kalerkantho


কালিয়াকৈরে ওবায়দুল কাদের

ঐক্যফ্রন্টের গোড়াতেই গলদ

রাজনীতি

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

২০ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



ঐক্যফ্রন্টের গোড়াতেই গলদ

ঐক্যফ্রন্টের গোড়াতেই গলদ বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ঐক্যের শুরুটাই করেছে তারা বিদেশিদের নিয়ে। জনগণের কাছে না গিয়ে ঐক্যফ্রন্ট গেছে বিদেশিদের কাছে। ঐক্যফ্রন্ট বিদেশিদের আস্থায় আনতে চায়। জনগণের আস্থা তাদের প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। যদি জনগণের প্রতি তাদের আস্থা থাকত, তাহলে ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর তারা জনগণের কাছে যেত। ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর প্রথম তারা সাক্ষাৎ করেছে বিদেশিদের সঙ্গে। তারা জনগণের কোনো সমাবেশে যায়নি। এর মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয় এরা কতটা দেউলিয়া, এরা কতটা জনসমর্থনহীন। এরা ভালো করেই জানে ১০ বছর ধরে আন্দোলনের ডাক দিয়ে বারবার ব্যর্থ হয়েছে।

মন্ত্রী গতকাল শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের কালিয়াকৈরের চন্দ্রা এলাকায় নির্মাণাধীন উড়াল সেতুর কাজ পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন।

মওদুদ আহমদের এক বক্তব্যকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মওদুদ আহমেদের গলার জোর ছাড়া কিছু নেই। তাঁর চাপাবাজি ছাড়া আর কিছু নেই। রাস্তায় জনগণকে ডাক দিক না, জনগণ তাঁকে সাড়া দেয় কি না। তাঁরা আন্দোলন কি জনগণ ছাড়া করবেন? মানুষ এখন ইলেকশনমুখী। পাবলিক এখন ইলেকশন মুডে আছে। কেউ এখন আন্দোলনের দিকে তাকিয়ে নেই। সবাই উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দেবে সেই আশা করে নির্বাচনমুখী হয়ে পড়েছে। নির্বাচনমুখী জনগণকে ১৫-২০ দিনে আন্দোলনমুখী করা কিছুতেই সম্ভব নয়। যারা এ ধরনের অপপ্রয়াস চালাচ্ছে, তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে।

সিলেটে ঐক্যফ্রন্টের জনসমাবেশের অনুমতি না দেওয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান তো তাদের জন্য উন্মূক্ত করে দেওয়া হয়েছে। নরসিংদী ও চট্টগ্রামের জঙ্গি আস্তানার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, এত বড় বড় জাতীয় নেতারা সিলেট যাবেন, তাঁদের নিরাপত্তা তো দেখতে হবে। সিলেটের সমাবেশ বন্ধ করা হয়নি, আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘চন্দ্রা উড়াল সেতুর নির্মাণকাজ ৯০ শতাংশ শেষ হয়েছে। মূল উড়াল সেতুর কাজ শেষ হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে ওই সেতুর পুরো কাজ শেষ হবে এ লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।’

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মো. ইছহাক আলী, সওজের ঢাকা জোনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান, ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের প্রকল্প পরিচালক মো. শাহাবুদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

 

 



মন্তব্য