kalerkantho


বরিশালে ফুটপাত দখলমুক্ত করতে পুলিশের অভিযান

বরিশাল অফিস   

২৯ মে, ২০১৮ ০০:০০



বরিশালে ফুটপাত দখলমুক্ত করতে পুলিশের অভিযান

বরিশাল নগরীর ফুটপাত দখলমুক্ত করতে গতকাল মহানগর পুলিশ উচ্ছেদ অভিযান চালায়। একটি ফলের দোকানের ওপরের ছাউনি অপসারণ করছেন পুলিশ সদস্যরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

বরিশাল নগরীর ফুটপাত দখলমুক্ত করতে গতকাল সোমবার সকাল ১০টায় অভিযান চালায় মেট্রোপলিটন পুলিশ। অভিযানে নেতৃত্ব দেন মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (দক্ষিণ) আবদুর রউফ। এ সময়ে হাতুড়ি, শাবল ও বাঁশ হাতে নিয়ে চকবাজার, কাঠপট্টি, লাইন রোড ও ফলপট্টি এলাকার বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ফেস্টুন ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় পুলিশ। এমনকি তারা বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ছাউনিও ভেঙে ফেলে। এতে ব্যবসায়ীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। এ ঘটনার প্রতিবাদে দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে তিন ঘণ্টাব্যাপী ধর্মঘট পালন করেন ব্যবসায়ীরা। পরে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার ও চকবাজার ব্যবসায়ীদের মধ্যে বৈঠক শেষে বিকেল সাড়ে ৩টায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, ফুটপাত দখলমুক্ত করার নামে পুলিশ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড বিনা কারণে ভেঙে দিয়েছে পুলিশ। অন্যদিকে পুলিশ বলছে, নগরীর সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও ঈদ উপলক্ষে জনসাধারণের সড়ক দিয়ে চলাচল নির্বিঘ্ন করতে পুুলিশের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঈদ উপলক্ষে গত রবিবার মেট্রোপলিটন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কমিশনারের সভাপতিত্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবিষয়ক এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় নগরীর ফুটপাত দখলমুক্ত করার দাবি ওঠে। রাতেই নগরী ফুটপাত দখলমুক্ত রাখার জন্য পুলিশ মাইকিং করে। ঘোষণা অনুযায়ী, পরদিন সোমবার সকাল ১০টায় ফুটপাত দখলমুক্ত রাখতে অভিযান চালায় পুলিশ। পরে অভিযানের নামে সাইনবোর্ড ও বিলবোর্ড ভাঙচুরের প্রতিবাদে দোকান বন্ধ রেখে ধর্মঘটের ডাক দেন ব্যবসায়ীরা। এ সময় তাঁরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসক ও সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রধানের কাছে গেলে তিনি পুলিশ কমিশনারের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেন। পরে ব্যবসায়ীরা ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনারে সঙ্গে বৈঠক করেন।

চকবাজার ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি শেখ আব্দুর রহিম বলেন, ‘পুলিশের পক্ষ থেকে ফুটপাত দখলমুক্ত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমরা তা মেনে নিয়েছি। এর পরও পুলিশ অভিযান চালিয়ে ২০০ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড ভেঙে ফেলেছে। এর কোনো যৌক্তিক কারণ আমরা খুঁজে পাইনি। পরে বিষয়টি নিয়ে পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে বৈঠকে সাইনবোর্ড নষ্ট না করার আশ্বাস দেওয়ায় আমরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছি।’

এ বিষয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘পুলিশ তার এখতিয়ারের মধ্যেই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে। এখানে বেআইনি কিছু হয়নি। এ নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে একটি বৈঠকও হয়েছে। আগামী ২৮ জুনের মধ্যে তারা রাস্তার ওপরে থাকা স্থাপনা ও সাইনবোর্ডগুলো অপসারণ করবে। সে পর্যন্ত এ অভিযান স্থগিত থাকবে।’

 

 



মন্তব্য