kalerkantho


প্লাস্টিক পণ্য নকলকারীদের প্রতিরোধের আহ্বান

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



প্লাস্টিক অ্যাসোসিয়েশন একটি সুশৃঙ্খল নিয়মনীতির মাধ্যমে এ খাতকে নেতৃত্ব দিচ্ছে। এখানে প্লাস্টিক পণ্য পেটেন্ট রেজিস্ট্রেশন করানো হয়। নকল প্রতিরোধে একটি কমিটিও কাজ করে যাচ্ছে। তার পরও কিছুসংখ্যক লোক কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করতে তত্পর রয়েছে। তারা পণ্য নকল করে বাজারে ছাড়ছে, এতে বাজারে কিছুটা অস্থিরতা তৈরি হয়।

সম্প্রতি ‘নকল প্রতিরোধ ও প্লাস্টিক সেক্টরের উন্নয়ন’ শীর্ষক এক আলোচনার আয়োজন করেছে বিপিজিএমইএর ক্রোকারিজ ও টয়েজ স্ট্যান্ডিং কমিটি। সভায় প্লাস্টিক খাতের নেতারা এসব কথা বলেন। তাঁরা নকলকারীদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে নকল প্রতিরোধে পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সহায়তা কামনা করেন। তাঁরা বলেন, নকল প্রতিরোধ করা গেলে এ খাতের উন্নয়ন আরো দ্রুত হবে।

বিপিজিএমইএর সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন এতে সভাপতিত্ব করেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন পুলিশের এডিসি কামাল হোসেন, এসি, লালবাগ মো. সালাহউদ্দিন, এসি, চকবাজার সিরাজুল ইসলাম। এ ছাড়া ব্যবসায়ীদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিপিজিএমইএ সাবেক সভাপতি এ এস এম কামাল উদ্দিন, মো. ইউসুফ আশরাফ, উপদেষ্টা সিরাজউদ্দিন মালিক, এফবিসিসিআই পরিচালক হাফেজ হারুন।

মো. জসিম উদ্দিন বলেন, প্লাস্টিক খাতে প্রায় ৫ হাজার শিল্প-কারখানা গড়ে উঠেছে। ১২ লাখ লোক এর ওপর নির্ভরশীল। প্লাস্টিকের ব্যবহার বাড়ছে ক্রমাগতভাবে। বর্তমানে আমরা মাথাপিছু ৬-৭ কেজির মতো ব্যবহার করছি। আগামী ২০৩০ সালে এর ব্যবহার বেড়ে ৫০ কেজিতে পৌঁছাতে পারে। তিনি বলেন, প্লাস্টিক খাতে ভবিষ্যতে পণ্য নকল করার কোনো উপায় থাকবে না। এমনকি ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি অ্যাক্টের অধীনে কোনো বিদেশি পণ্যও নকল করা যাবে না।



মন্তব্য