kalerkantho


প্রতিক্রিয়া

বিএনপির সামনে আরো বড় হার অপেক্ষা করছে : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক ও সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপির সামনে আরো বড় হার অপেক্ষা করছে : কাদের

খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর পরাজয় প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে হেরে গিয়ে উন্মাদের মতো প্রলাপ বকছে। তারা বোঝেনি যে হেরে যাবে। সামনে আরো বড় বড় হার তাদের জন্য অপেক্ষা করছে।’ খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রতিক্রিয়া জানাতে গতকাল মঙ্গলবার রাতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের খুলনার নির্বাচন থেকে বিএনপিকে শিক্ষা নেওয়ারও পরামর্শ দিয়েছেন। ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ওই সংবাদ সম্মেলন হয়।

খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে বিএনপির নানা অভিযোগকে নির্জলা মিথ্যাচার অভিহিত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি জনগণকে বিভ্রান্ত করছে। তিনি বলেন, ‘জনবিচ্ছিন্ন হলে রাজনীতিতে কোথায় গিয়ে দাঁড়াতে হয় বিএনপি খুলনা থেকে আশা করি শিক্ষা নেবে। তাদের যে নেতিবাচক রাজনীতি দেশের মানুষ পছন্দ করে না, সেটা সামনের দিনগুলোতে তারা আরো ভালোভাবে বুঝতে পারবে।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী ও আবদুর রাজ্জাক, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এইচ টি ইমাম, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, অসীম কুমার উকিল, বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখের উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, ‘বিএনপি ১০০ কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণের অহেতুক অভিযোগ দিয়েছে। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন জবাব দিয়েছে। নির্বাচনে পর্যবেক্ষকরা ছিলেন, সাংবাদিকরা ছিলেন। তাঁরা কেউ অভিযোগ দিলেন না, বিএনপি একা অভিযোগ করে যাচ্ছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপিকে কেন মানুষ ভোট দেবে? ভোট আদায়ের মতো কোনো কাজ অতীতে বিএনপি দেখাতে পারেনি। ইচ্ছামতো সরকারবিরোধী বক্তব্য দেয় বিএনপি। এগুলো কি জনগণ বোঝে না? এসব দেখে কি জনগণ ভোট দেবে? বিএনপি ভোট শুরু হওয়া থেকে ফল ঘোষণা পর্যন্ত ভোট চুরি, লুট, ডাকাতি, ব্যালট ছিনতাইয়ের অভিযোগ করতে থাকে। নিজেরা জিতলেও বিএনপি অভিযোগ করতে থাকে। অথচ বিএনপিই এই নির্বাচন কমিশনের প্রশংসা করেছিল।’

আওয়ামী লীগের প্রার্থীর জয়ের ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকারের উন্নয়ন ও অর্জনের কারণে জয় এসেছে। সমুদ্র ও সীমান্ত জয় হয়েছে। পারমাণবিক ক্লাবে যোগ দেওয়া ও বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে ঐতিহাসিক সাফল্যের কারণে মানুষ নৌকায় ভোট দিয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘আজ দেশের বিভিন্ন জায়গায় স্থানীয় সরকার নির্বাচন হয়েছে। সেখানেও আওয়ামী লীগ প্রায় সব কটিতে জয়ী হয়েছে। ১২টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে সাতটিতে আওয়ামী লীগ, তিনটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং দুটিতে বিএনপি জয়ী হয়েছে। এ ছাড়া বার কাউন্সিল নির্বাচনে ১৪টির মধ্যে ১২টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।’

এর আগে গতকাল দুপুরেও নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর সেতু এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের যানজট পরিদর্শনকালে ওবায়দুল কাদের খুলনা সিটি নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন। সে সময় তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে যেমন নির্বাচন হয়েছিল, খুলনায় তেমনই হচ্ছে। আপনারা সাংবাদিকদের কাছে খোঁজ নিয়ে দেখেন, সেখানে তেমন কোনো অভিযোগ নেই। সাংবাদিকরা তো আর সবাই আওয়ামী লীগ করেন না। বিএনপির মঞ্জুই শুধু অভিযোগ করছেন। আর ঢাকায় বসে তাদের নেতারা করছেন সংবাদ সম্মেলন।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চেয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সংবাদ সম্মেলনের ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খালেদা জিয়ার ব্যাপারে আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁকে জিজ্ঞেস করেছি যে বিএনপি যেভাবে বলছে তাঁর অবস্থা সে রকম কি না। তিনি আমাকে বলেছেন, তাঁর বয়স হয়েছে। তিনি যে পুরোপুরি সুস্থ তা বলা যাবে না। তবে কারাবিধি মতো তাঁর চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার পরও খতিয়ে দেখছি আমরা। তাঁর চিকিৎসায় যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার, তা নেওয়া হচ্ছে।’

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানজট পরিস্থিতি নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চার লেন করার পরও মাঝেমধ্যে ব্যাপক যানজট সৃষ্টি হচ্ছে; এটা অস্বীকার করার কোনো কারণ নেই। তবে আমরা বসে নেই। এখানে রাস্তার কোনো সমস্যা নেই। রাস্তা চার লেন হয়ে গেছে। ফেনীর ফ্লাইওভারের কাজও শেষ। কুমিল্লায় যে সমস্যা হতো সে রেল ওভারপাসটি প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করেছেন। গত কয়েক দিন যে সমস্যা হচ্ছে, এটি মূলত ফেনীর ফতেহপুরে রেল ওভারপাসের জন্য।’

মন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি আতিকউল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আলীউল হোসেন, উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. শাহরিয়ার আলম, আব্দুস সাত্তার প্রমুখ।

 

 



মন্তব্য