kalerkantho


বানারীপাড়ার তিন বিদ্যালয়

নিলাম না ডেকেই কাটা হলো ১৭ গাছ

নিলামে ওঠানো গাছ পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার পর কাটা বা বেচা বৈধ নয়

বরিশাল অফিস   

৫ জুন, ২০১৮ ০০:০০



পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর নিলাম না ডেকেই কেটে ফেলা হয়েছে বানারীপাড়া উপজেলার তিনটি সরকারি বিদ্যালয়ের তিন লক্ষাধিক টাকার ১৭টি গাছ। ৩০ মে থেকে ২ জুন পর্যন্ত গাছগুলো কাটা হয়। বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতিরা বলছেন, বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র তৈরি ইত্যাদি কাজের জন্য গাছগুলো কাটা হয়েছে।

২৮ মে পশ্চিম চাখার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বানারীপাড়া বন্দর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উমারেরপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে থাকা আটটি মেহগনি, আটটি রেইন্ট্রি ও একটি অর্জুন গাছ বিক্রির নিলাম বিজ্ঞপ্তি বরিশালের দুটি আঞ্চলিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়, ১১ জুন নিলামের প্রথম ডাক, ১৯ জুন দ্বিতীয় ডাক ও ২১ জুন তৃতীয় ডাকের জন্য দিন নির্ধারিত হয়েছে।

পশ্চিম চাখার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছয়টি মেহগনি ও তিনটি  রেইন্ট্রি কাটা হয়েছে। সেখানে শুধু গাছের গোড়া পড়ে আছে। বিদ্যালয়টির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মজিবুল ইসলাম টুকু বলেন, ‘বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় তলায় নির্মিত দুটি কক্ষের দরজা-জানালা তৈরির জন্য এবং সিঁড়ি নির্মাণে সমস্যা হওয়ায় গাছগুলো কাটা হয়েছে।’ বানারীপাড়া বন্দর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাটা একটি অর্জুন ও দুটি  মেহগনির কয়েক টুকরা পড়ে থাকতে দেখা গেলেও বাকি গাছের হদিস মেলেনি। বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জুয়েল জানান, বিদ্যালয়ের সীমানাপ্রাচীর ও চেয়ার-বেঞ্চ নির্মাণের জন্য গাছগুলো কাটা হয়েছে। এদিকে উমারেরপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঁচটি রেইন্ট্রি গোপনে বেচে দেওয়া হয়েছে।

নিলাম আহ্বান কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘নিলামে ওঠানো গাছ পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার পর কাটা বা বেচা বৈধ নয়। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

 



মন্তব্য