kalerkantho


বইমেলায় খেলার বই

সামীউর রহমান

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বইমেলায় খেলার বই

খেলাপাগলদের ঘরোয়া আড্ডায় প্রায়ই উঠে আসে একটা কথা, বাংলাদেশ ফুটবলের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে করেছে ক্রিকেটকে! কথাটা শতভাগ খাটে নোমান মোহাম্মদের বেলায়ও। পেশাগত কারণে ক্রিকেট রিপোর্টিং নিয়েই ব্যস্ত থাকতে হয় বেশি। কালের কণ্ঠ’র পাঠক নোমান মোহাম্মদের সুলেখনীর সঙ্গে পরিচিত, ইদানীং সুবক্তা হিসেবেও মাতিয়ে রাখছেন রেডিও ও টেলিভিশনের টক শোগুলো। পত্রিকার পাতায় লেখা কিংবা বলা, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বিষয় থাকে ক্রিকেট। যা রোজকার দিন যাপনেরই অংশ। কিন্তু প্রথম বইয়ের বেলায় বেছে নিয়েছেন ‘প্রেম’ ফুটবলকেই। বিশ্বের সেরা ১৫ জন ফুটবলারকে নিয়ে তূলনামূলক বিশ্লেষণধর্মী সংকলন ‘পেলে থেকে মেসি’।

সর্বকালের সেরা কে—এই প্রশ্নে একেক কালের মানুষ দেবেন একেক উত্তর। কেউ শ্রেষ্ঠত্ব মাপেন একেক মানদণ্ডে; কোথাও জাতীয় দলই শেষকথা তো, কোথাও ক্লাবের অর্জনই মুখ্য। কারো চোখে আলফ্রেডো ডি স্তেফানো সবার চেয়ে এগিয়ে, কারো চোখে ইয়োহান ক্রুইফ। কেউ মজে ম্যারাডোনাতে, কেউ আবার বিশ্বকাপ সাফল্যের নিরিখে ফুটবলের রাজা মানেন পেলেকেই।

বর্তমান প্রজন্মের চোখে মায়াঞ্জন এঁকেছেন লিওনেল মেসি, ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো; কিন্তু এই মৌসুমে পর্তুগাল ও রিয়াল মাদ্রিদ; দুই দলই জিতেছে সর্বোচ্চ শিরোপা। এই দ্বিধাদ্বন্দ্বের উত্তরই খুঁজেছেন নোমান মোহাম্মদ।

সর্বকালের সেরা ১৫ জনকে বেছে নেওয়া হয়েছে গবেষণা করে। ১০টি আলাদা মানদণ্ডের ছাঁচে বিচার করা হয় ইতিহাসের রথী-মহারথীদের। গোল করা, গোল করানো, ড্রিবলিং, পাসিং, দুই পায়ে শ্যুট, হেডিং, গতি, পাওয়ার, জাতীয় দলে সাফল্য ও ক্লাব সাফল্য—এই ১০টি মানদণ্ড। ডিফেন্ডারদের ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হয় গোল ঠেকানোও।

পেলে, ডিয়েগো ম্যারাডোনা, লিওনেল মেসি, ইয়োহান ক্রুইফ, গারিঞ্চা, আলফ্রেদো দি স্তেফানো, ফেরেন্স পুসকাস, ফ্রান্স বেকেনবাওয়ার, রোনালদো, জিকো, গের্ড মুলার, জিনেদিন জিদান, রোমারিও, ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও মিশেল প্লাতিনি—ক্রম অনুযায়ী সেরা ১৫। এর সঙ্গে সবার একমত হওয়ার কারণ নেই। ক্রম নিয়ে তাই বিতর্কের উত্তাপ ছড়াবে নিশ্চিতভাবে। ফুটবলপ্রেমীদের সেই তর্ক-বিতর্ক-আড্ডার উত্তাপ নিশ্চিতভাবেই বাড়িয়ে দেবে এই বই।

নোমান মোহাম্মদের বইটি আরো সুপাঠ্য হয়েছে মোস্তফা মামুনের সম্পাদনায়। প্রকাশ পেয়েছে এবারের বইমেলায়; আলোঘর প্রকাশনা থেকে। বইটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন শতাব্দী জাহিদ। ১৬৯ পৃষ্ঠার এই বইটির মধ্যে আলাদা করে রয়েছে সর্বকালের সেরা ১৫ ফুটবলারের রঙিন পোস্টার ও তাঁদের মূল্যায়নের মার্কশিট। তাতে বইটির মোট পরিধি ১৮৫ পৃষ্ঠা। বইমেলায় ২১৯-২২০ নম্বর স্টলে পাওয়া যাচ্ছে বইটি। মূল্য ৪০০ টাকা।

‘পেলে থেকে মেসি’ বইটিতে সেরা ১৫ ফুটবলারের প্রত্যেককে নিয়ে লেখা হয়েছে আলাদা অধ্যায়। সেখানে বর্ণনা রয়েছে তাঁদের কীর্তির; তাঁদের বীরত্বের। উঠে এসেছে অনেক অজানা গল্প; অল্পজানা ঘটনা। পাশাপাশি ওই নির্দিষ্ট ফুটবলারকে নিয়ে অন্য পাঁচ ব্যক্তিত্বের মুগ্ধতার উক্তিও উল্লেখ করা হয়েছে আলাদা বক্সে। বইয়ের প্রচলিত ধারণার সঙ্গে তুলনায় যা ব্যতিক্রম। ব্যতিক্রম সবার আলাদা প্রোফাইলও, যেখানে একনজরে তাঁদের ক্যারিয়ার-সাফল্য-স্বীকৃতির দেখা মিলবে।

ডব্লিউ জি গ্রেস, ক্লেম হিল, ফ্রেড স্পফোর্থ, ভিক্টোর ট্রাম্পার, ডন ব্র্যাডম্যান, জ্যাক হবস, রনজিত সিংজির মতো ক্রিকেট কিংবদন্তিদের নিয়ে দেশের শীর্ষসারির ক্রীড়াসাংবাদিক উত্পল শুভ্রের লেখা বইটির নাম  ‘কল্পলোকে ক্রিকেটের গল্প’। এবারের বইমেলার প্রথমা প্রকাশনী থেকে বাজারে এসেছে বইটি। ইতিহাসের কিংবদন্তি ক্রিকেটারদের কল্পনার আলোকে এনে ইতিহাসের সঙ্গে জুড়েই এগিয়েছে এই ক্রিকেটসাহিত্য। প্রকাশনা উৎসবে লেখক জানিয়েছেন, নতুন প্রজন্মকে ক্রিকেটের কিংবদন্তিদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতেই তাঁর এই প্রয়াস, ‘ক্রিকেটের এমন কিছু নাম আছে যেগুলো আমাদের জানা উচিত। কেউ বলতে পারে এসব জেনে আমরা কী করব? ক্লাস নাইনের একটা ছেলে আমাকে একবার প্রশ্ন করেছিল আমরা জানব কী করে? আপনাদের পত্রিকায়ও তাঁদের নিয়ে লেখা থাকে না। তখন আমার কাছে মনে হলো, এখানে দায়িত্বের ব্যাপার আছে। সেটা কত দূর পেরেছি আমি জানি না। তবে চেয়েছি যেন সবার পড়তে ভালো লাগে। ’ পরকালে ক্রিকেট কিংবদন্তিদের আলাপের ছলে উঠে এসেছে ক্রিকেটের অনেক ‘ফোকলোর’। সাংবাদিকতার কারণে কাঠখোট্টা প্রতিবেদনই তাঁকে বেশি লিখতে হয়, তবে উত্পল শুভ্র দেখিয়েছেন সাহিত্যের হাতটাও তাঁর কম পাকা নয়। কোচ ও ক্রিকেট লিখিয়ে জালাল আহমেদ চৌধুরীর ভাষায় বইটি ‘টাঙ্গাইলের চমচম’, তবে প্রাপ্তিস্থান কোনো মিষ্টান্ন ভাণ্ডার নয়, আপাতত বইমেলায় প্রথমা প্রকাশনের স্টলে।


মন্তব্য