kalerkantho


স্বাধীনতা দিবসে বাঙালিদের হৃদয় জয় করল গুগল ডুডল

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০১৮ ০১:৪৩



স্বাধীনতা দিবসে বাঙালিদের হৃদয় জয় করল গুগল ডুডল

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে দেশ ও প্রবাসের লাখো বাঙালির হৃদয় জয় করেছে গুগল ডুডল। গত ছয় বছর ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে গুগলের নতুন ডুডল দেশ ও প্রবাসের বাঙালিদের কাছে বেশ প্রসংশিত হয়ে উঠেছে।

এবারও স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে নতুন ডুডল বের করেছে গুগল। ২০১৩ সাল থেকে প্রতিবছর গুগল এই দিনটিকে স্বীকৃতি দিয়ে নতুন নতুন ডুডল বের করে আসছে। এবারের ডুডলে লাল সবুজের পতাকার নিচে সবুজ অক্ষরে গুগল লেখা রয়েছে।

ডুডলটির ওপর ক্লিক করলে স্বাধীনতা দিবস-সম্পর্কিত খবর, তথ্য প্রদর্শন করছে। ২০১৩ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশের মানুষ গুগলে ঢুকে সুন্দর একটি ডুডল দেখে চমকে যায়। গুগলকে ধন্যবাদ জানায় অনেকেই। সেবারই প্রথম স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা হিসেবে ডুডল প্রকাশ করে গুগল। গুগল তাদের হোম পেজে বাংলাদেশের ফুলে ভরা সবুজ দৃশ্যপটে পতাকা হাতে একটি পরিবারকে নিয়ে ডুডল প্রকাশ করে।

বাংলাদেশের সব গুগল ব্যবহারকারীকে চমকে দিয়েছিল ওই দুর্দান্ত ডুডল। এ ছাড়া ওই ডুডলে ক্লিক করলেই বাংলাদেশ স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে তথ্য পান ব্যবহারকারীরা। ২০১৫ সালের ২৬ মার্চে আবারও ডুডল প্রকাশ করে গুগল। লাল-সবুজের ওই ডুডলে ‘গুগল’ লেখাটিকে ফুটিয়ে তোলা হয়ে বাংলাদেশের পতাকার আদলে। ইংরেজিতে লেখা গুগলের ‘ও’ অক্ষরটিকে লাল রঙে বৃত্ত হিসেবে দেখানো হয়, যার মধ্যে দেখানো বাঘ (বেঙ্গল টাইগার)। ডুডলটির ওপর ক্লিক করলে গুগল সার্চ পেজে নিয়ে যায় যেখানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস-সম্পর্কিত সংবাদ ও আর্টিকেলের বিভিন্ন লিংক থাকে।

২০১৬ সালের স্বাধীনতা দিবসে গুগলের ডুডলে ফুটিয়ে তোলা হয় উন্নতির দিকে এগিয়ে চলা বাংলাদেশকে। ডুডলটিতে ইংরেজিতে ‘গুগল’ লেখার ব্যাকগ্রাউন্ডে রয়েছে লাল-সবুজ আর ‘ও’ লেখাটির মাঝখানে দেখানো হয় বঙ্গবন্ধু সেতু। বাংলাদেশর পূর্ব ও পশ্চিম অংশের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপনে যমুনা নদীর ওপর তৈরি সেতুটিকে তুলে ধরে গুগল।

গত বছরেও ডুডলটিতে ফিচার হিসেবে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা তুলে ধরা হয়েছিল। তখন সার্চ অপশনটির ওপরে ‘গুগল’ লেখাটিকে পতাকার আদলে সাজানো হয়। ‘ও’ অক্ষরটিকে পতাকার বৃত্তের মতো করে লাল বর্ডার আর ভেতরে বাংলাদেশের পতাকা দেখানো হয়েছিল। গুগলের এ উদ্যোগের প্রসংশা করে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ প্রসংশনীয় মন্তব্যও করেছেন।শেষে গুগুলকে ধন্যবাদ জানাতেও ভুল করেননি কেউ।


মন্তব্য