kalerkantho

রবিবার। ২২ জানুয়ারি ২০১৭ । ৯ মাঘ ১৪২৩। ২৩ রবিউস সানি ১৪৩৮।


ফেসবুক অফলাইন

২৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ফেসবুক অফলাইন

 

অনলাইনে মজার মজার গল্প, বুদ্ধিদীপ্ত কৌতুক, সাম্প্রতিক বিষয়-আশয় নিয়ে নিয়মিত স্টেটাস দিয়ে যাচ্ছেন পাঠক-লেখকরা। সেগুলোই সংগ্রহ করলেন গায়ত্রী মণ্ডল, এঁকেছেন কাওছার মাহমুদ

 

একটি উদ্ধার অভিযান : ফেস ছবি

ক্যান্টিনের শুঁটকি

শুঁটকির লোভ দেখিয়ে ক্যান্টিনের ছেলেটা কচুর লতির তরকারি ধরিয়ে দিল। খাওয়া শেষ হওয়ার পরও যখন শুঁটকির দেখা মিলল না, তখন বুঝলাম, আমারই ভুল হইছে, খেতে বসার সময় অণুবীক্ষণ যন্ত্র নিয়ে বসা উচিত ছিল। পাশ থেকে বন্ধু বলল, যন্ত্র আইনাও লাভ নাই। শুঁটকি তো আসলে স্প্রে করে দিছে!

মিকসেতু মিঠু

 

প্রেমিকা : অ্যাই, তুমি কি আমার জীবনের সূর্য হবে?

প্রেমিক : অবশ্যই জান!

প্রেমিকা : তাইলে আমার কাছ থেকে লক্ষ কোটি মাইল দূরে থাকবা।

সন্দীপন বসু

 

মাথার মাথা

দুনিয়া আজিব জাগা। আজিব তার আইটেম। মাথা আর চুলের ব্যাপারটাই দেখেন না। একটা মাথার অনেক চুল আবার প্রত্যেক চুলের একটা কইরা মাথা। কী আজিব, তাই না!

জগলুল হায়দার

 

কষ্টের কাজ

পৃথিবীর অন্যতম কষ্টের কাজ হলো প্রমীলা ক্রিকেটের আম্পায়ার হওয়া। বেচারাদের শুধু খেলার দিকেই মন দিতে হয়!

জান্নাতুল ফেরদৌস

 

রসিকতার ফল

ট্রেনে উঠে ভদ্রলোক দেখলেন এক বিশাল মোটা লোক পুরো সিটজুড়ে শুয়ে আছে। রসিকতা করে ভদ্রলোক বললেন, কী ভাই, বগিটা শুধু হাতিদের জন্য নাকি?

হাই তুলতে তুলতে মোটা ভদ্রলোকটি বললেন, না না, আসুন, গরু-ছাগল-গাধা সবাই যেতে পারবে।

চঞ্চল ভৌমিক

 

চলন্ত বাসে এক লোক দাঁতের মাজন বিক্রি করছিল, ‘এই যে হাশেম মিয়ার দাঁতের মাজন। এই মাজনে দাঁত মাজলে দাঁতে কোনো পোকা হবে না, পুঁজ হবে না, মাড়ি ব্যথা হবে না, দাঁত থাকবে সাদা বেলি ফুলের মতো, মজবুত, শক্ত, লোহার মতোই মজবুত। দিমু নাকি ভাই? মাত্র পাঁচ টাকা, পাঁচ টাকা, পাঁচ টাকা। ’

একে তো প্রচণ্ড গরম আর ভিড়। লোকটির একটানা চিত্কার শুনে রেগে গেল এক যাত্রী।

যাত্রী : ওই মিয়া। বন্ধ করো তোমার প্যানপ্যান। গরমে এমনেই অবস্থা খারাপ।

মাজন বিক্রেতা খেপে গিয়ে বলল, ‘এটা কি আপনার বাস? আমারে যে চুপ করতে কন। ’

যাত্রীটি রেগে গিয়ে বলল, ‘কী? মুখে মুখে কথা? এক থাপ্পড় দিয়ে দাঁত ফেলে দেব। ’

এবার মাজন বিক্রেতা চেঁচিয়ে বলল, ‘দাঁত ফালায় দেবেন? এ তো সোজা? আমি ব্যবহার করি হাশেম মিয়ার দাঁতের মাজন। এই মাজনে দাঁত মাজলে দাঁতে কোনো পোকা হবে না, পুঁজ হবে না, মাড়ি ব্যথা হবে না, দাঁত থাকবে সাদা বেলি ফুলের মতো, মজবুত, শক্ত, লোহার মতোই মজবুত। দিমু নাকি একটা? মাত্র পাঁচ টাকা, পাঁচ টাকা, পাঁচ টাকা। ’

নিয়াজ মোর্শেদ

 

দুইটা বিরক্তিকর কাজ

পৃথিবীতে সর্বসাকুল্য বিরক্তিকর কাজ মোট দুইটা। প্রথমটা পড়ালেখা এবং দ্বিতীয়টা লেখাপড়া।

মুশাহিদ

 

পার্থক্য নেই

একজন ধূমপায়ী ও ডাস্টবিনের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই! কারণ এদের সামনে দিয়ে গেলে নাকে রুমাল ধরতেই হয়!

হডি এইচ মাসুদ

 

একটি পুরনো কৌতুক...

বউরা এত সুখী কেন? কারণ তাদের বউ নেই।

পলাশ মাহবুব

 

কবে হবে

: কবে আপনার মাসিক বেতন লাখ লাখ টাকা হবে?

: যেদিন বাসা থেকে অফিসে আসতে ১০০০০ টাকা রিকশা ভাড়া লাগবে।

অনামিকা মণ্ডল

 

নাথিং ইস ইম্পসিবল

কেউ বলতে আইসেন না যে নাথিং ইস ইম্পসিবল, কজ ইম্পসিবল শব্দটা নিজেই বলে আই এম পসিবল...।

হিমেল দেবনাথ

 

গাজর-মুলা

রঙিন টিভিতে যেটা গাজর, সাদা-কালোতে সেটা মুলা।

শাকিব হাসান

 

বাড়িওয়ালা

আমাদের দেশে হবে সেই বাড়িওয়ালা কবে, ছাদের চাবি দিয়ে দেবে ব্যাচেলর ভাড়াটিয়াদের হাতে।

শূন্য কানন

 

সন্দেহ

বউ : আমি মরে গেলে তুমি কি আবার বিয়ে করবে?

বর : না, না; একদম না। তুমিই আমার জান।

বউ : তাহলে তোমার খেয়াল কে রাখবে? বিয়ে করো, প্লিজ!

বর : আচ্ছা ঠিক আছে, করব।

বউ :  নতুন বউকে আমার ঘরে নিয়েই থাকবে?

বর : না, না; এটাই তোমার স্মৃতি জড়িয়ে আছে।

বউ :  ঘর ফাঁকা পড়ে থাকবে নাকি? আমার ঘরেই থেকো তোমরা।

বর : আচ্ছা।

বউ :  ও কি আমার জামাগুলো পরবে?

বর : না, না।

বউ :  তা ওগুলো কি আলমারির মধ্যে নষ্ট হবে? পরতে দিয়ো ওকে।

বর : হুমমম, দেব।

বউ :  আচ্ছা, ও কি আমার সুন্দর সুন্দর জুতাগুলোও পরবে?

বর : ধুসস, জুতাগুলো হবে না। ওর পাঁচ নম্বর সাইজ লাগে আর তোমার সাইজ তো ছয়।

বউ : শালা, আগে থেকেই সন্দেহ ছিল আমার...।

নিয়াজ মোর্শেদ

 

তিন টুকরো দৃশ্য

স্থান—টাউন হল বাজার, মোহাম্মদপুর।

সময়—তাং...১২টা ৮ মিনিট থেকে ১৭ মিনিট পর্যন্ত।

দৃশ্য-১

আমি : ভাই, মুরগি দিয়ে দিলেন; কিন্তু ভাউচার তো লিখলেন না। ভাউচারটা লেখেন।

দোকানদার : কী আর লিখমু ভাই, সকাল থেইকা কলম চলতাছে না। বাংলাদেশ এইডা কামডা করল কী!

দৃশ্য-২

মহাজন : কী রে বেডা, কাস্টমার আইয়া খাড়ায়া রইছে দেখস না? পিঁয়াজ চাইতাছে, পিঁয়াজ দে।

দোকানের ছেলেটা : ভাল্লাগতাছে না। তিন বলে মাত্র দুই রানের দরকার আছিল। চিন্তা করতে পারেন!

দৃশ্য-৩

এক ভদ্রলোক (মোবাইলে) : কও কী! সিয়াম এখনো খায় নাই? আরে তারে কও এই খেলাই শেষ না। বাংলাদেশ ভবিষ্যতে আরো অনেক খেলা খেলব, জিতব।

হইকবাল খন্দকার

 

যত দোষ নন্দ ঘোষ

‘আব্বু, চোখ ব্যথা করতেছে। ’

‘করবেই তো...সারা দিন-রাত মোবাইলের দিকে ইলিশ মাছের মতো

ড্যাবড্যাব করে তাকায়ে থাকো যে। ’

 

‘আব্বু, মাথা ব্যথা করতেছে। ’

‘করবেই তো...ল্যাপটপ নিয়া বইসা থাকো সারা দিন...মাথায় প্রেশার তো পড়বেই। ’

 

‘আব্বু, রাতে ঘুম আসে না। ’

‘আসবে ক্যামনে!...সারা রাত মোবাইল আর ল্যাপটপ খুইলা রাখলে ঘুম আসবেটা ক্যামনে?’

 

‘আব্বু, সারা দিন ঘুম আসে। ’

‘তা তো আসবেই...চোখের সামনে মোবাইল ধইরা রাখো শুধু...ক্লান্তিতে ঘুমই তো আসবে। ’

 

‘আব্বু, পায়ে ব্যথা অনেক। ’

‘সব ওই ল্যাপটপ আর মোবাইলের জন্য। ’

‘ক্যামনে কী?’

‘শুয়ে-বসে ল্যাপটপ আর মোবাইল চালাইতে চালাইতে তুমি অকেজো-অথর্ব হয়ে গেছ...এখন হাঁটতে গেলেই পায়ে ব্যথা

পাওয়া স্বাভাবিক। ’

‘হায় রে!’

 

‘আব্বু, গ্যাস্ট্রিকের জন্য বুকে ব্যথা। ’

‘আরো বেশি বেশি মোবাইল গুঁতাও!’

‘মোবাইল গুঁতানোর সঙ্গে গ্যাস্ট্রিকের সম্পর্ক কী?’

‘খাইতে ডাকলে তো টাইমলি আসো না...মোবাইল হাতে নিয়া

বইসা থাকো...টাইমলি খাও না...গ্যাস্ট্রিক তো হবেই। ’

‘ও রে বাবা। ’

 

‘আব্বু, পেটে ব্যথা করতেছে। ’

‘করবেই তো...সারা রাত ল্যাপটপ চালাও যে। ’

‘ল্যাপটপ চালানোর সঙ্গে পেটে ব্যথার কী সম্পর্ক?’

‘পেটের ওপর রাইখা ল্যাপটপ চালাও যে। ’

স্পর্শিয়া অধরা তানু


মন্তব্য