kalerkantho


চলতি পথে আ. লীগ বিএনপির ‘সংলাপ’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



চলতি পথে আ. লীগ বিএনপির ‘সংলাপ’

একে অন্যকে বাক্যবাণে জর্জরিত করেন নিয়মিত। একজনের বক্তব্যে পাল্টা তীব্র জবাব দেন অন্যজন।

তবে তা আলাদা স্থান থেকে, আলাদা সময়ে। কিন্তু চলতি পথে কাছে এলেন বিপরীত মেরুর এই দুজন। হলো ‘সংলাপও’।

একজন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুর মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আরেকজন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল রবিবার বিকেলে নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দরে দুজনের দেখা হয়েছে, কথাও হয়েছে।

আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ-বিএনপির আনুষ্ঠানিক সংলাপ না হলেও দুই দলের গুরুত্বপূর্ণ দুই নেতার ব্যক্তিগত সংলাপ হলো ঠিকই। আন্তরিকতার সঙ্গে একে অপরের সঙ্গে কুশল বিনিময় করলেন।

প্রধান দুই দলের এই দুই নেতার গতকাল একই উড়োজাহাজে করে ঢাকা থেকে সৈয়দপুরে যাওয়ার টিকিট করা ছিল।

রংপুরে ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা ও আগুন দেওয়ার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দেখতে যাওয়ার কথা ছিল দুজনেরই। তবে ফখরুল তাঁর ওই কর্মসূচি বাতিল করে অন্য আরেকটি উড়োজাহাজে সৈয়দপুরে যান। সে কারণে একই ফ্লাইটে যাওয়া হয়নি ওবায়দুল কাদের ও মির্জা ফখরুলের। শেষমেশ ফেরার পথে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে উভয়ের দেখা হয়।

এদিকে রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা চালানো ও আগুন দেওয়ার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দেখতে গিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি অশুভ সাম্প্রদায়িক শক্তি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘরে হামলা করেছে। তারা ভারতের সঙ্গে বিরাজমান সুসস্পর্কও বিনষ্ট করতে চায় বলে তিনি মন্তব্য করেন।


আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুপল্লীতে তাণ্ডবের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। ছবি : কালের কণ্ঠ


অন্যদিকে যাত্রাপথে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মির্জা ফখরুল আগামী নির্বাচনেও বিএনপি-জামায়াত জোট অটুট থাকার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এখনো জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হয়নি। তাই আগামী নির্বাচনে তারা আমাদের সঙ্গে থেকেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। ’

ওই সময় বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা ও প্রত্যক্ষদর্শীর কাছ থেকে জানা গেছে, দুপুরে সৈয়দপুর থেকে ঢাকায় ফিরতে উড়োজাহাজের জন্য বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে অপেক্ষা করছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। সেখানে উপস্থিত হওয়ার পর ওবায়দুল কাদেরের কাছে তথ্য আসে যে পাশের আরেকটি কক্ষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল অবস্থান করছেন।

তখন ওবায়দুল কাদের বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে দেখা করতে যান। গিয়ে বলেন, ‘ভাই, কেমন আছেন?’ ফখরুল তাঁর স্বভাবসুলভ হাসিতে জবাব দেন, ‘ভালো আছি, আপনি কেমন আছেন ভাই?’ কাছাকাছি এসে দুজন করমর্দন করেন। প্রায় তিন মিনিট তাঁদের কুশল বিনিময় পর্ব চলে।

ফখরুলকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ঢাকা এয়ারপোর্টে আপনার জন্য অপেক্ষা করেছিলাম। কিন্তু শুনলাম আপনি আসছেন না। একসঙ্গে এলে ভালো হতো। কথা বলা যেত। আমরা রাজনীতি করি, আলাপ আলোচনার পথ খোলা রাখা ভালো। কথা হওয়াও দরকার। ’

মির্জা ফখরুল তখন ওবায়দুল কাদেরকে বলেন, ‘ঢাকা থেকে সকালের ফ্লাইটেই সৈয়দপুর আসার কথা ছিল। পারিবারিক কারণে ওই ফ্লাইটে আসতে পারিনি। পরে আসতে হয়েছে। ’

কথা শেষে ওবায়দুল কাদের ‘যাই বিমান রেডি হয়ে আছে’ বলে উড়োজাহাজের দিকে যান। ওই সময় ফখরুল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে ‘ধন্যবাদ’ বলে বিদায় জানান।


লালমনিরহাটের বুড়িবাজারে গতকাল বাল্যবিয়ে, নারীপাচার, মাদকসহ ১৩টি অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের প্রতিরোধ কর্মসূচির সাইকেল র‌্যালির উদ্বোধন করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি : কালের কণ্ঠ


ওবায়দুল কাদের উড়োজাহাজে যাত্রা করার ১০ মিনিট পর ঢাকার উদ্দেশে অন্য একটি উড়োজাহাজে রওনা দেন ফখরুল।

গত রাতে উভয় নেতাই ঢাকায় ফিরেছেন।

ওই দুই নেতার সাক্ষাৎকালে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, ত্রাণবিষয়ক সম্পাদক সুজিত নন্দী, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক ও খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া উপস্থিত ছিলেন।

ওবায়দুল কাদেরের এক সফরসঙ্গী গত রাতে কালের কণ্ঠকে জানান, ঢাকা থেকে ইউএস বাংলা উড়োজাহাজের সকাল পৌনে ৯টার একটি ফ্লাইটে ওবায়দুল কাদের ও তাঁর সফরসঙ্গীরা সৈয়দপুরের উদ্দেশে রওনা দেন। একই উড়োজাহাজে একই সময়ে যাওয়ার কথা ছিল মির্জা ফখরুলের। কিন্তু ফখরুল পরে নভো এয়ারের ফ্লাইটে সৈয়দপুর যান।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক গত রাতে সাংবাদিকদের বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের ও মির্জা ফখরুল ইসলামের দেখা হয়েছে, কুশলবিনিময়ও হয়েছে। ’

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খানও গত রাতে কালের কণ্ঠকে জানান, সৈয়দপুর বিমানবন্দরে উভয় নেতার দেখা হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন।

এর আগে গতকাল রংপুরে ঠাকুরপাড়া পরিদর্শনের সময় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তিনি (ফখরুল) আজ আমার সঙ্গে একই ফ্লাইটে এখানে আসার কথা ছিল বলে আমি জেনেছি। ফখরুল সাহেব আমার সঙ্গে এলে চোখাচোখি হতো, মুখোমুখি হতো, ভাববিনিময় হতো, শুভেচ্ছাবিনিময় হতো। দুজন পাশাপাশি বসে আসতাম। এটাকে আমি ইতিবাচক হিসেবে দেখতাম। কিন্তু পরে জানতে পারলাম তিনি পরে আসবেন। ’

অন্যদিকে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, একই দিনে বড় দুই দলের মহাসচিব পর্যায়ের দুই নেতা একই এলাকায় গেলে নিরাপত্তাজনিত সমস্যা হতে পারে। এ জন্য তিনি গতকালের রংপুর সফর বাতিল করেছেন।

ফখরুল বলেন, ‘সেখানে একসঙ্গে দুটি দলের প্রগ্রাম করা সমীচীন নয়। এ বিষয়টিকে আমরা গুরুত্ব দিই। তাই আমি তাদের ছাড় দিয়েছি। ’ তবে আজ সোমবার তিনি রংপুরের ঠাকুরপাড়া পরিদর্শনে যাবেন বলে জানান।

ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক বিনষ্ট করতে হামলা—কাদের : এদিকে রংপুর অফিস জানায়, রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা চালানো ও আগুন দেওয়ার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দেখতে এসে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি অশুভ সাম্প্রদায়িক শক্তি রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘরে হামলা করেছে। এ ধরনের অপকর্ম যারা করছে তারা দেশকে শুধু অস্থিতিশীল করতে চাইছে না, তারা ভারতের সঙ্গে আমাদের বিরাজমান সুসস্পর্কও বিনষ্ট করতে চায়। ’

ঠাকুরপাড়ার টিটু রায়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগ তুলে গত ১০ নভেম্বর কয়েক হাজার মানুষের মিছিল থেকে হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট ও আগুন দেওয়া হয়। এতে টিটু রায়ের বাড়িসহ ১০ পরিবারের ঘরবাড়ি পুড়ে যায়। ওই সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়। আহত হয় পুলিশসহ অন্তত ২৫ জন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের আরো বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর, কক্সবাজারের রামু এবং রংপুরের এই ঘটনা একই সূত্রে গাঁথা এবং একই ষড়যন্ত্রের অংশ।

কাদের বলেন, ঠাকুরপাড়ার ঘটনায় যারা মঞ্চে ছিল কিংবা যারা নেপথ্যে ছিল তারা যতই প্রভাবশালী হোক না কেন কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। প্রত্যেককে বিচারের আওতায় আনা হবে—এটা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু দুর্বৃত্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, বাকিদেরও গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনা হবে।

দুপুর সোয়া ১২টার দিকে সংবাদ ব্রিফিং শেষে ওবায়দুল কাদের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারপ্রতি ২৫ হাজার টাকা, ভাঙচুর হওয়া সাত পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে এবং মন্দির নির্মাণের জন্য ১০ হাজার টাকা অনুদান দেন।

ওবায়দুল কাদেরের এই পরিদর্শনের সময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ চৌধুরী ও বি এম মোজাম্মেল হক, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত নন্দী, উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, রংপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু, মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি সাফিউর রহমান সফিসহ স্থানীয় নেতারা তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

পরে পাশে ব্রাহ্মণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত শান্তি সমাবেশে যোগ দেন ওবায়দুল কাদের।

ঠাকুরপাড়া পরিদর্শনে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট : রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের জন্য চিহ্নিত একটি গোষ্ঠী দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতারা। গতকাল ঘটনাস্থল ঠাকুরপাড়া পরিদর্শনে এবং সম্প্রীতি সমাবশে তাঁরা এ কথা বলেন।

নেতারা বলেন, ওই গোষ্ঠী সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তারা এখন থেকে বিশেষ করে সংখ্যালঘুদের ভয়-ভীতি প্রদর্শন করছে। এরই অংশ হিসেবে তারা রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হামলা, লুটপাটসহ হিন্দুদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেছে।

জোটের নেতারা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর খোঁজখবর নেন এবং আর্থিক সহায়তা করেন। এ সময় জোটের কেন্দ্রীয় সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফ, সাবেক সভাপতি নাট্যজন মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দীন ইউসুফ, সহসভাপতি ঝুনা চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম, সদস্য কাকলী, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রাজ্জাক মুরাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিবাদে মানববন্ধন : ঠাকুরপাড়া গ্রামে সংখ্যালঘুদের বাড়িতে আগুন দেওয়ার প্রতিবাদে এবং অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি মানববন্ধন করেছে। গতকাল দুপুর ১২টায় শেখ রাসেল চত্বরে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানীর সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে আরো বক্তব্য দেন কলা অনুষদের ডিন রিষিণ পরিমল, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. গাজী মাজহারুল আনোয়ার, অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগীয় প্রধান শাহীনুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক আপেল মাহমুদ, বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. শফিকুর রহমান, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তাবিউর রহমান প্রধান।

আরো পাঁচ আসামি রিমান্ডে: ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর, লুটপাট ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে হওয়া মামলায় আরো পাঁচ আসামিকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

আসামি মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, জিল্লুর রহমান ও আমিনুল ইসলামকে চার দিন করে এবং রশিদুল ইসলাম ও আবদুল আলীমকে এক দিন করে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

গতকাল দুপুরে কোতোয়ালি আমলি আদালতে হাজির করে ওই পাঁচ আসামির ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই বাবুল ইসলাম। শুনানি শেষে আদালতের বিচারক ভিন্ন ভিন্ন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই বাবুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁদের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়।

এর আগে যার ফেসবুক স্ট্যাটাসে ‘ধর্ম অবমাননার’ অভিযোগ তোলা হয় সেই টিটু রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গত শনিবার দ্বিতীয় দফায় চার দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন জমা : ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট ও আগুন দেওয়ার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির গতকাল প্রতিবেদন দেওয়ার কথা থাকলেও তারা তা দিতে পারেনি। তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে তারা আরো সাত দিন সময় নিয়েছে।

কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু রাফা মো. আরিফ বলেন, প্রথম সাত দিনে তদন্ত শেষ করতে না পারায় গতকাল সকালে সময় বাড়ানোর আবেদন করা হলে জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান তা মঞ্জুর করেন।

ঘটনার দিনই জেলা প্রশাসন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু রাফা মো. আরিফকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। রংপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান ও রংপুর সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুর রহমানকে কমিটিতে সদস্য হিসেবে রাখা হয়।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি খুবই স্পর্শকাতর। তাই সুষ্ঠু তদন্তে কমিটিকে আরো সাত দিনের সময় দেওয়া হয়েছে।

বিএনপির সঙ্গেই আগামী নির্বাচন করবে জামায়াত—ফখরুল: এদিকে সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি জানান, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গতকাল সকালে সৈয়দপুরে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, সরকার চক্রান্ত করে রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনায় বিএনপির নেতাকর্মীদের নাম জড়িয়েছে।

তা ছাড়া আগামী নির্বাচনেও বিএনপি-জামায়াত জোট অটুট থাকবে জানিয়ে ফখরুল বলেন, ‘এখনো জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হয়নি। তাই আগামী নির্বাচনে তারা আমাদের সাথে থেকেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। ’

গতকাল সকাল ১০টায় লালমনিরহাট যাওয়ার পথে নীলফামারীর সৈয়দপুরে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ফখরুল। পরে তিনি লালমনিরহাটে একটি কর্মসূচিতে অংশ নেন।

লালমনিরহাটে ফখরুল : লালমনিরহাট প্রতিনিধি জানান, মাদক, জুয়া, বাল্যবিয়ের মতো ১৩টি সামাজিক অপরাধমুক্ত লালমনিরহাট গড়তে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আয়োজিত এক সাইকেল শোভাযাত্রা ও পৃথক একটি ফুটবল টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন বিএনপি মহাসচিব।

দুপুরে লালমনিরহাট সদর উপজেলার বুড়িরবাজারে স্থানীয় বিএনপির সংগঠন হিসেবে পরিচিত ‘আলোকিত লালমনিরহাট’ সাইকেল শোভাযাত্রায় অংশ নেওয়ার আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি অভিযোগ করেছেন, ‘আসন্ন নির্বাচন থেকে বিএনপিকে দূরে সরিয়ে রাখতে বর্তমান সরকার নানা অপচেষ্টা চালাচ্ছে, যেটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। ’

পরে বিকেলে লালমনিরহাট সদর উপজেলার বড়বাড়িতে আয়োজিত শহীদ আবুল কাশেম স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন তিনি।


মন্তব্য