kalerkantho


ঢাকায় নির্বিঘ্নে বিশাল সমাবেশ অন্যত্র হামলা-মামলা-গ্রেপ্তার

বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ঢাকায় নির্বিঘ্নে বিশাল সমাবেশ অন্যত্র হামলা-মামলা-গ্রেপ্তার

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল নয়াপল্টনে বিএনপি সমাবেশ করে। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিনা বাধায় বিশাল সমাবেশ করেছে দলটি। পুলিশ অনুমতি দেওয়ায় রাজধানীতে প্রায় দেড় মাস পর জনসভা করল বিএনপি। তবে দেশের অন্যত্র অনেক জেলা-উপজেলায় বিএনপির সমাবেশ এবং এমনকি ঘরোয়া ধরনের অনুষ্ঠানও পুলিশি বাধায় এবং আওয়ামী লীগ-যুবলীগ ও ছাত্রলীগের হামলায় পণ্ড হয়ে গেছে। হামলায় ও লাঠিপেটায় আহত হয়েছে অর্ধশত নেতাকর্মী। পুলিশ শুক্রবার রাত থেকে গ্রেপ্তার অভিযানও চালায়। সাতক্ষীরায় ৭৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। সুনামগঞ্জে ২৯ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। বাধার মুখে বিএনপি সংঘর্ষে জড়ালেও আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের বেশ কয়েকজন আহত হয়। চার পুলিশও আহত হওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

রাজধানীতে বিশাল সমাবেশ

নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিকেল ৩টায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও সকাল ১১টা থেকেই সেখানে নেতাকর্মীর ঢল নামে। ঢাকা ও এর আশপাশের জেলা থেকে নেতাকর্মীরা আসতে থাকে। দুপুর ২টায় জনসভা শুরু হওয়ার সময় কাকরাইল মোড় থেকে ফকিরাপুল সড়ক লোকারণ্য হয়ে যায়। একপর্যায়ে আশপাশের অলিগলি লোকে ভরে যায়। এ সময় সংলগ্ন সড়কগুলোতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে একটি ট্রাকের ওপর সমাবেশের মঞ্চ নির্মাণ করা হয়।

বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ঢোল, বেলুন নিয়ে খণ্ড খণ্ড মিছিলে জনসভায় যোগ দেয়। তারা দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিসহ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিভিন্ন ব্যানার, ফেস্টুন বহন করছিল। সকাল থেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা নয়াপল্টন এলাকার আশপাশে অবস্থান নিয়েছিলেন। সাদা পোশাকের পুলিশ জনসভার আশপাশে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল। তবে তারা কোনো ধরনের বাধার সৃষ্টি করেনি।

সাতক্ষীরায় ৭৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তার ৩

সাতক্ষীরা শহরতলির পলাশপোল (দক্ষিণ) এলাকায় নাশকতার পরিকল্পনা ও ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম হাবিব ও জেলা বিএনপির সভাপতি রহমতুল্লাহ পলাশ, জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি নুরুল হুদাসহ জামায়াত-বিএনপির ৩২ জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে সদর থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মামলায় ‘অজ্ঞাতপরিচয়’ আরো ৪৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। সদর থানার  উপপরিদর্শক কবির হোসেন শুক্রবার সন্ধ্যায় মামলাটি দায়ের করেন। পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কামাননগরের হাফিজুর রহমান, আলীপুরের মোহাম্মদ আলী ও বৈচানা গ্রামের ওবায়দুল্লাহ।

সদর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে শহরের দক্ষিণ পলাশপোলের প্রাণসায়ের খালসংলগ্ন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলামের বাড়ির সামনে ৭০-৮০ জন বিএনপি-জামায়াতের সশস্ত্র নেতাকর্মী খালেদা জিয়ার মুক্তির লক্ষ্যে গোপন বৈঠক ও আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বানচাল করার অভিপ্রায়ে জড়ো  হয়। পুলিশ সেখানে হাজির হলে তারা পর পর চারটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। সেখান থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিএনপি সভাপতি রহমতুল্লাহ পলাশ জানান, তিনি ঈদের আগে থেকেই ঢাকায় অবস্থান করছেন। অথচ সাতক্ষীরায় তাঁর নামে মামলা হচ্ছে। জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও তালা-কলারোয়া আসনের তিনবারের সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিব বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সারা দেশে চলমান আন্দোলন বানচাল করতে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গণহারে মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে।

সুনামগঞ্জে ২৯ নেতাকর্মী আটক

সুনামগঞ্জে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগে বিএনপির ২৯ নেতকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। দিরাই উপজেলায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুড়ে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। জামালগঞ্জ উপজেলায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান থেকে ছয়জনকে আটক করা হয়। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত বিভিন্ন স্থান থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদের আটক করে পুলিশ। তাহিরপুরে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিনসহ ৯০ নেতাকর্মীর নামে নাশকতার মামলা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টায় তাহিরপুর থানার পুলিশ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিনসহ ছয় নেতাকর্মীকে আটক করে। শনিবার দুপুরে জামালগঞ্জ থানার পুলিশ বিএনপির ছয় নেতাকর্মীকে আটক করে। দিরাই উপজেলা শহরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পুলিশ সাত নেতাকর্মীকে আটক করেছে। এ ছাড়া সদর উপজেলায় একজন, বিশ্বম্ভরপুরে দুজন, ছাতকে তিনজন, দিরাইয়ে সাতজন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে দুজনসহ বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদলসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের ২৯ নেতাকর্মীকে আটক করেছে।

জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বলেন, ‘পুলিশ আমাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে দেয়নি। আমাদের নিরীহ নেতাকর্মীদের আটক করে নিয়ে গেছে।’ সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান বলেন, বিভিন্ন স্থানে নাশকতার চেষ্টায় পুলিশ বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে। এসব আটকের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

শরীয়তপুরে যুবলীগ-ছাত্রলীগের হামলা, সংঘর্ষে আহত ২৫

শরীয়তপুরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ করা হয়েছে। হামলার সময় সংঘর্ষে  দুই পক্ষের ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

সূত্র জানায়, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন কালুর বাসায় অনুষ্ঠান চলছিল। সকাল ১১টার দিকে সেখানে হামলা হলে উভয় পক্ষ লাঠিসোঁটা নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায়। দুপুর ২টা পর্যন্ত ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়।

বিএনপি সভাপতি শফিকুর রহমান কিরণ বলেন, অনুষ্ঠান করার জন্য পুলিশের অনুমতি নেওয়া হয়েছিল। তার পরও অনুষ্ঠানে হামলা হয়েছে। আওয়ামী লীগ কর্মীদের হামলায় নারীসহ আমাদের ১৫ জন আহত হয়েছে। জেলা যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর মাদবর বলেন, ‘আমরা যুবলীগের কর্মীরা সভা করার জন্য জেলা স্টেডিয়ামের পাশে জড়ো হয়েছিলাম। তখন বিএনপির নেতাকর্মীরা আমাদের ওপর হামলা করেছে। তাদের হামলায় আমাদের ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের লাঠিচার্জ, আহত ১০

চুয়াডাঙ্গায় বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় বিএনপির ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

জানা গেছে, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল সকাল থেকেই নেতাকর্মীরা শহরের কেদারগঞ্জের বিএনপি কার্যালয়ে সমবেত হতে থাকে। দুপুর ১২টার দিকে তারা শোভাযাত্রা বের করতে গেলে পুলিশ বাধা দেয়। লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরে নেতাকর্মীরা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মো. অহিদুল ইসলাম বিশ্বাসের বাসার সামনে অবস্থান নেয়। পুলিশ সেখানেও লাঠিচার্জ শুরু করলে নেতাকর্মীরা তাদের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হাজি রবিউল হক বাবলু অভিযোগ করেন, তাঁদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে।

পিরোজপুরে সাংগঠনিক সম্পাদকসহ আটক ৫

পিরোজপুরে শুক্রবার রাতে পুলিশের বিশেষ অভিযানে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুল ইসলাম কিসমত, স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক হাসানুল কবির লীন, মৎস্যজীবী দলের সভাপতি নজিবুল ইসলাম, ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিনসহ পাঁচজন আটক হয়েছেন। সদর থানার ওসি এস এম জিয়াউল হক জানান, তাঁরা কোনো নাশকতার সঙ্গে জড়িত কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

বগুড়ায় ছাত্রলীগের হামলায় তিন যুবদল কর্মী আহত

গতকাল দুপুরে শহরের সাতমাথা এলাকায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার সময় ছাত্রলীগ কর্মীদের হামলায় যুবদলের তিন কর্মী আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ছুরিকাহত একজনের অবস্থা গুরুতর। একটি মোটরসাইকেল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ছুরিকাহত হারুনার রশিদ (২৮) আদমদীঘি উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য।

আদমদীঘি উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মাহফুজুল আলম টিকন জানান, তাঁরা ২০-২৫ জন যুবদল নেতাকর্মী শহরের নবাববাড়ি সড়কে বিএনপি অফিসে যাচ্ছিলেন। সাতমাথা এলাকায় প্রধান ডাকঘরের সামনে আওয়ামী লীগ অফিস থেকে ছাত্রলীগের কর্মীরা স্লোগান দিয়ে তাঁদের ওপর হামলা চালায়। পরে পুলিশ হারুনার রশিদকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ভোলায় ৪ পুলিশ আহত, বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আটক

ভোলায় বিএনপির মিছিল থেকে পুলিশের ওপর ককটেল নিক্ষেপের অভিযোগে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ ট্রুম্যানকে আটক করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাফিন মাহামুদ জানান, শুক্রবার রাত পৌনে ৮টার দিকে ভোলা সদরের মহাজনপট্টি দিয়ে বিএনপির জেলা কার্যালয়ের দিকে একটি মিছিল যাচ্ছিল। এ সময় পুলিশের একটি টহল টিমের ওপর ককটেল নিক্ষেপ করা হয়। এতে চার পুলিশ আহত হয়। ভোলা থানার ওসি ছগির মিঞা জানান, আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় হারুন অর রশিদ ট্রুম্যানকে আটক করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন পুলিশ সুপার মো. মোকতার হোসেন।

তবে জেলা যুবদল নেতা তরিকুল ইসলাম কায়েদ জানান, তাঁরা মিছিল নিয়ে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে যান। এরপর সেখানে সভা করছিলেন। এ সময় তাঁরা বাইরে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পান। এদিকে রাত সাড়ে ১০টার দিকে মহাজনপট্টি এলাকায় আরো কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া যায়।

ঝালকাঠিতে পুলিশের বাধা

পুলিশের বাধায় ঝালকাঠিতে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে পারেনি। শহরের ফায়ার সার্ভিস মোড়ে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে শুক্রবার রাতে কেক কাটা ও আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। পুলিশ গিয়ে কাউকেই অফিসে ঢুকতে দেয়নি। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নূপুর জানান, ‘পুলিশ আমাদের অনুষ্ঠান করার জন্য মৌখিকভাবে অনুমতি দিয়েছিল।’ তবে সদর থানার এসআই আশিকুল ইসলাম বলেন, বিএনপির কর্মসূচি পালনের কোনো অনুমতি নেই। তা ছাড়া মধ্যরাতে কর্মসূচি পালন করলে আইন-শৃঙ্খলার বিঘ্ন ঘটতে পারে, এমন আশঙ্কায় তাদের বাধা দেওয়া হয়েছে। এদিকে কাঁঠালিয়া উপজেলা বিএনপির কার্যালয়ে কেক কাটা ও আলোচনাসভার আয়োজন করা হলেও পুলিশের বাধায় তা পণ্ড হয়ে যায়।

গৌরীপুরে পুলিশের লাঠিচার্জ, আহত ৫

উপজেলা বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা গতকাল খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সমাবেশে যোগ দেয়। কিন্তু সমাবেশ শেষে ফেরার পথে পুলিশি হামলায় অন্তত পাঁচজন আহত হওয়ার অভিযোগ করেছে নেতাকর্মীরা। আহতরা হলেন যুবদল নেতা মানিক, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা মামুন, শহীদুল্লাহ, ছাত্রদল নেতা জিকু, নাদিম ও সুমন।

নাটোরে পুলিশি বাধায় পণ্ড সভা

সকাল ১১টার দিকে জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এর পর সেখানে সমাবেশ শুরু করলে পুলিশ বাধা দেয়। এতে নেতাকর্মীরা সেখান থেকে চলে যায়।

প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়েছেন ঢাকা, শরীয়তপুর, ভোলা, বগুড়া, চুয়াডাঙ্গা, ঝালকাঠি, ময়মনসিংহ, নাটোর, সাতক্ষীরা, পিরোজপুর, সুনামগঞ্জের নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক প্রতিনিধিরা।



মন্তব্য