kalerkantho


নওয়াজ ‘আজীবন নেতা’

পাকিস্তান মুসলিম লীগ প্রধান শাহবাজ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পাকিস্তান মুসলিম লীগ প্রধান শাহবাজ

ছবি : ইন্টারনেট

পাকিস্তানের ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাই শাহবাজ শরিফকে দলের প্রধান হিসেবে বেছে নিয়েছে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন)। দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার সর্বসম্মতিক্রমে ৬৬ বছর বয়সী পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজের নাম ঘোষণা করা হয়। সেই সঙ্গে দলের ‘আজীবন নেতা’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে নওয়াজের নাম।

পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারি মামলার রায়ে গত বছর জুলাইয়ে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট নওয়াজকে প্রধানমন্ত্রী পদে থাকার অযোগ্য ঘোষণা করেছিলেন। বরাবর দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে এলেও আদালতের রায়ের পর পদত্যাগ করেন নওয়াজ। প্রধানমন্ত্রিত্ব হারালেও পার্লামেন্টে তাঁর দল সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ায় একটি আইন সংশোধনের মাধ্যমে তিনি পিএমএল-এনের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে গত ২১ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচন কমিশনকে সব সরকারি কাগজপত্র থেকে পিএমএল-এনের সভাপতি হিসেবে নওয়াজ শরিফের নাম মুছে ফেলার নির্দেশ দেন।

পিএমএল-এনের শীর্ষ নেতা মুশাহিদুল্লাহ খান গতকাল লাহোরে দলীয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আগামী ৬ মার্চ দলের সাধারণ পরিষদের বেঠক হবে, সেখানে পিএমএল-এনের স্থায়ী সভাপতি হিসেবে শাহবাজকে নির্বাচন করা হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘নওয়াজ শরিফ দলের আজীবনের সভাপতি হিসেবে কাজ করবেন।’

শাহবাজ দায়িত্ব নেওয়ার পর আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এটিই হবে কনিষ্ঠ শরিফের প্রথম পরীক্ষা। তবে সিনেট নির্বাচনে পিএমএল-এনের হয়ে লড়তে পারবেন না দলের সদস্যরা। দল থেকে তাঁদের মনোনয়ন দিয়েছিলেন শরিফ। সে কারণে নির্বাচন কমিশন তাঁদের দলীয় পরিচয় বাদ দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে। পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনও এ বছরই অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

দলীয় প্রধানের পদ থেকে নওয়াজ শরিফ ছিটকে পড়ার পর তাঁর স্থানে তাঁর স্ত্রী কুলসুম বা মেয়ে মরিয়ম আসবে বলে আভাস পাওয়া গিয়েছিল। বিশেষ করে সাম্প্রতিক মাসগুলোতে দলে মরিয়মের প্রভাবও বাড়ছে। তবে শেষ পর্যন্ত সব গুঞ্জন বাতিল করে দলীয় প্রধানের পদে এলেন শাহবাজ। গতকাল দলের বৈঠকে নওয়াজই তাঁর ভাই শাহবাজ শরিফের নাম প্রস্তাব করেন।

এর আগে নওয়াজ প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করার পরও ওই পদের জন্য শাহবাজের নাম শোনা গিয়েছিল। তবে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদের সদস্য হওয়ার আবশ্যিকতা থাকায় এবং ওই সময় উপনির্বাচনের মাধ্যমে শাহবাজের নির্বাচিত হয়ে আসা সময়সাপেক্ষ হওয়ায় শহিদ আব্বাস খাকানকে মনোনয়ন দেন শরিফ। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স, ডন।


মন্তব্য