kalerkantho


ক্রেডিট কার্ডে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর আনলো মাস্টারকার্ড!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ এপ্রিল, ২০১৭ ১৩:৫০



ক্রেডিট কার্ডে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর আনলো মাস্টারকার্ড!

পেমেন্ট কার্ডে নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রে চূড়ান্ত নমুনা দেখালো ক্রেডিট কার্ড প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান মাস্টারকার্ড। দক্ষিণ আফ্রিকায় পরীক্ষামূলকভাবে নতুন কার্ড ব্যবহার করা হয়েছে।

মাস্টারকার্ড এবার তাদের পেমেন্ট কার্ডে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর যুক্ত করেছে।  

মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যেভাবে দাম পরিশোধ করা হয়, একই প্রযুক্তিতে কাজ করবে এই কার্ড। দাম প্রদানের সময় ব্যবহারকারীকে তার কার্ডের সেন্সেরে আঙুল রাখতে হবে।  

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের মতে, যদিও ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর সম্বলিত পেমেন্ট কার্ডও পুরোপুরি নিরাপদ নয়, তবুও বায়োমেট্রিক পদ্ধতি ব্যবহারের দারুণ এক ক্ষেত্র।  

মাস্টারকার্ডের সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগের প্রধান অজয় ভাল্লা জানান, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরের মাধ্যমে বাড়তি নিরাপত্তা দেওয়া হবে ক্রেডিট কার্ডে। আঙুলের ছাপ এমন এক জিনিস যাকে নকল করা যায় না। এটা অন্য কেউ নিতেও পারবে না।  

কিন্তু ভিন্ন মত পোষন করেন বার্লিন্স সিকিউরিটি রিসার্চ ল্যাবস এর প্রধান বিজ্ঞানী কার্স্টেন নোল। বলেন, কারো আঙুলের ছাপ জোগাড় করতে কেবল এমন একটি কাঁচের গ্লাস দরকার সেখানে ওই ব্যক্তির আঙুলের স্পর্শ রয়েছে।

তবে তথ্য চুরির ঘটনা ঘটলে আপনি একে একে ৯টি আঙুলের ছাপ ব্যবহার করতে পারবেন। তার পর আর কোনো উপায় নেই। তবে সবমিলিয়ে এই মুহূর্তে যে ব্যবস্থা রয়েছে, নিরাপত্তা প্রদানে তার চেয়ে অনেক ভালো উপায় এটি। বর্তমানের চিপ এবং পিন নম্বরের সমন্বয়ে নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে। পিন নম্বর একটি দুর্বল পদ্ধতি। সেখানে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর অনেক বেশি শক্তিশালী।  

আঙুলের ছাপের প্রয়োগ ঘটলে কঠিন কঠিন সব পাসওয়ার্ড মনে রাখার ঝক্কি পোহাতে হবে না, বলেন নোল।  

এ কার্ডের মাধ্যমে পণ্য ক্রয়ের সময় আর কোনো স্ক্যানার লাগবে না। এই কার্ডে একইসঙ্গে ব্যবহারকারীর আঙুলের ডিজিটাল টেমপ্লেট এবং সেন্সর রয়েছে। কাজেই এটি যেকোনো জায়গায় গ্রহণযোগ্য। আগের কার্ডগুলো যেখানে ব্যবহার হতো, সেখানেই এটি ব্যবহৃত হবে। সূত্র: বিবিসি 


মন্তব্য