kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দিনশেষে দেখি ছাই হলো সব হুতাশে

সানাউল হক খান   

২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



দিনশেষে দেখি ছাই  হলো সব হুতাশে

আমার নাক-কান ধরে সজোরে টান মারছে ফুটবলমোদী গুটিকতক মানুষ

বাতাসে বিষমাখা সুর, দুর্গন্ধ

খবরের কাগজে চট্চট্ করছে কালির দ্রবীভূত অক্ষর

আমাকে নাকে রশি দিয়ে ঘোরাবার জন্য

ধেয়ে আসছে লোভাতুর মধ্যস্বত্বভোগীর দল;

তুমি-না ফুটবল নিয়ে কলমে ধানাইপানাই করছো

তুমি কি প্রবহমান সময় সম্পর্কে অন্ধ?

আমি জানি, অন্ধ হলেও প্রলয় বন্ধ থাকে না

পথে যেতে যেতে থমকে দাঁড়াবার অধিকারটুকু

একদিন থাকবে না।

‘দিনশেষে দেখি, ছাই হলো সব হুতাশে’

 

* * * *

 

যা ভেবেছিলাম, যা নিয়ে শংকা প্রকাশ করেছিলাম কোনো এক পাক্ষিকে, সেটাই কি না ঘটে গেল গত ১০ অক্টোবর, সোমবার সন্ধ্যায়।

লিখেছিলাম, যেভাবে ফুটবল দিনে দিনে তলানিতে যাচ্ছে, তাতে করে যেকোনো আসরে, বাংলাদেশের দলটা শিগগিরই ভুটানের কাছে হেরে যেতে পারে।

—হলো ঠিক তাই-ই। থিম্পুতে বাংলাদেশ নাস্তানাবুদ হলো ১-৩ গোলে, ভুটানের কাছে, বাছাই পর্বে। যেন আমাদের ফুটবলের মৃত্যু হলো। ‘ইন্নালিল্লাহে ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন’ পড়ে দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করলাম। ভুটানের কাছেই সালাউদ্দিনের ফুটানি শেষ হয়ে গেল! ‘বিশ্বকাপ মিশন-২২’ নামের সদর্প উচ্চারণ ভেঙে চুরমার। এক ধরনের ঝড়ের ঝাপটায় উল্টে গেল তাঁর স্বপ্ন। হয়তো অচিরেই কোচ বেচারা তাঁর চাকরিটা হারাবেন আর দশজন কোচের মতো।

কথায় বলে, পশ্চিমে মাথা রাখো কিংবা উত্তরে, পূর্বে মাথা রাখো কিংবা দক্ষিণে, যেভাবেই ঘুমাতে যাও, মাথার নিচে একটা বালিশ তো থাকতে হবে? আমাদের ফুটবলে সেই বালিশটা নেই। মেধা দিয়ে ঠাসা সালাউদ্দিনের মাথা থেকেও বালিশটা চুরি হয়ে গেছে। নচেৎ হারিয়ে গেছে, ভেস্তে গেছে তাঁর তাবত পরিকল্পনা। সাত-পাঁচ বুঝিয়ে মানুষকে বোকা বানানোর জারিজুরিটা বোধ করি এত দিনে ফাঁস হয়ে গেছে। গরুর কান কেটে বকরির কানে লাগানো আর ভেড়ার কান কেটে ঘোড়ার কানে লাগানোর গোজামিলটা পরিষ্কার হয়ে গেছে।

কোচের পর কোচ এনে, তাদের চাকরি খাওয়ার চেয়ে, তাদের ক্রমাগত অপমান করার চেয়ে, নিজেরই চাকরিতে ইস্তফা দেওয়া ভালো। ঘুণে ধরা চেয়ার-টেবিলে বার্নিশ লাগিয়ে কোনো মেহমানকে বসতে দিয়ে তামাশা করার কোনো মানে নেই। বেচারা অতিথি দুমড়ে পড়ে যেতে বাধ্য।

এতটা সময় কেটে গেল, ফুটবল নিয়ে ছেলেমানুষিপনা আর কমল না। সৃজন কিংবা সৃষ্টি কথার চারদিকে কোনো কাঁটাতারের বেড়া নেই। সালাউদ্দিনকে কেউ বাধা দেয়নি তাঁর নবকর্মযজ্ঞে, কিন্তু দুঃখের সঙ্গে বলতে হয়, সালাউদ্দিন নিজেই নিজের বাধা; আফ্রিকা-কঙ্গোর এক কবি বহু আগে একটি কবিতায় বলেছিলেন :

‘এনগেনডিয়ানা এন্ডিআগাগা মোটেগি’

যার বাংলা তর্জমা হচ্ছে, ‘মানুষরা বোকা থাকে কিছুকাল মাত্র, চিরকাল নয়। ’

ফুটবল অন্তঃপ্রাণ দর্শক কিন্তু আট বছরে বুঝে গেছে, সালাউদ্দিনের কথায় ফুটবলের নন্দনতত্ত্ব, মুখে দুর্গন্ধ, আলজিভে মিথ্যাচার!


মন্তব্য