kalerkantho

হুয়াওয়েকে ইইউর ৫-জিতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র

♦ নরওয়ের গোয়েন্দা সংস্থার সতর্কতা
♦ তথ্য পাচার হবে না এমন নিশ্চয়তা চায় জার্মানি

বাণিজ্য ডেস্ক   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হুয়াওয়েকে ইইউর ৫-জিতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র

পরবর্তী প্রজন্মের যোগাযোগব্যবস্থা ফাইভজি নেটওয়ার্ক তৈরিতে হুয়াওয়ের সরঞ্জাম না কেনার জন্য ইউরোপীয় মিত্রদের বোঝাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। নাম প্রকাশ না করার শর্তে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রচারণায় আমরা ইউরোপীয় মিত্রদের অগ্রাধিকারে রেখেছি। তাদের বোঝাচ্ছি যাতে চীনা এ কম্পানিকে ফাইভজি নেটওয়ার্কে যুক্ত না করে।’

গত মঙ্গলবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় কমিশন ও বেলজিয়ান সরকারের সঙ্গে বৈঠকের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা অন্য ইউরোপীয় দেশগুলোকে একটি মেসেজ দিয়েছেন। আর তা হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এ টেলিকম কম্পানির সরঞ্জাম জাতীয় নিরাপত্তায় ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা তাদের বলেছি ফাইভজি নেটওয়ার্ক তৈরির ক্ষেত্রে আপনাদের অবশ্যই সতর্ক হতে হবে এবং আস্থা রাখা যায় না এমন কম্পানির সঙ্গে চুক্তি করা যাবে না। যেমন চীনা কম্পানিগুলো।’

তিনি বলেন, ‘হুয়াওয়ে বা জেডটিইর মতো অবিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠানকে ফাইভজিতে কাজে লাগানো হলে জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে অনেক সমস্যাই তৈরি হবে। যেহেতু ইউরোপের প্রায় সব দেশের সঙ্গেই আমাদের সামরিক মিত্রতা রয়েছে, ফলে ইউরোপে চীনা কম্পানির উপস্থিতি আমাদের জন্যও নিরাপত্তার ইস্যু।’ এর আগে জাপানে এক আলোচনায় জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল বলেছেন, ‘চীনের হুয়াওয়ে টেকনোলজিস তাদের ডাটা চীনের কাছে হস্তান্তর করবে না এমন নিশ্চয়তা আমরা হুয়াওয়ের কাছে চাই। তা না হলে আমরা এ কম্পানিকে আমাদের ফাইভজি নেটওয়ার্কে ব্যবহার করতে পারব না।’ তিনি বলেন, ‘এটি আমাদের নিরাপত্তা ইস্যু, তাই এ ব্যাপারে চীন সরকারের সঙ্গেও কথা বলা উচিত।’

এদিকে নরওয়ের নিরাপত্তা সংস্থা পিএসটি গত সোমবার হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে একটি সতর্কবার্তা জারি করেছে। জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশকালে পিএসটি প্রধান বেনেডিক্টে বিযর্নল্যান্ড বলেন, ‘হুয়াওয়ের ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে চীন সরকারের সঙ্গে তাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের কারণে।’ রয়টার্স, এবিএস সিবিএন নিউজ।

মন্তব্য