kalerkantho


জোকস: এ তো পাপ হবে, মহাপাপ!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ নভেম্বর, ২০১৭ ১৯:৫৯



জোকস: এ তো পাপ হবে, মহাপাপ!

প্রতীকি চিত্র

                                                (১)
স্বামী: আমি মারা গেলে তুমি কি আবার বিয়ে করবে?

স্ত্রী: নাহ! কক্ষনো না। আমি আমার একমাত্র ছোট বোনের সঙ্গে বাকি জীবন কাটিয়ে দেব।

এখন বলো- আমি মারা গেলে তুমি কি বিয়ে করবে?

স্বামী: না। আমিও তোমার পথই ধরবো; তোমার বোনের সঙ্গে কাটিয়ে দেব...

                                                (২)
এই ঘটনা মার্কিন মুল্লুকের নিউ ইয়র্ক শহরের। বাপ ডেভিড ট্রাম্প তার একমাত্র পুত্র জনি ট্রাম্পকে ডাকলেন গুরুতর একটি বিষয়ে কথা বলার জন্য।

ট্রাম্প: দেখ জনি, পাশের বাড়ির ডেইজির সঙ্গে যে তোমার অ্যাফেয়ার চলছে তা আমি জানি এবং তোমরা যে অচিরেই বিয়ে করতে যাচ্ছ তাও জানি।  

জনি: ইউ আর রাইট ড্যাড... 

ট্রাম্প: কিন্তু তুমি বোধ হয় একটা বেঠিক ডিসিশন নিতে যাচ্ছো। কারণ, তুমি জান না যে ডেইজি আসলে তোমার আপন বোন!

জনি: বলছো কী, ড্যাড! তার মানে ডেইজির মা কেলির সঙ্গে তোমার...

ট্রাম্প: তুমি প্রাপ্তবয়স্ক, তোমার কাছে খোলামেলাই স্বীকার করছি- ওর মায়ের সঙ্গে আমার গভীর অ্যাফেয়ার ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হঠাৎ ওর বিয়ে হয়ে যায় ল্যারির সঙ্গে... ডেইজি তখন কেলির পেটে...

জনি: ওহ্‌ শিট বাবা! হাউএভার, তোমাকে থ্যাঙ্কস যে তুমি বিষয়টি আমাকে সময়মতো জানিয়েছো। নাহলে তো...

এর মাস খানেক পর ডেভিড ট্রাম্প ফের পুত্রকে ডাকলেন।

ট্রাম্প: ডিয়ার সান, তুমি মনে হয় আবার একই ভুল করছো।

জনি: মানে! কীসের ভুল বাবা?

ট্রাম্প: তোমার এখনকার প্রেমিকা রেমি ডাইসনের কথা বলছি। বাস্তবে সেও তোমার আপন বোন হয়!

জনি: তার মানে রেমির মা নাওমির সঙ্গেও তোমার...

ট্রাম্প: টুবি অনেস্ট, মাই সান- ঘটনা সেরকমই...

জনি: বাবা...

এরপর জনি মনের দুঃখে বাবা-মাকে ছেড়ে ক্যালিফোর্নিয়া চলে গেল। সেখানে সুজি নামে অপরূপা এক তরুণীর সঙ্গে তার প্রেম জমে উঠলো। সুজিকে বিয়ে করতে যাচ্ছে জনি আগামী রবিবার। কিন্তু আগেরদিন শনিবার বাবা ট্রাম্পের ফোন পেয়ে রীতিমতো চমকে গেল সে।

ট্রাম্প: মাই সান, আমি সব সময়ে তোমার কাছে সৎ থাকতে চেয়েছি। তাই সব দ্বিধা ঝেরে আবারও তোমাকে ফোন দিলাম। জানতে পারলাম তুমি সুজি ম্যাকেঞ্জিকে বিয়ে...

জনি: ওহ্‌ গড! বাবা এখানেও?

ট্রাম্প: তুমি ভুলে যাচ্ছো যে আমাদের আদি বাসস্থান ছিল ক্যালিফোর্নিয়া। তো সুজির মা রোজি আমার শিশুকালের খেলার সঙ্গী ছিল। যৌবনে আমাদের মাঝে গভীর প্রেম...

বাবার ওপর চরম ক্ষুব্ধ জনি ফোন কেটে দিয়ে সঙ্গে সঙ্গে মা লিলিকে ফোন দিল।  

সব শুনে লিলি ছেলেকে বললো: ডিয়ার সান জনি, তুই ডেউজি, রেমি বা সুজি- যে কাউকে বিয়ে করে ফেলতে পারিস। এতে কোনো সমস্যাই দেখছি না আমি...

জনি: মা, কী বলছো তুমি ভেবে বলছো! এ তো পাপ হবে, মহাপাপ!

লিলি: কোনো কিচ্ছুই হবে না! কারণ, ওরা কেউ-ই তোর আপন বোন নয়!

জনি: মা! এত নিশ্চয়তা দিয়ে কীভাবে বলছো!

লিলি: এ কারণে বলতে পারছি যে তুই নিজেই ট্রাম্পের সন্তান না! সুযোগ পেয়ে আমিও তোকে সত্য কথাটা বলে দিলাম আজ। ওহ গড! কী শান্তি যে লাগছে আজ...

জনি: মা...আ...আ...  তুমিও...

                                                (৩)

ফোনে মন্টুর বাপ: তুমি কোথায়? 

মন্টুর মা: আমি তো তোমার হৃদয়ে বাস করি!

মন্টুর বাপ: তা ভাল, থাকতে থাকো। কিন্তু সেখানে অন্য যারা আছে তাদের সঙ্গে ঝগড়া বাঁধিয়ো না আবার...

মন্টুর মা: কমিনা! শয়তানের হাড্ডি! আইজকা তুই বাড়ি আয় তারপর দেখাইতাছি...

                                                (৪)

রোগী: ডাক্তার সাব...

ডাক্তার: জ্বী বলেন, শুনছি।

রোগী: সমস্যা খুব জটিল। আমার স্ত্রী কথা বললে তা আমি শুনতে পাইনা! কী আজব অসুখ বলেন দেখি?

ডাক্তার: এটাকে অসুখ বলছেন কেন? এটা তো আপনার জন্য খোদার আশীর্বাদ! ইস্‌স আমার যদি এমন হতো...

                                                (৫)

বিয়ের সময়ে ছেলেরা শ্বশুর-শাশুড়িকে নিশ্চয়তা দেয়- আপনার মেয়েকে সুখে-শান্তিতে রাখবো। কিন্তু কোনো মেয়ে বিয়ের পর স্বামীকে সুখে-শান্তিতে রাখবে বলে হবু শ্বশুর-শাশুড়িকে কোনো গ্যারান্টি দিয়েছে বলে শোনা যায় না। মেয়েরা আসলে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেয় না- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে

                                                (৬)
ভাঙা নাক ছেঁড়া ঠোঁটওয়ালা এক বক্সার গেছে চোখের ডাক্তার দেখাতে।

ডাক্তার: ধারণা করছি আপনি মাঝেমধ্যেই বিপজ্জকন কোনো খেলায় অংশ নেন!

বক্সার: জ্বী, মাঝেমধ্যেই স্ত্র্রীর সঙ্গে জগড়া বাাঁধিয়ে ফেলি...

                                                (৭) 
দুই বান্ধবী রিনা আর বীণার অনেক বছর পর দেখা। একজন বিয়ে করে সংসারী হয়েছে অপরজন বিয়ে করেনি।

রিনা: বিয়ে করিনি। তবে অন্যদের দেখে অনুভব করতে পারি বিষয়টি কেমন হতে পারে। একবার আমার মোজার ভেতরে একটা পাথরের টুকরো ঢুকে যায়। ঘণ্টাখানেক ওই অবস্থায় জুতো পায়ে হাঁটতে হয়েছে আমাকে। সেই যন্ত্রণা এখনও ভুলিনি...

বীণা: আমি আর আমার স্বামী জীবনের বিশটি বছর স্বর্গসুখে ছিলাম। এরপর আমরা বিয়ে করি...

                                               (৮)
আল্লাহ আদমকে আগে বানিয়েছে আর হাওয়াকে পরে। কেন? কারণ, তিনি চাননি কেউ তাকে পরামর্শ দিক- কীভাবে আদমকে বানাতে হবে- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে 


মন্তব্য