kalerkantho


নকিয়া ৬ : 'এটাই মধ্যম বাজেটের সেরা ফোন'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ আগস্ট, ২০১৭ ১৫:১৩



নকিয়া ৬ : 'এটাই মধ্যম বাজেটের সেরা ফোন'

আইকনিক নকিয়া ব্র্যান্ডের ফোনগুলো বাজারে আসার পর ভক্তদের আগ্রহের শেষ নেই। হাজার হলেও একসময় নকিয়া ব্যবহার করেননি এমন কোনো মোবাইল ব্যবহারকারী খুঁজে পাওয়া যাবে না।

এ বছরের প্রথম দিকেই নকিয়া ৬ মডেলের ফোনটি প্রাথমিকভাবে চীনের বাজারে ছাড়ে ফিনিশ নির্মাতা এইচএমডি গ্লোবাল। ইউরোপের বাজারে ২২৯ ইউরোতে ছাড়া মোবাইলটি মধ্যম বাজেটের ফোনের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। বাংলাদেশের বাজারে দাম ধরা হয় ২২ হাজার ৫০০ টাকার মতো। শুধু স্থান করে নিয়েছে বললে ভুল হবে, অনেক বিশেষজ্ঞই মত দিচ্ছেন যে এটা মধ্যম বাজেটের সেরা ফোন বলে বিবেচিত হতে পারে।  

ইতিমধ্যে ভারত, বাংলাদেশসহ আশপাশের দেহে এর চাহিদা ব্যাপক হারে বাড়ছে। সেরা হওয়ার পেছনে কিছু কারণও তো আছে। যে ধরনের বাক্সে করে আসছে তা দেখলেই আপনি পুরনো সময়ে ফিরে যাবেন। নস্টালজিয়া কাজ করবে। এর ধাতব দেহ তৈরি হয়েছে এক খণ্ডের ৬০০০ সিরিজ অ্যালুমিনিয়াম দিয়ে।

এমনটাই বলছে নির্মাতা। হাত থেকে অসাবধানতাবশত পড়ে গেলে কিছু হবে না। যদিও ধাতব দেহের কারণে কিছুটা পিচ্ছিল বলেই মনে হয়।  

৫.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি আইপিএস এলসিডি পর্দার ফোনটিকে খুবই স্লিম বলা যায় না। একটু চওড়া বলেই মনে হবে। এটা অনেকের কাছেই ভালো লাগবে। ওপরে-নিচে অ্যান্টেনা বসানো হয়েছে। এর ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরটি বেশ ভালো কাজ করে। কোণা বা পাশে থেকে দেখলে পর্দা পরিষ্কারই থাকে। ডিজাইনের দিক থেকে কেউ এটাকে নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেননি।  

৩০০০এমএএইচ ব্যাটারি যথেষ্ট কাজ করে। মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে মেমোরি বৃদ্ধি করা যাবে ১২৮ জিবি পর্যন্ত। পেছনে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরায় অসাধারণ ছবি ওঠে। সামনেও রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। দুটোতেই দেওয়া হয়েছে এফ/২.০ অ্যাপারচার। এগুলো ছবির আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো বিস্তারিত তুলে আনতে পারে। রাতেও বেশ ভালো মানের ছবি তুলতে সক্ষম। অটো ফোকাস অপশনটিও ভালো।  

স্ন্যাপড্রাগন ৪৩০ এসওসি এর পারফর্মেন্স খুবই ভালো। যেভাবে অ্যাপগুলো ডাউনলোড হয় কিংবা ইনস্টল হয়, সেই পারফর্মেন্স নিয়ে অভিযোগ থাকার কথা নয়। ৩ জিবি র‍্যাম যেকোনো কাজের জন্য যথেষ্ট। ভিডিও দেখে তেমন খুঁত বের করতে পারবেন না। অ্যান্ড্রয়েড নুগেট ৭.১.১ নিয়ে এসেছে এটি।  

বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ ব্যাবহার করে গেলে একদিন টিকে থাকবে ব্যাটারির একবারের চার্জ। ভারি ব্যবহারে ১৫-১৬ ঘণ্টা টিকে থাকে। এর বেশি কী আর দরকার আছে? 
সূত্র : গেজেট স্নো 


মন্তব্য