kalerkantho


আড়াই হাজার কর্মী নেবে টিএমএসএস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ আগস্ট, ২০১৮ ১১:০৪



আড়াই হাজার কর্মী নেবে টিএমএসএস

ক্ষুদ্রঋণ ও অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দুই হাজার ৫৬১ জনকে নিয়োগ দেবে ঠেংগামারা মহিলা সবুজ সংস্থা (টিএমএসএস)। আবেদন করা যাবে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত। বিস্তারিত জানাচ্ছেন ফরহাদ হোসেন। ছবি তুলেছেন ইয়ামিন মজুমদার
 
সহকারী পরিচালক (এমএসএমই, সার্বিক ও মামলা মনিটরিং) পদে ৭ জন, জোনাল ম্যানেজার (মাইক্রোফিন্যান্স) পদে ১০ জন, ক্যাপাসিটি ডেভেলপমেন্ট অফিসার ৭ জন, এরিয়া ম্যানেজার (মাইক্রোফিন্যান্স) ৪০ জন, এরিয়া ম্যানেজার (এমএসএমই) ৫০ জন, মনিটরিং কর্মকর্তা ২৫ জন, মানবসম্পদ কর্মকর্তা ১৫ জন, মামলা কর্মকর্তা ১৫ জন, সিনিয়র ব্রাঞ্চ ম্যানেজার (হিসাব) ২০ জন, ব্রাঞ্চ ম্যানেজার (মাইক্রোফিন্যান্স) ২৫০ জন, লোন অফিসার ৩৫০ জন, শাখা হিসাবরক্ষক-কাম-কম্পিউটার অপারেটর ১৫০ জন, সিনিয়র সুপারভাইজার (মাইক্রোফিন্যান্স) ৩৬৫ জন, ফিল্ড সুপারভাইজার ১২৫০ জন, উদ্যোগ উন্নয়ন কর্মকর্তা ৫ জন ও প্রগ্রাম অফিসার নেওয়া হবে ২ জন। ১২ আগস্ট প্রথম আলো ও দৈনিক করতোয়ায় প্রকাশ করা হয়েছে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি। বিজ্ঞপ্তিটি পাওয়া যাবে টিএমএসএসের ওয়েবসাইটেও (http://www.tmss-bd.org)।

আবেদনের যোগ্যতা    
সহকারী পরিচালক (এমএসএমই ও সার্বিক) পদে আবেদনের যোগ্যতা স্নাতকোত্তর। এমএসএমই পদে ৫ বছর ও সার্বিক পদে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সহকারী পরিচালক (মামলা মনিটরিং) পদে আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর হতে হবে। জোনাল ম্যানেজার (মাইক্রোফিন্যান্স) ও ক্যাপাসিটি ডেভেলপমেন্ট অফিসার পদে আবেদনের যোগ্যতা স্নাতকোত্তর ও ৫ বছর কাজের অভিজ্ঞতা। এরিয়া ম্যানেজার (মাইক্রোফিন্যান্স ও এমএসএমই) ও মনিটরিং কর্মকর্তা পদে আবেদনের যোগ্যতা তিন বছরের অভিজ্ঞতাসহ স্নাতকোত্তর। মানবসম্পদ কর্মকর্তা পদে এইচআর বিষয়ে বিবিএ বা এমবিএ থাকলেই আবেদন করা যাবে। মামলা কর্মকর্তা হতে চাইলে স্নাতকোত্তর ও এলএলবি ডিগ্রি থাকতে হবে। সিনিয়র ব্রাঞ্চ ম্যানেজার (হিসাব) পদে আবেদনের যোগ্যতা তিন বছরের অভিজ্ঞতাসহ হিসাববিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর। ব্রাঞ্চ ম্যানেজার (মাইক্রোফিন্যান্স) ও লোন অফিসার পদে চাওয়া হয়েছে তিন বছরের অভিজ্ঞতাসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রি। বাণিজ্যে স্নাতক হলে আবেদন করা যাবে শাখা হিসাবরক্ষক-কাম-কম্পিউটার অপারেটর (মাইক্রোফিন্যান্স) পদে। সিনিয়র সুপারভাইজার (মাইক্রোফিন্যান্স) পদে আবেদনের যোগ্যতা স্নাতকোত্তর। থাকতে হবে তিন বছরের অভিজ্ঞতা। স্নাতক হলেই আবেদন করা যাবে ফিল্ড সুপারভাইজার ও প্রগ্রাম অফিসার পদে। উদ্যোগ উন্নয়ন কর্মকর্তা পদে থাকতে হবে কৃষি বিষয়ে ডিপ্লোমা।

আবেদন যেভাবে
আবেদন করতে হবে পরিচালক (এইচআরএম অ্যান্ড অ্যাডমিন), টিএমএসএস বরাবর। আবেদনপত্রের সঙ্গে তিন কপি পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত রঙিন ছবি, সব শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, অভিজ্ঞতার সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, মোবাইল নম্বর, ই-মেইল ঠিকানাসহ পূর্ণাঙ্গ জীবনবৃত্তান্ত যুক্ত করতে হবে। নির্বাচনী পরীক্ষার ফি বাবদ ৩০০ টাকা এবং মানি রসিদ ১০ টাকা সংস্থার যেকোনো শাখা থেকে বা তফসিলভুক্ত যেকোনো ব্যাংক থেকে টিএমএসএস শিরোনামে পে-অর্ডার বা ব্যাংক ড্রাফটও আবেদনের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে। খামের ওপর পদের নাম উল্লেখ করতে হবে। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তির ক্রমিক নম্বর ১-১৫ পর্যন্ত পদের প্রার্থীরা পছন্দের যে এলাকায় কাজ করতে চান সেই এলাকার কার্যালয়ে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে। টিএমএসএস, প্রধান কার্যালয় : ৬৩১/৫ পশ্চিম কাজিপাড়া, মিরপুর-১০, ঢাকা-১২১৬। টিএমএসএস ফাউন্ডেশন অফিস : ঠেংগামারা, রংপুর রোড, বগুড়া। চট্টগ্রাম ডিভিশনাল অফিস : ৫৪৯ পিটি রোড, আব্দুল আলীর হাট, পাহাড়তলী, চট্টগ্রাম। সিলেট ডিভিশনাল অফিস : শুভেচ্ছা কমিউনিটি সেন্টার সংলগ্ন, বদিকোনা (চণ্ডীপুর), দক্ষিণ সুরমা, সিলেট। খুলনা ডিভিশনাল অফিস : বাড়ি নম্বর-৪৩২, রোড নম্বর-২২, নিরালা আবাসিক এলাকা, খুলনা। রাজশাহী ডিভিশনাল হেড অফিস : তালাইমারী (শহীদ মিনার), কাজলা, রাজশাহী। রংপুর ডিভিশনাল হেড অফিস : ঘাঘটপাড়া, আর কে রোড, রংপুর সদর, রংপুর। বরিশাল জোন অফিস : প্রতীক্ষা, সি অ্যান্ড বি রোড, বৈদ্যপাড়া, বরিশাল। নাটোর ডিভিশনাল হেড অফিস : বড় হরিশপুর, নতুন বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন, নাটোর সদর, নাটোর। দিনাজপুর ডিভিশনাল হেড অফিস : নিমনগর উপশহর, ব্লক-০১, প্লট-৫৯, দিনাজপুর সদর, দিনাজপুর। উদ্যোক্তা উন্নয়ন কর্মকর্তা পদের আবেদন পাঠানোর ঠিকানা : মৌলভীবাজার জোনাল কার্যালয়, ব্রিকফিল্ড রোড, রঘুনন্দপুর, মৌলভীবাজার। প্রগ্রাম অফিসার পদের আবেদন পাঠানো যাবে টিএমএসএস ফাউন্ডেশন অফিস এবং মৌলভীবাজার কার্যালয়ের ঠিকানায়। বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে বিজ্ঞপ্তিতে।

পরীক্ষা পদ্ধতি
টিএমএসএসের পরিচালক (এইচআরএম অ্যান্ড অ্যাডমিন) শাহাজাদী বেগম বলেন, ‘পদ ও যোগ্যতা অনুসারে আবেদন যাচাই-বাছাই করে যোগ্যদের মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে নির্বাচনী পরীক্ষার তারিখ, সময় ও স্থান। নির্বাচনী পরীক্ষার দিন শিক্ষাগত যোগ্যতার মূল সনদ ও অভিজ্ঞতার সনদ সঙ্গে রাখতে হবে। পদ অনুসারে নেওয়া হবে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা। সহকারী পরিচালক থেকে ব্রাঞ্চ ম্যানেজার ও শাখা হিসাবরক্ষক-কাম-কম্পিউটার অপারেটর (মাইক্রোফিন্যান্স) পদে ৫০ নম্বরের লিখিত এবং ৫০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হবে। লোন অফিসার, সিনিয়র সুপারভাইজার, ফিল্ড সুপারভাইজারসহ অন্যান্য পদের জন্য শুধু ৫০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয়। লিখিত পরীক্ষায় ঋণ কার্যক্রম, এমএফআই টার্মস, উন্নয়ন কার্যক্রম, এনজিও নীতিমালা, ঋণ বিতরণ, পরিচালন, আদায়, ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়ে থাকে। সব পদের মৌখিক পরীক্ষায় ঋণ কার্যক্রম, সাধারণ জ্ঞান, হিসাবসংক্রান্ত প্রাথমিক বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়ে থাকে।

পরীক্ষার প্রস্তুতি
টিএমএসএস এইচআরএম বিভাগের সহকারী পরিচালক মো. আবদুল্লাহ আল ফারাবী বলেন, ‘টিএমএসএস সব সময় দক্ষ কর্মী নিয়োগ দিয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে যোগ্য ও অভিজ্ঞদের নিয়োগে বরাবরই প্রাধান্য দেওয়া হয়। বেশ কিছু পদে নতুনদের সুযোগ দেওয়া হয়। বাছাইয়ে দেখা হয় শিক্ষাগত যোগ্যতা, কাজের মানসিকতা, আগ্রহ ইত্যাদি বিষয়।’

লিখিত পরীক্ষায় সব পদেই এনজিও সম্পর্কিত বিষয়ে নানা ধরনের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন করা হয়ে থাকে। তবে ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে কাজ করতে হবে এমন পদগুলোতে ঋণ পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনার বিষয়ে প্রশ্ন বেশি আসে। টিএমএসএস, বগুড়া আশেকপুর শাখার ব্যবস্থাপক মো. আবদুস সোবহান জানান, ঋণ কার্যক্রম বিষয়ে ৫০ নম্বরের লিখিত রচনামূলক প্রশ্ন করা হয়। সময় এক ঘণ্টা। পরীক্ষায় ভালো করতে হলে ঋণ কার্যক্রমের বিষয়গুলোতে দক্ষতা থাকতে হবে। সিনিয়র লেভেলের পদগুলোর জন্য ঋণ কার্যক্রমের সামগ্রিক বিষয়গুলোর ওপর ভালো দখল রাখতে হবে।

টিএমএসএস, বগুড়ার গোহাইল শাখার ফিল্ড সুপারভাইজার মাহফুজুর রহমান জানান, সিনিয়র ফিল্ড সুপারভাইজার, ফিল্ড সুপারভাইজার বা এ ধরনের পদে শুধু ভাইভা নেওয়া হয়। ভাইভা বোর্ডে সাধারণ জ্ঞান, ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের বিভিন্ন বিষয়, যেমন ঋণ বিতরণ, সঞ্চয়, সমিতি গঠন ইত্যাদি বিষয়ে প্রাথমিক পর্যায়ের প্রশ্ন করা হয়। প্রতিষ্ঠান, পড়ার বিষয় সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে যেতে হবে। জানতে চাওয়া হতে পারে এ পেশায় কেন আসতে চান? জানতে চাওয়া হতে পারে সমসাময়িক ঘটনা সম্পর্কে।

প্রশিক্ষণ
শাহাজাদী বেগম জানান, শাখা ব্যবস্থাপক, সুপারভাইজার বা এ ধরনের পদে চূড়ান্ত বাছাইয়ের পর দেওয়া হবে পাঁচ দিনের প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণে প্রেজেন্টেশন, ফিল্ড ভিজিট ও ক্লাসের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে সংস্থার কার্যক্রমের যাবতীয় বিষয় হাতে-কলমে শেখানো হবে। সে জন্য প্রার্থীদের নামমাত্র ফি জমা দিতে হবে। থাকা ও প্রশিক্ষণের খরচ বহন করবে কর্তৃপক্ষ।

বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুবিধা
উদ্যোগ উন্নয়ন কর্মকর্তা ও প্রগ্রাম অফিসার ছাড়া অন্যান্য পদে ছয় মাস শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করতে হবে। শিক্ষানবিশকাল শেষে সংস্থার স্থায়ী বেতনকাঠামো অনুসারে বেতন দেওয়া হবে। মাসিক বেতন ছাড়া উত্সবভাতা, জীবন বীমা ভাতা, সিটি করপোরেশনের ক্ষেত্রে সিটিভাতা দেওয়া হবে। এ ছাড়া ঋণ কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মীরা লোড অ্যালাউন্স, ক্রেডিট অ্যালাউন্স, হাই পারফরম্যান্স বোনাসসহ বেশ কিছু সুবিধা পাওয়া যাবে। আরও তথ্য পাওয়া যাবে ওয়েবসাইটে (http://www.tmss-bd.org)| 



মন্তব্য