kalerkantho


আয়েশা হককে বিচারিক কাজ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



আয়েশা হককে বিচারিক কাজ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ

একটি মামলায় আইনবহির্ভূত আদেশ দেওয়ায় ঢাকা জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা হককে বিচার কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকার একটি ট্রাইব্যুনাল। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪-এর বিচারক আবদুর রহমান সরদার এ আদেশ দেন।

ট্রাইব্যুনালের রায়ে বলা হয়, বিচারপ্রার্থী জনগণ যাতে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত না হয় সে জন্য আয়েশা হককে পরবর্তী বিচার কার্যক্রম থেকে বিরত রাখার জন্য ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও  ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ট্রাইব্যুনাল সূত্রে জানা গেছে, আলাউদ্দিন নামের এক ব্যক্তি ২০১২ সালের ১০ মে ঢাকার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জায়গা-জমি দখলসংক্রান্ত একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তের জন্য ভাটারা থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। তদন্ত শেষে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে ভাটারা থানা পুলিশ প্রতিবেদন দেয়।

অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় এ বিষয়ে জবাব দেওয়ার জন্য বিবাদীকেও প্রতি নোটিশ জারি করা হয়। বিবাদী আদালতে হাজির হয়ে জবাব দেন। কিন্তু পরবর্তীতে আর হাজির হননি। পরে বাদীসহ তিনজন আদালতে সাক্ষ্য দেন। তবে ২০১৬ সালের ১৭ জুলাই বাদী আদালতে হাজির না থাকায় ঢাকা জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা হক মামলাটি নথিজাত করেন। এতে বিবাদীরা অব্যাহতি পান।

আইন ও বিধি অনুযায়ী সাক্ষ্যগ্রহণের পর কোনো মামলার রায়ের তারিখ ধার্য করে কিন্তু রায় না দিয়ে ম্যাজিস্ট্রেট মামলা খারিজ করে দেন। ‘খারিজ’ আদেশটি বিচারবহির্ভূত আদেশ এই অভিযোগে বাদীপক্ষ ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে রিভিশন মামলা দায়ের করেন। পরে আবেদনটি শুনানির জন্য দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ এ পাঠানো হয়। গতকাল ওই রিভিশন আবেদনের রায় দেওয়া হয়। রায়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশ বাতিল করা হয়।

ট্রাইব্যুনাল রিভিশন মামলার রায়ে বলেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে মামলা নথিজাত করেছেন। আইন বিষয়ে অজ্ঞ এমন কর্মকর্তাকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে যাতে ফের বিচারিক দায়িত্বে নিয়োজিত করা না হয়।



মন্তব্য