kalerkantho

26th march banner

ডিজিটাল কথন

দেশ ডিজিটাল হয়ে গেলে আমজনতা কিভাবে কথা বলবে তার উদাহরণ দিচ্ছেন আদিত্য রহিম, এঁকেছেন কাওছার মাহমুদ

২২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ডিজিটাল কথন

ছেলে : মা, তুমি আমাকে কোন সাইট থেকে ডাউনলোড করেছ?

মা : আমরা তোমাকে ডাউনলোড করিনি বাবা। তুমি জন্মগ্রহণ করেছ।

 

নায়িকা : ডাক্তার, আমার চেহারার যেখানেই টাচ করছি, সেখানেই দাগ পড়ে যাচ্ছে।

ডাক্তার : তাই নাকি? টাচ স্কিন সমস্যা বলে মনে হচ্ছে।

 

প্রথম বন্ধু : আয়হায় রে দোস্ত, শার্টে চা পইড়া তো ভাইসা গেল। একটু পর ল্যাব ভাইভা পরীক্ষা।

দ্বিতীয় বন্ধু : তাই নাকি? আচ্ছা চিন্তা করিস না। ফটোশপ দিয়ে তোর শার্টের দাগ মুছে দিচ্ছি।

 

মা : তারপর রাজকুমার কী করল জানো, একটা পঙ্খিরাজ ঘোড়ায় চড়ে আকাশে উড়াল...

ছেলে : মা, এখন গল্প শুনতে ইচ্ছা করছে না। তুমি গল্পটা আমার অ্যাড্রেসে ই-মেইল করে দিয়ো, আমি পড়ে নেব।

 

মা : বাবু ওঠো, তোমার স্কুলের টাইম হয়ে গেছে তো।

ছেলে : বাইরে বৃষ্টি হচ্ছে, কিভাবে স্কুলে যাব মা?

মা : চিন্তা কোরো না বাবা। আজ তোমাকে ই-মেইলে অ্যাটাচ ফাইল হিসেবে পাঠাব।

 

রোগী : ডাক্তার সাব, দিন দিন আমার চেহারার রেজলিউশন কমে যাচ্ছে। আমি মনে হয় অচিরেই হ্যাং হয়ে যাব।

ডাক্তার : আচ্ছা, আচ্ছা; আমি আপনার জন্য আরেকটা র‌্যাম লিখে দিচ্ছি। আজই লাগিয়ে দেবেন। ভালো হয়ে যাবে।

স্ত্রী : ওগো শুনছ, আমার না খুব ভয় করছে। আমরা ঘুমিয়ে যাওয়ার পর যদি মাঝরাতে চোর আসে।

স্বামী : চিন্তা করতেছ কেন? আমাদের বাড়ির চারপাশে ফায়ারওয়াল অ্যাক্টিভেট করা আছে না?

 

 

মা : অনেক পড়াশোনা করেছ। এখন বিকেল হয়েছে। বিকেলে খেলাধুলা করতে হয়।

টিনা : ঠিক আছে মা, আমি এখনই ডাব্লিউ ডাব্লিউ ডাব্লিউ ডট গেমস ডটকমে ঢুকছি।


মন্তব্য