kalerkantho


জোকস: গুগল নারী না পুরুষ?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৭ মার্চ, ২০১৮ ১৫:১৬



জোকস: গুগল নারী না পুরুষ?

সময় খুব দ্রুত বদলে যাচ্ছে। বদলাচ্ছে বিনোদনের কায়দাও। আগে টিভি-রেডিও ছিল না। তখন মানুষ অবসর বিনোদন করতো- মোরগ লড়াই লাগিয়ে, সবাই মোরগদের লড়াই দেখে মজা নিত। এখনও মানুষ সেই মজা নেয়। নিউজ চ্যানেলওয়ালারা নেতাদের ডেকে ‘মোরগ লাড়াই’ বাঁধিয়ে দেয়। মজা লোটে লাখ লাখ মানুষ- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে

                                                 (২)

পল্টু: তোর মেয়ের বিয়ের তারিখ পাকা হয়েছিল না দুই বছর আগে?
ঝন্টু: ঠিক।

পল্টু: তো এখনো বিয়েটা হচ্ছে না কেন?

ঝন্টু: কী করবো দোস্ত, জামাই তো পেয়েছি আইনজীবী!

পল্টু: আইনজীবী তো সমস্যাটা কী?

ঝন্টু: সমস্যা একটাই- বারবার খালি নয়া ডেট নেয়...

                                                (৩)  
মন্টুর মা হন্তদন্ত হয়ে ফোন করলেন মোবাইল ফোন সেবাদানকারী কোম্পানিতে-

মন্টুর মা: হ্যালো কাস্টমার কেয়ার?

কোম্পানি কর্মী: বলছি, দয়া করে বলুন আপনার সমস্যা।

মন্টুর মা: আমার ছেলে একটা সিম গিলে ফেলেছে!

কোম্পানি কর্মী: তো এখানে ফোন করেছেন কেন? হাসপাতালের ইমার্জেন্সিতে যান!

মন্টুর মা: না মানে সিম-এ তো ৩০০ টাকা ভরা আছে...

কোম্পানি কর্মী: তো? সমস্যা কী তাতে?

মন্টুর মা: সমস্যা আছে বেটির ঘরের বেটি!

কোম্পানি কর্মী: ম্যা’ম আপনার ভাষা সংশোধন করলে খুশি হই। আর আমি আসলে বুঝতেছি না আপনি ঠিক কী...

কোম্পানি কর্মী: আমার প্রশ্ন একটাই- এখন যদি আমার পোলা কথা কয়া বসে, তাইলে ব্যালেন্স কাইটা নিবি না তো?

                                                (৪)
একসময় বলা হতো- বাঙালি নারীর শেষ চিকিৎসা হচ্ছে ‘স্বামীর স্বার্থের দোহাই’ দেওয়া। তো বাঙালি নারী তার ‘স্বামীর ভাল হবে’ এই বিশ্বাসে সবকিছু করতে পারে এখনো। শুধু...স্বামীর কোনো কথা কখনো পুরোপুরি মেনে নিতে পারে না, এই যা- মন্টুর বাপের পর্যবেক্ষণ

                                                (৫)
আগের দিনে নতুন পরিচিত বা বিখ্যাত কারো সঙ্গে দেখা হলে লোকজন তার মুখোমুখি বসার বা দাঁড়ানোর চেষ্টা করতো। আর এখন তার পাশাপাশি থাকতে চায়, সেলফি তুলতে- মন্টুর বাপের পর্যবেক্ষণ

                                                (৬)
যদি কোনো পুরুষকে দেখেন তার স্ত্রীর জন্য নিজে গাড়ির দরোজা খুলে দাঁড়িয়ে আছে তবে দুটো বিষয় হতে পারে। এক, তিনি গাড়িটি নতুন কিনেছেন। দুই, তিনি মাত্রই বিয়ে করেছেন- মন্টুর বাপের পর্যবেক্ষণ

                                                (৭)
ইন্টারভিউ বোর্ডে প্রশ্ন: গুগল নারী না পুরুষ?

চাকরিপ্রার্থী: নির্ঘাৎ নারী, স্যার!

প্রশ্নকর্তা: কীভাবে এতটা নিশ্চিত হলেন?

চাকরিপ্রার্থী: কোনো প্রশ্ন শেষ করতে দেয় না স্যার, শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই কমপক্ষে দশটি সাজেশন হাজির করে বসে।

প্রশ্নকর্তা: ভেরি গুড। আপনি সিলেক্টেড। কালই জয়েন করুন।

                                                (৮)
স্ত্রী: স্বপ্নে দেখলাম ওই হীরের নেকলেসটা শেষপর্যন্ত তুমি কিনে দিচ্ছো আমাকে।

স্বামী: আমিও একই স্বপ্ন দেখলাম, সুইটহার্ট। তবে আমার স্বপ্নটা একটু লম্বা ছিল।

স্ত্রী: সো নাইস! তুমি কী দেখলে পরে?

স্বামী: আমি বিল দিতে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ পেছন থেকে তোমার বাবা আমার হাত চেপে ধরলো- না, জামাই। এই বিলটা আমাকেই দিতে দাও, তিনি বললেন।
 



মন্তব্য