kalerkantho


হাসির তিনটি জোকস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ আগস্ট, ২০১৬ ২১:৫৮



হাসির তিনটি জোকস

(এক)

সেই যে বাড়িতে এক অথিতি এসেছে , এক সপ্তাহ যায় দু সপ্তাহ যায় তবু নড়বার কোন লক্ষন নেই। স্বামী স্ত্রী কেউ কিছু বলতে পারে না লজ্জায়।
একদিন পাশের ঘরে অথিতিকে শুনিয়ে দুজন খুব ঝগড়া করতে লাগলো, মিছামিছি। স্ত্রীকে স্বামীর প্রহার এবং স্ত্রীর কান্নায় আওয়াজও শোনা গেল এক পর্যায়ে। গতিক সুবিধের নয় ভেবে অথিতি ভদ্রলোক তার সুটকেস নিয়ে এক ফাকে বেরিয়ে গেল।  
জানালা দিয়ে স্বামী স্ত্রী দুজনায় তাদেখে ঝগড়া বন্ধ করে খুব এক চোট হেসে নিল- যে বুদ্ধি করে তারা অথিতি তাড়াতে পেরেছে। স্বামী বললো তোমার লাগে টাগে নিতো? যে জোরে কাদছিলে।  
স্ত্রী বললো, দূর একটু ও লাগেনি। এতো লোক দেখানো কেদেছিলাম।  
হাসিমুখে এক সময় অথিতির আর্বিভাব, হেঁ,হেঁ আমিও কিন্তু লোক দেখানো গিয়েছিলাম।  


(দুই)

স্বামী আর স্ত্রীর মধ্যে প্রচণ্ড ঝগড়া। মুখ দেখা, কথা বন্ধ।
রাতে শুতে যাওয়ার সময় স্বামীর মনে পড়ল পরের দিন ভোরবেলা ফ্লাইট। এদিকে স্বামী বেচারা সকালে উঠতে পারে না। সাত-পাঁচ ভেবে সে একটি কাগজে লিখল ”কাল সকাল চারটার সময় ডেকে দিও। ” কাগজটা স্ত্রীর বালিশের কোণায় চাপা দিয়ে স্বামী নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে পড়ল।  
পরের দিন সকালে সাড়ে আটটার সময় স্বামীর ঘুম ভাঙল। সময় দেখে তার তো চক্ষু চড়কগাছ। রেগে মেগে চিৎকার করে স্ত্রীকে ডাকতে গিয়ে তার নজরে পড়ল বালিশের পাশে একটা চিরকুট।  
খুলে দেখল লেখা আছে ”চারটে বেজে গেছে, উঠে পড়ো। ” 


(তিন)    

নব বিবাহিত স্বামী-স্ত্রী রাতে ট্রেন ভ্রমন করছেন।
হঠাৎ পুরো ট্রেনের ইলেক্ট্রিসিটি চলে গেল, বেশ কিছুক্ষণ পর আবার সব আলো জ্বলে উঠলো….. 
স্বামী: আগে যদি জানতাম এতক্ষণ আন্ধকার থাকবে তাহলে এর সদ্ব্যবহার করে আনেকগুলি চুমু খেতে পারতাম।  
স্ত্রী: তুমি না……. তাহলে এতক্ষণ কে ছিল …… 


মন্তব্য