kalerkantho


চুয়াডাঙ্গায় বিষমুক্ত বেগুন চাষে এলো নেট পদ্ধতি

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গায় বিষমুক্ত বেগুন চাষে এলো নেট পদ্ধতি

সুবদিয়া গ্রামের ৪০ জন কিষানিকে নেট দিয়ে ঘেরা স্থানে বেগুনের চারা রোপণের প্রদর্শনী ক্ষেত দেখানো হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রতিদিন বিষ দিতে হয় যেসব সবজিতে তার একটি হলো বেগুন। এ কারণে বেগুন খেতে অনেকে ভয় পায়। অনেকে আবার পোকায় আক্রান্ত বেগুন খুঁজে ফেরে। তবে আশার কথা হলো, বেগুন চাষের নতুন পদ্ধতি চালু করা হচ্ছে তাতে ভবিষ্যতে মানুষ নিশ্চিন্তে বেগুন কিনতে পারবে। একসময় ‘বেগুন মানে বিষ’ এ কথাটি মানুষ পুরোপুরি ভুলে যাবে।

বেগুন চাষের নতুন পদ্ধতি উপলক্ষে সম্প্রতি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে কৃষি কর্মকর্তারা এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সুবদিয়া গ্রামের ৪০ জন কিষানিকে নেট দিয়ে ঘেরা স্থানে বেগুনের চারা রোপণের প্রদর্শনী ক্ষেত দেখানো হয়। ওয়ালমার্ট ফাউন্ডেশনের সবজি উৎপাদনশীলতা উন্নয়ন ত্বরান্বিতকরণ (এভিপিআই) প্রকল্পের আওতায় বেসরকারি সংস্থা আন্তর্জাতিক সার উন্নয়ন কেন্দ্র (আইএফডিসি) নেটঘেরা স্থানে বেগুনের চারা রোপণ প্রদর্শনীর আয়োজন করে।

আয়োজকরা জানান, আইএফডিসির পরামর্শক্রমে সুবদিয়া গ্রামে কিষানি নাজমা খাতুন তাঁর বাড়ির পাশের কিছু জমি নেট দিয়ে ঘিরে তাতে বেগুনের চারা রোপণ করেছেন। কিছুদিন পর এই চারা একটু বড় হলে তা লাগানো হবে বেগুন চাষের জন্য নির্ধারিত নেটঘেরা ক্ষেতে। চারা তৈরি থেকে শুরু করে ক্ষেত থেকে বেগুন তুলে আনা পর্যন্ত পুরো সময়টা বেগুনগাছ থাকবে নেট দিয়ে ঘেরা। নেট থাকবে সাদা রঙের। আলোবাতাস যাওয়া আসাতে কোনো অসুবিধা হবে না।

ফলে, নেটঘেরা বেগুনের ক্ষেতে কোনোক্রমেই পোকার আক্রমণ হবে না। চারা রোপণের শুরু থেকে ক্ষেতের বেগুন তোলা পর্যন্ত কখনোই কোনো ধরনের বিষ প্রয়োগের প্রয়োজন হবে না। বেগুন হবে পুরোপুরি বিষমুক্ত। বিষের ব্যবহার না থাকার কারণে কৃষকের খরচ কমবে। ক্ষেতে ব্যবহৃত নেট কয়েক বছর ব্যবহার করা যাবে। এ জন্য নেট ব্যবহারের খরচও খুব বেশি পড়বে না। আশা করা যায়, এ পদ্ধতি একসময় সব কৃষক গ্রহণ করবে। তখন পুরোপুরি বিষমুক্ত বেগুন পাবে সবাই।

আয়োজকরা দাবি করেন, নেট দিয়ে ঘেরা থাকার কারণে বেগুনের চারা হবে সতেজ। মূল ক্ষেতে চারা রোপণ করার পরও তা নিরাপদ ও তরতাজা থাকবে। এ বিষয়টি কিষানিদের বোঝানোর জন্য নেটঘেরা জমির পাশে সমপরিমাণ জমিতেও একই সঙ্গে খোলা স্থানে বেগুনের চারা রোপণ করা হয়েছে।



মন্তব্য