kalerkantho


একনেকে আট প্রকল্প অনুমোদন

চার লেন হচ্ছে যাত্রাবাড়ী থেকে ডেমরা সড়ক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর মেয়র হানিফ উড়ালসড়ক থেকে ডেমরার সুলতানা কামাল সেতু পর্যন্ত সড়কটি চার লেনে উন্নীত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। গতকাল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এসংক্রান্ত একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। চার লেন সড়কটি করতে খরচ হবে ৩৬৯ কোটি টাকা। পুরো টাকাই রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের বলেন, যাত্রাবাড়ী-ডেমরা-শিমরাইল-নারায়ণগঞ্জ সড়কটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি জাতীয় মহাসড়ক ও ঢাকা-সিলেট জাতীয় মহাসড়ককে সংযুক্ত করেছে। কাঁচপুর সেতু নির্মাণাধীন, এ কারণে এই সড়কের যান চলাচল বেড়ে গেছে। পরিকল্পনা কমিশন সূত্র বলছে, মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের টোলের কারণে যাত্রাবাড়ী-ডেমরা সড়কাংশে যান চলাচল অনেকাংশে বেড়েছে। এ ছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু বাণিজ্যিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান আশপাশে গড়ে ওঠায় যান চলাচলের পরিমাণ অনেক বেড়েছে। কাঁচপুর সেতুর যানজট এড়ানোর জন্য সিলেট থেকে আগত যানবাহন তারাব-যাত্রাবাড়ী সড়কাংশ ব্যবহার করছে।

ঢাকা-ডেমরা সড়কের দৈর্ঘ্য ১০ কিলোমিটার এবং বিদ্যমান প্রস্থ ৭ দশমিক ৩ মিটার। প্রকল্পের আওতায় এই সড়কটি ১৫ দশমিক ৬০ মিটার প্রস্থে চার লেন সড়ক হিসেবে নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া ধীরগতির যান চলাচলের জন্য মূল চার লেন সড়কের উভয় পাশে দুই লেনের আলাদা চলাচলের রাস্তা থাকবে। সড়কটির নির্মাণকাজ শেষ হলে দুঘর্টনা কমে আসবে। একই সঙ্গে যানজট কমে আসবে।

এদিকে গতকালের একনেক সভায় যাত্রাবাড়ী-ডেমরা মহাসড়ক চার লেনে উন্নতীকরণসহ আটটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে একনেক। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে খরচ হবে এক হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা। পুরো টাকাই রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে আসবে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর গতকাল ছিল প্রথম একনেক বৈঠক।

অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ৩৪৫ কোটি টাকা ব্যয়ে পিপিআর রোগ নির্মূল এবং খুরারোগ নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প, ২০৬ কোটি টাকা ব্যয়ে দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে পুষ্টিসমৃদ্ধ উচ্চমূল্যের অপ্রধান শস্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ প্রকল্প, ৩৫৩ কোটি টাকা ব্যয়ে বিদ্যমান সাতটি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের উন্নয়ন ও নতুন ছয়টি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্প, ১৪৭ কোটি টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের জাদুঘর ভবন সম্প্রসারণ এবং অন্যান্য ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্প, ১০২ কোটি টাকা ব্যয়ে গোপালগঞ্জ বিসিক শিল্পনগরী সম্প্রসারণ প্রকল্প।



মন্তব্য