kalerkantho

শান্তিদিবস

ব্রত রায়

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



সকালবেলায় ঘুম ভেঙেছে দেখছি কলে পানি নাই

গ্যাসের চুলা জ্বলবে না তো! লাইনেই গ্যাস জানি - নাই!

কাজের বুয়া ডুব মেরেছে আজকে সে তো আসে নাই

বউয়ের দেখি মুখটা বেজার, আমায় দেখে হাসে নাই!

চা বানালো কষ্ট করে চায়ের ভেতর চিনি নাই

বলল আমি সপ্তাখানেক সদাইপাতি কিনি নাই!

 

যাদের কাছে পয়সা পাব তাদের কারো ফোনও নাই

পত্রিকাটা খুলে দেখি ভালো খবর কোনো নাই!

একটা দিনও এমন আছে কেউ কাউকে মারে নাই?

বোমার ঘায়ে মারছে মানুষ—নিরীহকেও ছাড়ে নাই!

বন্যা কোথাও - খাবারটাবার দুর্গতদের কাছে নাই

দুর্ঘটনায় কোথাও আবার একটা লোকও বাঁচে নাই!

 

ছয়তলাতে বাসা আমার লিফট তো আজও চলে নাই

বাসা ভাড়া নেওয়ার সময় বাড়ির মালিক বলে নাই!

পথের মোড়ে দাঁড়িয়ে আছি, বাসের কোনো দেখা নাই

অনেক মানুষ অপেক্ষাতে, মোটেই আমি একা নাই!

অফিস গিয়ে দেখছি আমি নষ্ট এসি, ফ্যানও নাই

জবাব পাব? এখন যদি প্রশ্ন করি, ‘কেন নাই?’

 

দু’মাস ধরে বন্ধ বেতন। পাই কবে তার ঠিকই নাই

পত্রিকাতে চাকরি করি আর তো কিছু শিখি নাই!

লাঞ্চে খেলাম রুটি-কলা আর তো কিছু জোটে নাই

তা-ও বাকিতে! দোকানদারের ওষ্ঠে হাসি ফোটে নাই!

আবার বাসে বাসায় ফিরি একটা সিটও খালি নাই

প্যাসেঞ্জারের মাথা গরম, কারো মুখে গালি নাই!

 

অল্প কিছু বাজার করি, সস্তা কিছু মেলে নাই

ভাগ্য ভালো আমার ঘরে দুই-তিনটা ছেলে নাই!

ফোন এসেছে—মায়ের অসুখ, সুস্থ হওয়ার আশা নাই

বলব কী আর! কান্না চাপি, বলার কোনো ভাষা নাই!

বাড়িওয়ালা বলল, ‘কোথাও এত্ত কম আর ভাড়া নাই,

জুন থেকে রেন্ট বাড়িয়ে দেবেন! আমার কোনো তাড়া নাই!’

 

ম্যারেজ ডে ওই আসছে! বউয়ের একটা ভালো শাড়ি নাই

‘দিচ্ছ এবার?’ বউয়ের কথায় জবাব দিতে পারি নাই!

রাতের খাওয়া সবজি-রুটি মুখে আমার স্বাদই নাই

পুরুষমানুষ বলেই আমি কান্না এলেও কাঁদি নাই!

শুয়ে আকাশপাতাল ভাবি আমার চোখে ঘুমই নাই

কোথায় দাঁড়াই তা-ও জানি না পায়ের নিচে ভূমি নাই!

 

একটা ফোটা শান্তি এখন আমার মনের কোনে নাই

আজকে ছিল শান্তিদিবস—সেই কথাটাও মনে নাই!

 



মন্তব্য