kalerkantho

horror-club-banner

হরর ক্লাব : হোয়ালি বাড়ির সেই ভূত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ মার্চ, ২০১৭ ১৬:১৩



হরর ক্লাব : হোয়ালি বাড়ির সেই ভূত

বিশ্বের নানা দেশে বিভিন্ন সময় অনেকের ক্যামেরায় উঠে এসেছে ভূতের প্রমাণ, যার কোনো ব্যাখ্যা নেই। এসব ছবির সত্যাসত্য নিয়ে বিতর্ক থাকলেও বহু মানুষেরই শিরদাঁড়া দিয়ে শীতল স্রোত বয়ে যায় এ ছবি দেখে।

এ লেখায় তুলে ধরা হলো তেমন এক প্রমাণ। ধারাবাহিকভাবে এ ধরনের বেশ কয়েকটি ছবি প্রকাশিত হচ্ছে কালের কণ্ঠে। আজ পাচ্ছেন তার ১৪তম পর্ব।
হোয়ালি বাড়ির সেই ভূত
ক্যালিফোর্নিয়ার প্রশান্ত মহাসাগরীয় তীরবর্তী অঞ্চলের স্যান ডিয়াগো শহরের ঘটনা এটি। সে শহরের একটি নিরিবিলি স্থানে বাস করত হোয়ালি পরিবার। তবে এ পরিবারের সব সদস্যই হঠাৎ অজ্ঞাত কারণে মারা যায়।
সবাই মারা যাওয়ার পর তাদের বাড়িটিতে আর কেউ বসবাস করেনি। তবে বসবাস করেনি বললে ভুল হবে। কারণ অনেকেই পরবর্তীতে তাদের বাড়িটিতে থাকার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু অদ্ভুত কারণে সেখানে বাস করাতো দূরের কথা কিছুক্ষণ অবস্থান করতেও রক্ত হীম হয়ে আসত।
কারণ বাড়িটিতে কিছুক্ষণ থাকলেই শুরু হয়ে যেত ছোট-বড় নানা আকৃতির অদ্ভুত অবয়বের আনাগোনা। তাদের মধ্যে এক নারীর চেহারা অনেকেই স্পষ্ট দেখেছেন। সে নারীকে বলা হত ম্যারিওন রেনল্ডস। যিনি থমাস হোয়ালির নাতি ছিলেন। জানা যায়, তাকে বিষপ্রয়োগে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু কে তাকে হত্যা করেছে, সে বিষয়ে কিছুই জানা যায় না।
আর এ বাড়িতে এরপর যে বা যারাই গিয়েছে, তাদের সবারই কমবেশি এ ধরনের কয়েকজন অশরীরির মুখোমুখি হতে হয়েছে। যেন তারা বলতে চাইত তাদের প্রতি সেই অবিচারের কথা। অনেকে আবার জানালার বাইরে থেকে দেখত সেই অশরীরিদের। এ ধরনের এক পরিস্থিতিতে একবার একজন ব্যক্তি ছবিটি তুলেছিলেন। সে ছবিতে দেখা যায় জানালার বাইরে থেকে তাকানো একটি মুখ। যদিও সে সময় বাইরে থেকে কোনো মানুষ তাকায়নি। কারণ সেখানে কোনো মানুষই ছিল না। আর এ অবস্থায় বাড়িটিতে কেউ থাকার কথা ভাবতেও পারেনি। এক পর্যায়ে বাড়িটি সম্পূর্ণ পরিত্যক্ত হয়ে যায়।


মন্তব্য