kalerkantho

ভ্যাট আইন নিয়ে এনবিআরে দীর্ঘ বৈঠক

বহু স্তরবিশিষ্ট ভ্যাট বহাল রাখার পক্ষে ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আগামী অর্থবছরের বাজেটে ভ্যাট (ভেলু অ্যাডেড ট্যাক্স) বা মূসক (মূল্য সংযোজন কর) আইন ২০১২ অন্তর্ভুক্ত করা হবে। আইনটির যেসব ধারা সংশোধনে ব্যবসায়ীরা দাবি জানিয়েছেন, তা নিয়ে বৈঠকে বসে সমাধানের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তারা বৈঠক করেছেন।

রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এনবিআরের মূল দপ্তরের সম্মেলনকক্ষে চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত রদ্ধদ্বার বৈঠকে ব্যবসায়ীরা তাঁদের আগের অবস্থান থেকে কতটা সরে আসতে পারবেন তা নিয়েই মূলত আলোচনা চলে। গতকালের বৈঠকে ব্যবসায়ীরা স্পষ্ট জানিয়ে দেন, দাবি না মানলে ভ্যাট আইন ২০১২ বাস্তবায়ন করা তাঁদের পক্ষে সম্ভব নয়। এনবিআর চেয়ারম্যান ব্যবসায়ীদের কাছে ভ্যাট আইন সম্পর্কে লিখিত প্রস্তাব চেয়েছেন। এসব প্রস্তাব নিয়ে তিনি আবারও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন বলে জানান।

এনবিআর সূত্র জানায়, ব্যবসায়ীদের অন্যতম দাবিগুলোর একটি হলো প্যাকেজ ভ্যাট বাতিল করা যাবে না। প্রয়োজনে প্যাকেজ ভ্যাট বাড়িয়ে পরিশোধে তাঁরা রাজি। বহু স্তরবিশিষ্ট ভ্যাটের হার বহাল রাখার পক্ষে ব্যবসায়ীরা তাঁদের বক্তব্য তুলে ধরেন। এ ছাড়া আদায়ের কঠোরতা থেকেও এনবিআরকে সরে আসতে বলেন ব্যবসায়ী নেতারা।

বৈঠকে মূলত ব্যবসায়ীদের দাবিগুলোর ইতিবাচক এবং নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে আলোচনায় সীমাবদ্ধ ছিল। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত এনবিআর কর্মকর্তারা ভ্যাট আইন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারেননি। ভ্যাট আইন প্রণয়নকালীন সময় থেকেই এনবিআরের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের টানাপড়েন হয়।

বর্তমান সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এনবিআরে চিঠি পাঠিয়ে ভ্যাট আইন ২০১২ নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ব্যবসায়ীরা এ দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি। তাঁদের সঙ্গে নিয়ে ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে যেতে হবে।

এফবিসিসিআই সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমি আশা করছি, আলোচনার মাধ্যমে ভ্যাট আইন ২০১২ নিয়ে সৃষ্ট সমস্যার সমাধান সম্ভব হবে। এনবিআরকে আগের চেয়ে আন্তরিক মনে হয়েছে।’

মন্তব্য