kalerkantho


ঐক্যপ্রক্রিয়ার সমাবেশে সাকি

বাম গণতান্ত্রিক জোটে অসন্তোষ

লায়েকুজ্জামান   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বাম গণতান্ত্রিক জোটে অসন্তোষ

জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার সমাবেশে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকির যোগদান নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। জোনায়েদ সাকির দল বাম গণতান্ত্রিক জোটের অন্তর্ভুক্ত। গত শনিবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সমাবেশে বিএনপির এমনকি হেফাজতের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন মঞ্চে।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের শরিক বিভিন্ন দলের নেতারা বলছেন, তাঁরা স্পষ্টতই বাংলাদেশে দ্বিদলীয় ধারার বিরুদ্ধে একটি বিকল্প বাম শক্তি গড়ে তুলতে কাজ করছেন। যে সমাবেশের মঞ্চে বিএনপির নেতারা ছিলেন, এমনকি হেফাজত নেতারাও উপস্থিত ছিলেন তেমন একটি সমাবেশে বাম জোটের কোনো নেতার যাওয়া অশোভন, অনুচিত এবং আদর্শের পরিপন্থীও।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ড. কামাল হোসেনের সভায় যোগদান প্রশ্নে বাম জোটের সিদ্ধান্ত ছিল না যাওয়া, যেতে অনুৎসাহিত করা এবং শেষাবধি কেউ যেতে চাইলে একান্তই তার দলীয় সিদ্ধান্তে যাওয়া। এখন জোনায়েদ সাকি তাঁর দলের সিদ্ধান্তে গেলেও জোটের ওপর তার প্রভাব পড়ছে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা এখন জেলা সফরে আছি। ঢাকায় ফিরে ২৭ সেপ্টেম্বর জোটের সভায় এ নিয়ে আলোচনা করব।’

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সাকি ব্যক্তিগত বা দলীয় সিদ্ধান্তে গেছেন। তবে এ নিয়ে কথা উঠেছে, জোটের শরিকরাও প্রশ্ন তুলেছে। যেখানে বিএনপি ছিল, হেফাজতের লোকেরাও ছিল, সেখানে তাঁর যাওয়াটা আমরা শোভন মনে করি না। এ বিষয়ে জোটের সভায় সিদ্ধান্ত হবে।’

বিপ্লবী গণতান্ত্রিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘জোনায়েদ সাকি তাঁর নিজস্ব সিদ্ধান্তে গেছেন। এমন একটি সভায় আমরা বামরা যেতে পারি না। এ ধরনের কর্মকাণ্ডে বাম আন্দোলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ নিয়ে আমরা জোটের সভায় আলোচনা তুলব।’

জোনায়েদ সাকি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমি জোটের প্রতিনিধি হিসেবে যাইনি, দলীয়ভাবে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল বাম জোটের সভায়।’ সমাবেশে হেফাজতের নেতাদের উপস্থিতির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সাকি বলেন, ‘কামাল হোসেন কাকে দাওয়াত করবেন সেটা তো আমার জানার কথা নয়। আমি তাঁদের সঙ্গে যুক্ত হতে যাইনি, বাম জোটেই আছি।’

ইসিকে লিগ্যাল নোটিশ

নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি। রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধন পেতে গণসংহতি আন্দোলনের করা আবেদন খারিজ করায় এ নোটিশ দেওয়া হয়েছে। জোনায়েদ সাকির পক্ষে ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া গতকাল এ নোটিশ দেন। নোটিশে নিবন্ধন চেয়ে করা আবেদন খারিজ করা কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি), আইন সচিব ও ইসির যুগ্ম সচিবকে নোটিশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নোটিশের জবাব না পেলে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।



মন্তব্য