kalerkantho


বিপ্লবই ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী, ভাস্কর্য ভাঙল লেনিনের

মেঘালয়ও কংগ্রেসের হাতছাড়া

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



বিপ্লবই ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী, ভাস্কর্য ভাঙল লেনিনের

বাংলাদেশের চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার সন্তান ৪৮ বছর বয়সী বিপ্লব দেবই ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন। গতকাল মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে এ ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। শনিবার বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই রাজ্যটিতে সহিংসতা চলছে; ভ্লাদিমির ইলিচ লেনিনের একটি বিশাল ভাস্কর্য বুলডোজার দিয়ে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দিয়েছে বিজেপি সমর্থকরা।

অন্যদিকে মাত্র দুই আসনে জয় পেয়েও মেঘালয় থেকে ‘কংগ্রেস হটাও’ প্রচেষ্টায় সফল হলো বিজেপি। রাজ্যে কংগ্রেসের ১০ বছরের শাসনের অবসান ঘটিয়ে মেঘালয়ের মসনদে বসল বিজেপির সমর্থন পাওয়া ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)। গতকাল রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন এনপিপি সভাপতি কনরাড সাংমা।

আগরতলায় রাজ্য অতিথিশালায় আয়োজিত বৈঠক শেষে গতকাল বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতীন গড়করী ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বিপ্লব দেব ও উপমুখ্যমন্ত্রী হিসেবে জিষ্ণু দেব বর্মণের নাম ঘোষণা করেন। এ সময় নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের বিষয়েও আলোচনা হয়। বৈঠক শেষে রাজ্য অতিথিশালা থেকে নবনির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নেতৃত্বে মন্ত্রিসভার সদস্যরা রাজভবনে যান। আগামী শুক্রবার আসাম রাইফেলস ময়দানে তাঁদের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। শপথ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উপস্থিত থাকবেন।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ত্রিপুরা বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে রাজ্যের বনমালীপুর আসন থেকে নির্বাচনে অংশ নেন বিপ্লব। গত শনিবার ফল ঘোষণা হয়। বিপ্লবের নেতৃত্বে বিজেপি বিধানসভার ৬০টি আসনের মধ্যে ৪৩টি আসনে জয় পায়। আর ভরাডুবি হয় মানিক সরকারের নেতৃত্বাধীন সিপিএমের।

কচুয়া উপজেলার সহদেবপুর পূর্ব ইউনিয়নের মেঘদাইর গ্রামের হিরুধন দেব ও মিনা রানী দেবের একমাত্র ছেলে বিপ্লব কুমার দেব। মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর মা-বাবা ত্রিপুরা চলে যান। এরপর তাঁরা সেখানেই স্থায়ী বাসিন্দা হয়ে যান।

টানা দুই দশকেরও বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা বামফ্রন্ট সরকারকে পরাজিত করে বিজেপি জয় পাওয়ার পর ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলাসহ বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা হয়েছে। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, গত শতকে রুশ সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের মহানায়ক লেনিনের একটি বিশাল ভাস্কর্য দক্ষিণ ত্রিপুরার কেন্দ্রস্থলে গত পাঁচ বছর ধরে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে ছিল, কিন্তু সোমবার সেটি গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিজেপিকর্মীদের আনা বুলডোজারের ধাক্কায় ভাস্কর্যটি মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। গেরুয়া সমর্থকরা তখন ‘ভারত কি জয়’ বলে উল্লাস করছিল।

নির্বাচনের ফল ঘোষণা শেষ হওয়ার পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার ধারাবাহিক সহিংসতার পর গতকাল তিনজনকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে ত্রিপুরা পুলিশ। সোমবার রাতেই রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় সহিংসতার চারটি অভিযোগ পাওয়ার কথাও জানিয়েছে তারা। সিপিএমের টুইটেও সহিংসতার জন্য ভারতীয় জনতা পার্টিকে (বিজেপি) দায়ী করা হয়েছে। নির্বাচনে জেতার পর পদ্মফুল সমর্থকরা রাজ্যজুড়ে ‘ভয় ছড়িয়ে দিচ্ছে’ বলে অভিযোগ করে সিপিএম বলছে, দলীয় কার্যালয় ও তাদের সমর্থিত বিভিন্ন ট্রেড ইউনিয়নের অফিসগুলোতে বিজেপির হামলায় এ পর্যন্ত আড়াই শর মতো আহত হয়েছে। সিপিএম নেতাদের বাড়িঘরও বিজেপি সমর্থকদের হামলা থেকে বাদ যায়নি। তবে বিজেপি উল্টো অভিযোগ করে বলেছে, সিপিএমকর্মীদের হামলায় তাদের ৪৯ জন সদস্য আহত হয়েছে।

অন্যদিকে ত্রিপুরা ও নাগাল্যান্ডের পর এবার মেঘালয়েও কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা পেল বিজেপির। মেঘালয়ে ৬০ আসনের মধ্যে ৫৯টির ফল শনিবার প্রকাশ হয়। সরকার গঠন নিশ্চিত করতে দরকার ছিল ৩১টি আসন। কংগ্রেস সংখ্যাগরিষ্ঠতা (২১ আসন) ধরে রাখলেও একক সরকার গঠন করার মতো আসন পায়নি। নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থেকে ১০টি আসন কম ছিল কংগ্রেসের। তবে সমমনা দলগুলোর সমর্থন নিয়ে আবারও দলটি সরকার গঠন করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছিল; মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমাই আবারও মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন বলে ধারণা করা হচ্ছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে বিজেপির কলকাঠিতে এনপিপির কনরাড সাংমা মুখ্যমন্ত্রী হয়ে জোট সরকার গঠন করে ফেললেন। এনপিপি (১৯), ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক পার্টি (৬), পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (৪), বিজেপি (২), হিল স্টেট ডেমোক্রেটিক পার্টি (১) ও একজন নির্দলীয় বিধায়কের সমর্থন নিয়ে কনরাড সাংমা সরকার গঠন করেছেন। রাজভবনে শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য