kalerkantho


মন্ত্রিসভা বৈঠক

মানসিক অসুস্থতার মিথ্যা সনদ দিলে জেল-জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



মানসিক অসুস্থতার মিথ্যা সনদ দিলে জেল-জরিমানা

কোনো ব্যক্তিকে পাগল হিসেবে চিহ্নিত করে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ও মানসিক অসুস্থতা নিয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মিথ্যা সনদ দিলে জেল-জরিমানার বিধান রেখে ‘মানসিক স্বাস্থ্য আইন, ২০১৮’-এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। রাজধানীর  তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) এন এম জিয়াউল আলম ব্রিফিংয়ে এ অনুমোদনের কথা জানান।

সচিব জানান, ১৯২১ সালের ‘দ্য লোনেসি অ্যাক্ট’কে সময়োপযোগী করে মানসিক স্বাস্থ্য আইনের খসড়া করা হয়েছে। মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত নাগরিকদের সুরক্ষা,

স্বাস্থ্যসেবা, সম্পত্তির অধিকার নিশ্চিত করা ও পুনর্বাসনের জন্য আইনটির খসড়া করা হয়েছে। প্রস্তাবিত খসড়া আইনে মানসিক স্বাস্থ্যসেবার পেশাজীবীরা কোনো ব্যক্তির মানসিক অসুস্থতা সম্পর্কে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা সার্টিফিকেট দিলে সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। এ ছাড়া অভিভাবক বা ব্যবস্থাপক মানসিক অসুস্থতায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও সম্পত্তির তালিকা প্রণয়নে অবহেলা করলে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা বা তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। মানসিক স্বাস্থ্য রিভিউ মনিটরিং কমিটি গঠনের সুপারিশ করা হয়েছে। সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসাবিষয়ক হাসপাতাল স্থাপন, পরিচালনা ও মানসম্মত সেবা প্রদান সংক্রান্ত বিধানের উল্লেখ রয়েছে খসড়া আইনে।

গতকালের বৈঠকে ‘জাতীয় ডিজিটাল কমার্স নীতিমালা, ২০১৮’-এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। এ ছাড়া টি-২০ বাছাই পর্বে চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় নারী ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা।



মন্তব্য