভিযান চালায় তাহলে মাদক কারবার ও সেবন নির্মূল করা সম্ভব।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবক বলেন, অভিযান শুরুর পর মাদকসেবীরা গোপন আস্তানায় চলে গিয়েছিল। ফলে বেশ কয়েক দিন তাদের দেখা যায়নি। কিন্তু গত রবিবার সকাল থেকে তাদের আগের মতো দেখা যাচ্ছে। এতে সন্দেহ হয়, পুলিশের সাথে তাদের যোগাযোগ রয়েছে। অভিযান শুরুর পর চরফ্যাশন পৌর এলাকাগুলোতে প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি বন্ধ হলেও গোপনে চলছে।

চরফ্যাশন উপজেলার চারটি থানার ওসিরা বলেছেন, তাঁদের অভিযানে একের পর এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

 

 



মন্তব্য