kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গুগলের ১৮ বছর, জেনে নিন ১৮টি দারুণ তথ্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:২১



গুগলের ১৮ বছর, জেনে নিন ১৮টি দারুণ তথ্য

বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের বেশ বয়স হয়েছে। গুগল তাদের ১৮তম জন্মবার্ষিকী পালন করছে।

এর জন্য একটি ডুডল দেওয়া হয়েছে তাদের হোপমেজে। এখানে গুগলের ১৮ বছরে জেনে নিন ১৮টি দারুণ তথ্য।

১. কেউ জানেন না গুগলের জন্মদিন কবে। গুগলের জন্ম ঠিক কোন দিনটিতে হয়েছিল তা আসলে বলা যায় না। এই প্রতিষ্ঠানের ৬টি জন্মদিন রয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠানটি ২৭ সেপ্টেম্বর এটি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

২. হতে পারে এর বয়স ১৮ নয়, ১৯ বছর হয়েছে। কারণ এর একটি জন্মদিন পালন হয় ১৯৯৫ সালে।

৩. গুগল ক্যাম্পাসে একটি বিশাল টি-রেক্স ডাইনোসর রাখা হয়েছে। এটি কর্মীদের বলছে, এ প্রতিষ্ঠানকে দুর্গন্ধময় করে তোলা যাবে না।

৪. গুগল ক্রোম ব্রাউজারে টি-রেক্সের একটি গেমও দেওয়া হয়েছে। ক্রোম যখন ইন্টারনেট সংযোগ পায় না তখন তা একটি সাবধাণ সংকেত দেখায় ডাইনোসরের ছবির মাধ্যমে। তখন স্পেসবার চাপ দিলে একটি গেম শুরু হবে টি-রেক্সকে নিয়ে।

৫. গুগলের পণ্য লুকিয়ে রয়েছে অনেকক ইস্টার এগ। সার্চের মাধ্যমে এদের অধিকাংশের সন্ধান মিলবে।

৬. সার্চের কাজ নিয়ে গুগল খুব বেশি সন্তুষ্ট ছিল না। 'জাস্ট গুগল ইট' বাক্যাংশ নিয়েও তারা দুশ্চিন্তায় ছিল। এতে গুগলের অন্যান্য পণ্য গুরুত্ব হারাতে পারে।

৭. গুগল এত বেশি প্রতিষ্ঠান কিনে নিয়েছে যা আপনি চিন্তাও করতে পারবেন না। প্রতি সপ্তাহেই একটি করে কম্পানি কেনা গুগলে অভ্যাসে পরিণত হয়। এগুলো ছোট কম্পানি। কিন্তু এদের বিশালে পরিণত করা যায়।

৮. গুগলের 'আই অ্যাম ফিলিং লাকি' বোতামটির দাম মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার পর্যন্ত উঠে গেছে।

৯. গুগলের প্রথম স্টোরেজ বানানো হয় লেগো দিয়ে। আর এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় ডেটা স্টোরেজ কম্পানিতে পরিণত হয়েছে গুগল। এখানে কোটি কোটি মানুষের ছবি, ভিডিও এবং অন্যান্য তথ্য রয়েছে।

১০. গুগলে কর্মরত অবস্থায় কর্মীরা মারা গেলে গুগল তারের স্ত্রী বা স্বামীকে যথেষ্ট অর্থ প্রদান করে। কেউ মারা গেলে তার পরিবার পরবর্তী এক যুগ পর্যন্ত বেতনের অর্ধেক করে পাবে।

১১. একটি গুগল সার্চে যে পরিমাণ কম্পিউটিং শক্তি খরচ হয় তা অ্যাপোলো ১১-তে করে চাঁদে পাঠাতে খরচ হয়।

১২. একবার গুগল ৫ মিনিটের জন্য ডাউন হয়ে যায়। ২০১৩ সালের ১৯ আগস্টের ওই ঘটনায় ৪০ শতাংশ ওয়েব ট্রাফিক সেই সঙ্গে নিয়ে যায়।

১৩. গুগলের হেডকোর্টার অনেক বড়। এর মাঠে অনেক ঘাস। এই ঘাস সাফাইয়ে অনেক মানুষ দরকার। তাই নিয়ন্ত্রণ করতে গুগল ছাগল ভাড়া করে আনে।
 
১৪. গুগলের অনেকগুলো কুকুরও রয়েছে। কর্মীরাও তাদের পোষা কুকুর নিয়ে আসতে পারেন।

১৫. প্রথম যে কুকুরকে আনা হয় তাককে 'টপ ডগ' বলে ডাকা হয়। ওই কুকুরটির নাম ইয়োশকা যে প্রথম তার মালিকের সঙ্গে এসেছিল। ১৯৯৯ সালে একে আনে গুগল অপারেশন্সের এক ভাইস প্রেসিডেন্ট উরস হোল্জলে।

১৬. গুগলের লোগোটি কিন্তু মাঝখানে ছিল না ২০০১ সাল পর্যন্ত। তখন গুগলের হোমপেজটি ছিল একেবারে সাধারণ। লোগোটি কিছুটা বামের দিকে রাখা হয়েছিল। ২০০১ সালের পর গুগল একে মাঝখানে এনে দেয়।

১৭. তখন থেকেই গুগল আনছে নানা পরিবর্তন। লোগোতে এনেছে ছোট ছোট পরিবর্তন। বড় পরিবর্তন এনেছে শব্দ লেখার নিয়মে। নতুন ফন্টও আনা হয়।

১৮. এসব পরিবর্তনের পুরোটাই বদলে গেছে নাম বদলের মাধ্যমে। সম্প্রতি গুগল তার নাম পরিবর্তন করে আলফাবেট রেখেছে। গুগল তার মালিকানা আসলে আলফাবেটের অধীনে চলে গেছে। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট

 


মন্তব্য