kalerkantho


বিআইবিএমের সেমিনারে উদ্বেগ

বিদেশি ঋণের সঙ্গে বাড়ছে অপব্যবহার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



বিদেশি ঋণের সঙ্গে বেড়েছে এর অপব্যবহার। এ কারণে ব্যাংক খাতে উদ্বেগ বেড়েছে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৩ সালে বেসরকারি খাতে ৪০০ কোটি ডলার বিদেশি বাণিজ্যিক ঋণ এসেছিল। ২০১৭ সালে তা বেড়ে প্রায় এক হাজার ১৫০ কোটি ডলার হয়েছে। বিদেশি ঋণের প্রবৃদ্ধি প্রায় ২৪ শতাংশ। বেসরকারি খাতে বিদেশি বাণিজ্যিক ঋণ বৈদেশিক মুদ্রার ওপর ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুরে বিআইবিএম অডিটরিয়ামে ‘দেশের বেসরকারি খাতে বিদেশি ঋণ : একটি ব্যবচ্ছেদ’ শীর্ষক জাতীয় সেমিনারে উপস্থাপিত গবেষণা প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়।

মূল প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিদেশি বাণিজ্যিক ঋণের ১১ ধরণের উদ্বিগ্নতা রয়েছে। এর মধ্যে ফরেন কারেন্সি রিস্ক, মোরাল হ্যাজার্ড, কস্ট অব বোরোয়িং, ফরেন কারেন্সি বোরোয়িং লোকাল বিজনেস অর্গানাইজেশন, লোন ইউটিলাইজেশন, পলিসি আনসার্টিইনিটি, পলিসি সাপোর্ট, ভেরিফিকেশন অব অ্যাপ্লিকেশন, বোরোয়িং ফ্রম অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট এবং ঋণ অনুমোদনে দীর্ঘসূত্রতা। এতে আরো বলা হয়েছে, বর্তমানে সবচেয়ে বেশি প্রায় ২৪ শতাংশ বিদেশি ঋণ পোশাক খাতে। এরপর বিদ্যুতে ২১ শতাংশ, সোয়েটারে ১৬ শতাংশ, ডায়িং ও নিট গার্মেন্টে ১২ শতাংশ, টেক্সটাইলে ১১ শতাংশ, প্লাস্টিকসে ৫ শতাংশ, সেবায় ৩ শতাংশ এবং ওষুধে ২ শতাংশ।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এবং বিআইবিএম নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, রপ্তানিকারকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিদেশি ঋণ নেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়। তবে প্রথম দিকে এ ঋণের কিছু অপব্যবহার হয়েছিল। এখন এ ধরনের ঘটনা ঘটে না। পুরো বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক কঠোরভাবে নজরদারি করছে। তিনি বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ বেসরকারি খাতে বিদেশি বাণিজ্যিক ঋণ নিয়ে বিপাকে পড়েছে। বাংলাদেশে এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি না হলেও বিষয়টি সতর্কতার সঙ্গে দেখতে হবে। বিআইবিএমের মুজাফফর আহমেদ চেয়ার প্রফেসর এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. বরকত-এ-খোদা বলেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বর্তমানে বিদেশি বাণিজ্যিক ঋণের প্রয়োজন রয়েছে। তবে বিদেশি বাণিজ্যিক ঋণ যেন ভিন্ন খাতে ব্যবহার না হয়, সেদিকে বিশেষ নজরদারি করতে হবে। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককেই ব্যবস্থা নিতে হবে।

বিআইবিএমের মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমদ চৌধুরী বলেন, বন্ড মার্কেট ডেভেলপ করলে তারল্য সংকট থাকবে না। তবে এ জন্য সরকারি বন্ড মার্কেট ডেভেলপ করা জরুরি। পরিকল্পিতভাবে উদ্যোগ নিলে ব্যাংক খাতে কোনো তারল্য সংকট থাকবে না।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং বিডার নির্বাহী কমিটির সদস্য নাভাস চন্দ্র মণ্ডল বলেন, ২০০৯ সালের দিকে ব্যাংকে উচ্চ সুদের কারণে একটি সংকট সৃষ্টি হয়। ব্যাংকঋণ নিয়ে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানিতে অনেক বেশি খরচ পড়ে যাচ্ছে। আরো কয়েকটি কারণে সরকার বিদেশি ঋণের অনুমোদন দেয়। কিন্তু ঋণগ্রহীতাদের ঋণের অর্থ সঠিক বিনিয়োগ করতে হবে।

সোনালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং বিআইবিএমের সাবেক চেয়ার প্রফেসর এস এ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ রাষ্ট্র হিসেবে কোনো সংস্থার এক টাকাও খেলাপি না। অথচ ব্যাংক খাতে বড় অঙ্কের অর্থ ঋণখেলাপি হয়ে পড়েছে। এটা মানা যায় না। ব্যাংকে নগদ আদায় অনেক কমে গেছে। এটি ভাবনার বিষয়। কেন এটা হচ্ছে, তা খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নিতে হবে।

পূবালী ব্যাংকের সাবেক এমডি এবং বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক হেলাল আহমদ চৌধুরী বলেন, বিদেশি ঋণ নিয়ে খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের একটি অংশ তাদের স্থানীয় ঋণও পরিশোধ করতে দেখা গেছে। এমন ঘটনা যাতে ভবিষ্যতে না ঘটে, সেদিকে নজর রাখতে হবে। ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব-উল-আলম বলেন, বিদেশি ঋণের ব্যবহার বিষয়ে সবার মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সব পক্ষকে সতর্ক থাকতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক নির্বাহী পরিচালক এবং বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক ইয়াছিন আলী বলেন, বিদেশি ঋণের কোনো অপব্যবহার যেন না হয় সে বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংককে নজরদারি করতে হবে। এটি না করতে পারলে ঝুঁকির মুখে পড়বে অর্থনীতি।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিআইবিএমের পরিচালক (গবেষণা উন্নয়ন ও পরামর্শ) ড. প্রশান্ত কুমার ব্যানার্জি।



মন্তব্য