kalerkantho


রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্যসেবা

৪১০ কোটি টাকা দেবে বিশ্বব্যাংক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



মিয়ানমার থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে এসে বাংলাদেশের টেকনাফ ও উখিয়ায় আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা মুসলমানদের স্বাস্থ্যসেবা দিতে পাঁচ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দেবে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৪১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে চার কোটি ১৭ লাখ ডলার পাওয়া যাবে অনুদান হিসেবে। বাকি ৮৩ লাখ ডলার পাওয়া যাবে ঋণ হিসেবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সরকার ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যে একটি চুক্তি সই হয়। চুক্তিতে বাংলাদেশের পক্ষে সই করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সিনিয়র সচিব কাজী শফিকুল আযম। আর বিশ্বব্যাংকের পক্ষে সংস্থাটির আবাসিক প্রধান চিমিয়াও ফান সই করেন। এ সময় দুই পক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বিশ্বব্যাংকের এই টাকা দিয়ে আশ্রয় শিবিরে অংশ নেওয়া রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং পরিবার পরিকল্পনাবিষয়ক সেবা দেওয়া হবে।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে ইআরডি সচিব জানান, ‘স্বাস্থ্য খাতে সহযোগিতা’ শিরোনামের প্রকল্পের আওতায় এই টাকা খরচ হবে। যেটি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।’

তিনি বলেন, মিয়ানমারে সহিংসতায় সেখান থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ সরকার আশ্রয় দিয়েছে। তাদের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা বেশি। বিশাল এই জনগোষ্ঠীর জন্য বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতাকে স্বাগত জানান তিনি। কাজী সফিকুল আযম বলেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মানবিক কারণে বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়েছে। তাদের এখন সবচেয়ে বেশি বেশি প্রয়োজন স্বাস্থ্যসেবার। তিনি বলেন, বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে তাদের স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার জন্য বিশ্বব্যাংক আঞ্চলিক শরণার্থী তহবিলের ৪৮ কোটি ডলার থেকে পাঁচ কোটি ডলার দিচ্ছে। তিনি উন্নয়ন সহযোগীদের উদ্দেশ বলেন, ‘আমরা আশা করব, উন্নয়ন সহযোগীরা তাদের দেওয়া প্রতিশ্রুতির অর্থ ছাড়ে গতি বাড়াবে।’

বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রধান চিমিয়াও ফান বলেন, বিশ্বব্যাংকের এই অনুদান সরকারের পরিকল্পনা ও রোহিঙ্গাদের জন্য স্বাস্থ্য, পুষ্টিসেবা প্রকল্পে সহায়তা করবে। বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য বিশ্বব্যাংকের সিরিজের প্রথম কোনো অর্থায়ন।



মন্তব্য