kalerkantho

এক মাসেই রেমিট্যান্স কমল ৫৫ কোটি ডলার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চলতি বছরের জানুয়ারিতে রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়ে বড় উল্লম্ফন ঘটে, যা অন্য সময়ের সব রেকর্ড ভেঙে দেয়। কিন্তু ফেব্রুয়ারিতে এসে তা কমে যায়। এক মাসের ব্যবধানে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমেছে প্রায় ৫৫ কোটি ৩৪ লাখ ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১০৩ কোটি ৭৪ লাখ টাকা, যা জানুয়ারির চেয়ে ৫৫ কোটি ৩৪ লাখ ডলার কম। জানুয়ারিতে এসেছে ১৫৯ কোটি আট লাখ ডলার।

কঠোর নজরদারিতে হুন্ডি বা অন্যান্য অবৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স আসা কমেছে। বৈধভাবে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স আসা বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, গত ১৬ মাসের মধ্যে সবচেয়ে কম রেমিট্যান্স এসেছে ফেব্রুয়ারিতে। সর্বশেষ ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মাত্র ৮৫ কোটি ৬৮ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। এ সময়ের পর ক্রমেই রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে। জানুয়ারিতে সেনাবাহিনীর সদস্যদের মিশন থেকে ফিরে আসায় রেমিট্যান্স প্রবাহে উল্লম্ফন সৃষ্টি হয়। কিন্তু এবার সে ধরনের কোনো রেমিট্যান্স আসেনি।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, রেমিট্যান্স প্রবাহ ক্রমেই ঊর্ধ্বমুখী অবস্থায় রয়েছে। গত জুলাই মাসে রেমিট্যান্স এসেছে ১৩১ কোটি ৮১ লাখ ডলার, আর আগস্ট মাসে ১৪১ কোটি ১০ লাখ ডলার। সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স প্রবাহের এই ধারা নিম্নমুখী হয় অর্থাৎ ১১৩ কোটি ৯৬ লাখ ডলার রেমিট্যান্স আসে। কিন্তু পরবর্তী চার মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়া ও কমার মধ্যেই থাকে। অক্টোবরে আসে ১২৩ কোটি ৯১ লাখ ডলার, নভেম্বরে আসে ১১৮ কোটি চার লাখ ডলার, ডিসেম্বরে আসে ১২০ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। আর জানুয়ারিতে এসেছে ১৫৯ কোটি আট লাখ ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘জানুয়ারিতে রেমিট্যান্স প্রবাহ অন্য সময়ের চেয়ে রেকর্ড সৃষ্টি করে। ওই মাসে সেনাবাহিনীর একটি টিম মিশন শেষে দেশে ফিরতে উল্লম্ফন সৃষ্টি হয়। ফেব্রুয়ারিতে স্বাভাবিক নিয়মে রেমিট্যান্স আসা কিছুটা কম হয়েছে।’

 

মন্তব্য