অনলাইনে চরমে পৌঁঁছেছে নারী হয়রানির-334002 | তথ্যপ্রযুক্তি | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

রবিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১০ আশ্বিন ১৪২৩ । ২২ জিলহজ ১৪৩৭


অনলাইনে চরমে পৌঁঁছেছে নারী হয়রানির ঘটনা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ মার্চ, ২০১৬ ১৫:৫৮



অনলাইনে চরমে পৌঁঁছেছে নারী হয়রানির ঘটনা

ইন্টারনেটের এই যুগে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন অনেকে। বিশেষ করে অনলাইনে নারীদের হয়রানি চরমে পৌঁছেছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। সমাধানে এটা বলা যায় না যে, নারীদের  অফলাইনে চলে যেতে হবে। আবার এও বলা যায় না যে, অনলাইন কোনো ব্যাপার নয়। এসব হুমকিকে পাত্তা না দিলেও চলে। বিষয়টা সত্যিকার অর্থে ভয়ানক অবস্থায় গিয়ে ঠেকেছে।

কানাডিয়ান-অস্ট্রেলিয়ান লেখিকা, নারী অধিকার বিষয়ক আইনজীবী এবং ইউনিসেফ-এর অ্যাম্বাসাডর তারা মসের মতে, দিন যত গড়াচ্ছে অনলাইনে নারীরা ততই নিরাপত্তাহীন হয়ে উঠছেন। ভার্চুয়াল জগতে নারীদের যেখানে হয়রানি ও নির্যাতন চালানো হয় তা সত্যিই চিন্তার বিষয়।

ডিজিটাল সিকিউরিটি প্রতিষ্ঠান নরটন একটি গবেষণা চালায় যার শিরোনাম 'অনলাইন হ্যারেসমেন্ট : দ্য অস্ট্রেলিয়ান ওমেনস এক্সপেরিয়েন্স'। তাদেরই একটি জরিপে ১ হাজার ৫৩ জন নারীর তথ্য নেওয়া হয়। এদের ৪৭ শতাংশই এ ধরনের হয়রানির শিকার হয়েছেন। তিরিশ বছরের কম বয়সী নারীদের ৭৬ শতাংশ এসব অভিযোগ করেছেন। গবেষণায় দেখা গেছে, হয়রানি চরম পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে।

মস বলেন, অনলাইনে প্রতিদিন অসংখ্য নারী কাজ করেন। বয়সভেদে সব নারীকেই অনলাইনে দেখা যায়। নির্যাতন, বাজে মন্তব্য এবং সাইবারবুলিংয়ের মাধ্যমে নারীদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করা হচ্ছে। ১৮ বছরের তরুণী থেকে শুরু করে ষাটোর্ধ নারীরাও ছাড় পাচ্ছেন না। ৩০ বছরের কম বয়সী নারীদের ৩০ শতাংশ হুমকি-ধামকি, ২৬ শতাংশ দৈহিক নির্যাতনের হুমকি এবং ২০ শতাংশ ছবির মাধ্যমে যৌন নির্যাতনের শিকার হন। এদের ১৬ শতাংশ কুরুচিপূর্ণ যৌনাচার এবং ধর্ষণের ভিডিওর মাধ্যমে হুমকি পেয়েছেন।

তবে বাস্তবে এ ধরনের নির্যাতনের সঙ্গে অনলাইনে নির্যাতনের তুলনাই চলে না। কিন্তু এর মাধ্যমে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছেন নারীরা। এর নেতিবাচক প্রভাব এতটাই বেশি যে তা কোনো অংশে বাস্তবিক নির্যাতনের চেয়ে কম নয়।

তাই আইনপ্রণেতা এবং নীতিনির্ধারকসহ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে এ বিষয়ে খেয়াল দিতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন অনেকেই।

বিশেষজ্ঞরা জানান, এ ক্ষেত্রে পুরুষরাও যথেষ্ট নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। নারীরা পুরুষদের চেয়ে দ্বিগুন হারে হত্যার হুমকি পাচ্ছেন। ধর্ষণের হুমকি নারীরা পাচ্ছেন অহরহ। তা ছাড়া নারীরা প্রতিশোধমূলক পর্নের শিকার হচ্ছেন আশঙ্কাজনক হারে। আবার এ ধরনের নির্যাতনের ক্ষেত্রে পরবর্তিতে মুখ দেখাতেও দ্বিধাবোধ করেন নারীরা।

নারীদের এ ধরনের মানসিকতা পরিবর্তনের কথা বলেন মস। জরিপে দেখা গেছে, কেবলমাত্র অনলাইনে হুমকি কারণে বহু নারী তার বাসা পর্যন্ত বদলে দূরে কোথাও চলে গেছেন। আবার এমনটা ঘটতে থাকলে অফলাইনে চলে যাওয়া কোনো সমাধান বয়ে আনতে পারে না। এমন পরিস্থিতির শিকার হলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংশ্লিষ্ট বিভাগে অভিযোগ জানাতে হবে। আর কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে আন্তরিক হতে হবে। সূত্র : সি নেট

 

মন্তব্য