kalerkantho


বাংলামোটরে শিক্ষার্থীকে ‘যৌন হয়রানি’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন ভিডিও ফুটেজ পাওয়া গেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন ভিডিও ফুটেজ পাওয়া গেছে

ফাইল ছবি

রাজধানীর বাংলামোটর এলাকায় এক কলেজছাত্রীকে যৌন হয়রানির ঘটনায় একদল কিশোর জড়িত। মেয়েটি অনুসরণ করার একপর্যায়ে হয়রানির ঘটনা ঘটায়। ওই মেয়েটির সঙ্গে কথা হয়েছে, এমন একজন কালের কণ্ঠকে এ কথা বলেছেন। এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার এ ঘটনার ভিডিও ফুটেজ পাওয়ার কথা জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। তিনি বলেছেন, ফুটেজ দেখে জড়িতদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত বুধবার ৭ই মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের জনসভামুখী মিছিলের মধ্যে পড়ে বিরূপ অভিজ্ঞতার মুখে পড়ার কথা জানিয়ে আরো কয়েকজন নারী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। এই ধরনের ঘটনাকে ‘দুঃখজনক’ মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের নজরে যেগুলো এসেছে, সেগুলোর বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

উল্লেখ্য, ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের জনসভায় বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে যোগ দেয় ক্ষমতাসীন দলটির বিভিন্ন স্থানের নেতাকর্মীরা। ছিল দলটির সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মীরাও। বাংলামোটরে এ রকম একটি মিছিলের মধ্যে পড়ে একদল যুবকের হাতে যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার কথা নিজের ফেসবুকে এক তরুণী পোস্ট করেন। একটি মিছিলে থাকা একদল যুবক তাঁকে ঘিরে ফেলে যৌন নিপীড়ন করে বলে ওই তরুণীর অভিযোগ। ওই তরুণী ফেসবুকে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে লিখলেও গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে রাজি নন বলে তাঁর ঘনিষ্ঠ একজন জানান। তিনি ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, ১৫-২০ জন যুবক তাঁকে যৌন নিপীড়ন শুরু করলে এক পুলিশ সদস্য তাঁকে উদ্ধার করে একটি বাসে তুলে দেন। ক্ষোভের সঙ্গে ওই তরুণী লেখেন, এরপর তিনি বাংলাদেশেই থাকবেন না। তাঁর এই পোস্ট ব্যাপক শেয়ার হতে শুরু করে, বিভিন্নজন মন্তব্যও করে। এ বিষয়টি নিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমালোচনাও আসে নানাজনের মন্তব্যে। পরে নিজের পোস্ট সরিয়ে দেন তিনি। পরে আরেক পোস্টে তিনি লেখেন, ‘পোস্টটা অনলি মি করেছি, কারণ পোস্টটা রাজনৈতিক উসকানিমূলকভাবে শেয়ার করা হচ্ছিল। আমি কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পোস্টটা দিইনি। প্লাস আমার কলেজকে জড়ানো হচ্ছিল এই ব্যাপারে। ব্যাপারটার সাথে আমার কলেজের কোনো সম্পর্ক নাই।’

ওই তরুণীর সঙ্গে কথা হয়েছে, এমন একজন কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, বাস না পেয়ে ওই শিক্ষার্থী হাঁটতে হাঁটতে বাংলামোটরের দিকে আসছিলেন। ওই সময় তাঁকে অনুসরণ করছিল একদল কিশোর। ওই শিক্ষার্থী তাঁর এক স্বজনকে বলেছেন, তাঁকে অনুসরণকারী কিশোররা তাঁর পেছনেই ছিল এবং তাঁকে উত্ত্যক্ত করছিল। একপর্যায়ে তিনি এর প্রতিবাদ করেন। এই নিয়ে বখাটে কিশোরদের সঙ্গে তাঁর কথা-কাটাকাটিও হয়। তখন বখাটেরা তাঁর গায়ে হাত দেয়। তবে ওই বখাটেরা মিছিলের কেউ ছিল কি না, সে বিষয়ে সঠিক তথ্য জানা যায়নি।

ঘটনাটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনার মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার সিরডাপ মিলনায়তনে ‘ব্র্যাক স্কুল অব পাবলিক হেলথ’ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জড়িতরা শনাক্ত হলে আপনারাও জানতে পারবেন।

এদিকে পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার বলেন, এ ধরনের কোনো ভিডিও ফুটেজ তাঁর কাছে নেই। ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, এ ধরনের কোনো অভিযোগ তাঁদের কাছে নেই। তবে ফেসবুকের মাধ্যমে বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় এর সত্যতা যাচাই করা হচ্ছে।


মন্তব্য