kalerkantho

সুবর্ণচরে গৃহবধূকে দল বেঁধে ধর্ষণ

হোতা রুহুলের জামিন বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



হোতা রুহুলের জামিন বাতিল

রুহুল আমিন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন রাতে বহুল আলোচিত নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত রুহুল আমিনকে দেওয়া জামিনের আদেশ প্রত্যাহার করেছেন হাইকোর্ট। ফলে হাইকোর্ট থেকে গত ১৮ মার্চ দেওয়া এক বছরের জামিন বাতিল হয়ে গেল। এ কারণে রুহুল আমিন কারাগার থেকে মুক্তি পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল শনিবার ছুটির দিনে খাসকামরায় বসে আগের দেওয়া জামিনের আদেশ প্রত্যাহার করে নতুন আদেশ দেন। একই সঙ্গে পরবর্তী আদেশের জন্য আগামীকাল ২৫ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল আদেশ দেওয়ার আগে আদালত উভয় পক্ষের আইনজীবীদের ডাকেন। রাষ্ট্রপক্ষে আইন কর্মকর্তা ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ রায় ও অমিত তালুকদার হাজির হলেও আসামিপক্ষে আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন না।

আদালতের কাছে তথ্য গোপন করে জামিন নেওয়ায় আদালত জামিন আদেশ প্রত্যাহার করেছেন বলে জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের

 স্পেশাল কর্মকর্তা সাইফুর রহমান ও সংশ্লিষ্ট আদালতে দায়িত্বরত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত্ রায়।

আদেশের বিষয়ে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত্ রায় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তথ্য গোপনের বিষয়টি গত ২১ মার্চ বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্ট আদালতের নজরে আনি। সেদিন আদালতকে বলেছিলাম, ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় একাধিক আসামির দেওয়া জবানবন্দিতে এই আসামির নাম উঠে এসেছে। সেখানে এ আসামিকে হুকুমদাতা বলা হয়েছে। এ ছাড়া অন্য আদালতে জামিন আবেদনটি (এনেক্স ১৭ নম্বর) শুনানির জন্য জমা দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করা হলেও তারা এনেক্স ১৪ নম্বর আদালতে শুনানি করেছে। এ দুটি তথ্য গোপনের বিষয় আদালত গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছেন। আর এ কারণে আজ (শনিবার) ছুটির দিন হওয়া সত্ত্বেও আদালত খাসকামরায় (চেম্বার) বসে আগে দেওয়া জামিন আদেশ প্রত্যাহার করে (রিকল) আদেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া আগামী ২৫ মার্চ পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন আদালত।’

আগের জামিন প্রত্যাহার গতকাল শনিবার হাইকোর্টের দেওয়া আদেশের পর রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম তাঁর কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, এক আদালতে মেনশন করে অন্য আদালতে শুনানি করা গুরুতর অসদাচরণ। ঘৃণ্য অপতত্পরতা। এটা আদালতের সঙ্গে প্রতারণা ও আদালত অবমাননার শামিল। আদালতকে ভুল বুঝিয়ে জামিন আদেশ নেওয়া হয়েছে। এ কারণে ওই আইনজীবীর বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আদালতে আদালত অবমাননার অভিযোগ করা হবে। ওই আইনজীবীর বিরুদ্ধে যেন আদালত অবমাননার রুল জারি করা হয়। এ ছাড়া বিষয়টি প্রধান বিচারপতির নজরে আনা হবে। তাঁর (আসামিপক্ষের আইনজীবী) বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রয়োজনে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলেও (বাংলাদেশে আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান) আবেদন করা হবে।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচন-পরবর্তী রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনায় সারা দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সারা দেশে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এ বিষয়ে পরদিন চরজব্বার থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়। ওই মামলায় মূল অভিযুক্ত রুহুল আমিনকে আসামি করা হয়নি। রুহুল আমিন উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ছিলেন। তবে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠার পর আওয়ামী লীগ থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। পরে রুহুল আমিনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর তাঁকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানানো হয়। আদালতের অনুমোদনের পর পুলিশ রুহুল আমিনকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়। এ বিষয়ে নোয়াখালী আদালতে পুলিশের দাখিল করা আবেদনে রুহুল আমিনকে ধর্ষণের হুকুমদাতা হিসেবে উল্লেখ করা হয় বলে জানিয়েছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত্ রায়।

 

মন্তব্য