kalerkantho

বিজয় মিছিল পাড়িয়ে মারল শিশুটিকে

কুদ্দুস বিশ্বাস, কুড়িগ্রাম (আঞ্চলিক)   

১২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে




বিজয় মিছিল পাড়িয়ে মারল শিশুটিকে

কুড়িগ্রামের রাজীবপুরে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের বিজয়ী মিছিল দেখতে গিয়ে পদপিষ্ট হয়ে মারা গেল ইয়াছিন আলী (১০) নামের তৃতীয় শ্রেণির একটি শিশু। রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার বালিয়ামারী গ্রামের রাস্তায় নিয়ন্ত্রণহীন আনন্দ-উল্লাসের শিকার হয় শিশুটি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাজীবপুর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আকবর হোসেন হিরোর আনারস মার্কার বিজয়ের খবরে কর্মী ও সমর্থকরা উল্লাসে ফেটে পড়ে। বালিয়ামারী বাজার থেকে মিছিলটি রাজীবপুরে যাচ্ছিল। জানা যায়, ভিড়ে মিছিলকারীদের পায়ের নিচে পড়ে মারাত্মক আহত হয়

 ইয়াছিন আলী। প্রথমে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়েছিল। চিকিৎসকরা দ্রুত তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিতে বলেন। যাওয়ার পথেই মারা যায় ইয়াছিন। 

গতকাল সোমবার দুপুরে বালিয়ামারী গ্রামের ব্যাপারিপাড়ায় গিয়ে জানা যায়, দরিদ্র পরিবারের সন্তান ইয়াছিন আলী। বাবা আনছের আলী পেশায় জেলে। নদীতে মাছ ধরে যা আয় হয় তা দিয়ে চলে পাঁচ সদস্যের সংসার। মা ইয়াছমিন বেগম বলেন, ‘মরার মিছিল আমার পোলারে কাইড়া নিল। মিছিল না অইলে আমার পোলা মরতো না। মিছিলের মধ্যে পইড়া পোলা আমার মা মা কইয়া চিৎকার করছে। কেউ এগিয়ে আসেনি।’ তিনি আরো বলেন, ‘নৌকায় ভোট দিছি দেইখ্যা মিছিল থেকে আমগর বাড়িতে ইটের ঢিল ছোড়া হয়েছে। আমি আমার পোলার হত্যার বিচার চাই।’ বাবা আনছের আলী বলেন, ‘আমরার অবুঝ ফুটফুটে ছেলেটাকে তারা মাইরা ফেলল। সেখানে বিজয়ী চেয়ারম্যান আইয়া এক হাজার ট্যাহা হাদে। আমি নেই নাই।’

ইয়াছিন আলী উপজেলার বালিয়ামারী বাজারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ত। ক্লাসে তার রোল নম্বর ছিল ৬। প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘ছেলেটি লেখাপড়ায় খুবই ভালো ছিল।’

অন্যদিকে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী শফিউল আলম পরাজিত হয়েছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘বালিয়ামারী ব্যাপারিপাড়া গ্রামের আনছের আলী আমার কর্মী ছিল। বিজয়ী দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মীরা অন্যায়ভাবে আমার কর্মীর বাড়িতে ইটের ঢিল ছুড়ছে। মিছিল দেখতে আসা নিরপরাধ এক শিশুকে তারা মেরে ফেলেছে। ঘটনার তদন্ত দাবি করছি আমি।’ তবে বিজয়ী প্রার্থী আকবর হোসেন হিরো বলেন, ‘এটা একটা দুর্ঘটনা। শিশুটি বিজয় মিছিলের মাঝখানে পা পিছলে পড়ে গেলে মাথায় আঘাত পায়।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসান বলেন, ‘ঘটনাটি আমি শুনেছি এবং থানার ওসিকে ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থীর মিছিল বের করার কোনো নিয়ম নেই।’ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রবিউল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি আমি খোঁজ নিয়েছি। থানায় অভিযোগ না করায় কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না।’

মন্তব্য