kalerkantho


প্রযুক্তি বিষয়ে ভুল ধারণাগুলো, যা এখনো মানুষ বিশ্বাস করে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১২:০৪



প্রযুক্তি বিষয়ে ভুল ধারণাগুলো, যা এখনো মানুষ বিশ্বাস করে

ছবি অনলাইন

প্রযুক্তি বিষয়ে বেশ কিছু ধারণা বহু আগে থেকেই প্রচলিত রয়েছে। তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে এ ধারণাগুলোর অনেকগুলোই অকার্যকর হয়ে গেছে। তবে মানুষ এখনো সেই পুরনো ধারণাই বিশ্বাস করে চলেছে।

ব্যাটারি বিষয়ে ভুল ধারণা
ব্যাটারি কেনার পর তা ভালোভাবে ফুল চার্জ করে নিতে হবে। এটি কখনোই সারারাত চার্জে দেওয়া যাবে না। ওভারচার্জ হয়ে যাবে। চার্জ একেবারে শুন্য করা যাবে না। দিনে একবারের বেশি চার্জ করা যাবে না। ইত্যাদি বহু তথ্য আমরা পেয়ে থাকি ব্যাটারির আয়ু বাড়ানোর জন্য। তবে বাস্তবতা হলো এগুলো পুরনো ব্যাটারির প্রযুক্তি অনুযায়ী। বিশেষ করে নিকেল ক্যাডমিয়াম ব্যাটারির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কিন্তু বর্তমানে লিথিয়াম ব্যাটারি ব্যবহৃত হয়। এসব ব্যাটারির নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা যেমন ভালো তেমন অতিরিক্ত চার্জ হওয়া প্রতিরোধ করার ব্যবস্থাও থাকে। এ কারণে আধুনিক ফোনের ব্যাটারি নিয়ে তেমন চিন্তা না করলেও চলে।

প্রাইভেট ব্রাউজিং নিরাপদ
প্রাইভেট ব্রাউজিং নামে একটি বিষয় রয়েছে বিভিন্ন ব্রাউজারে। অনেকে মনে করেন এর মাধ্যমে ব্রাউজ করলে আপনি যে সাইটেই যান না কেন, তাতে কোনো অসুবিধা হবে না। যদিও ধারণাটি ভুল। প্রাইভেট ব্রাউজিংয়ে আপনার ব্রাউজারে এর হিস্টোরি থাকবে না। কিন্তু এর হিস্টোরি থেকে যাবে আপনার ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারের কাছে। এছাড়া গুগলে যদি আপনি লগইন করে থাকেন তাহলে তাদের কাছেও এর হিস্টোরি থাকতে পারে।

বড় মেমোরির শক্তিশালী স্মার্টফোন
স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে অনেকেই এখন বেশি র‌্যাম, বেশি স্টোরেজ, দ্রুতগতির প্রসেসর, বেশি মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা, উচ্চ রেজুলিশনের স্ক্রিন ইত্যাদিতে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। তবে এসব সংখ্যা বেশি মানেই আপনার স্মার্টফোন ভালো নয়। সেলফি তুলতে যেমন ২০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা লাগে না তেমন ফোরকে স্ক্রিনও প্রয়োজন হয় না। আবার অনেক স্মার্টফোন কম কনফিগারেশনেই ভালো চলে। তাই শুধু সংখ্যাই সবকিছু নয়।

স্ক্রিনের উজ্জ্বলতা
মোবাইলের স্ক্রিনের উজ্জ্বলতা কমিয়ে দিয়ে অনেকেই ব্যাটারি বাঁচানোর চেষ্টা করেন। যদিও এতে চোখের ওপর বাড়তি চাপ পড়ে। তাই এটি অটো-ব্রাইটনেসে রাখতে পারেন। এক্ষেত্রে স্ক্রিনের উজ্জ্বলতা নিজে থেকেই ঠিক হবে। একেবারে অন্ধকারে অবশ্য অনেক মোবাইল ফোনের এ সেটিংটা কাজ করে না। তখন আলোতে নিয়ে তা ৪০%-এ ঠিক করে নিতে পারেন।

দামি ফোন বহুদিন ব্যবহার করবেন?
মোবাইল ফোন এখন বছরখানেক চলার পরেই অকার্যকর হওয়া শুরু হয়। আর তাই আপনি একটি ফোন কিনে বছরের পর বছর স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে ব্যবহার করতে পারবেন না। আর এর পেছনে রয়েছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোই। এমনকি অ্যাপলের আইফোনও এর ব্যতিক্রম নয়। প্রতিষ্ঠানগুলো চায় আপনি পুরনো ফোনটি ফেলে দিয়ে নতুন করে কিনুন। এজন্য অনেক মোবাইল ফোন নির্মাতা প্রতি বছরের সফটওয়্যার আপডেটেই ফোনটি স্লো করে দেওয়ার ব্যবস্থা রাখে।

ডিলিট মানেই চিরতরে মুছে ফেলা নয়
আপনার কম্পিউটার বা মোবাইল ফোনের মেমোরিতে যে জিনিসগুলো ছিল, তা মুছে ফেলে ফোনটি বিক্রি করে দেওয়া মোটেই বুদ্ধিমানের কাজ নয়। কারণ মুছে ফেলা জিনিসও অনেকে পুনরুদ্ধার করতে পারে। এক্ষেত্রে আপনি যদি মেমোরি খালি করে সে স্থানে অন্য কোনো ফাইল (অডিও/ভিডিও//কনটেন্ট) দিয়ে বোঝাই করেন তাহলে কিছুটা কাজ হবে। তবে নিশ্চিত হওয়ার জন্য কিছু টুল ব্যবহার করতে পারেন। কারণ ডিলিট করা মানেই মুছে ফেলা নয়- তা মেমোরিতে থেকে যায়।


মন্তব্য