kalerkantho


সাকিবের ৪০০-র পরও অপেক্ষা বাড়ল বাংলাদেশের

সামীউর রহমান, খুলনা থেকে   

২১ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০



সাকিবের ৪০০-র পরও অপেক্ষা বাড়ল বাংলাদেশের

অর্জনের ক্ষেত্রে অনেক জায়গায়ই অনন্য সাকিব আল হাসান। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে আইসিসির অলরাউন্ডার র্যাংকিংয়ের শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছেন।

টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি—সব ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে তাঁর রানের সংগ্রহটা এরই মধ্যে ছাড়িয়েছে আট হাজার। এবারে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি—তিন ধরনের ক্রিকেট মিলে ৪০০ উইকেটের মাইলফলকও ছাড়িয়ে গেলেন সাকিব। তবে এ অর্জন উদ্যাপনের সুযোগ পেলেন না তিনি, দল যে হেরেছে! জিম্বাবুয়ের কাছে ৩১ রানে হারায় সিরিজ জয়ের চেষ্টাটা আগামীকালও করতে হবে মাশরাফি বিন মর্তুজাদের।

মেঘলা আবহাওয়ায় টস জিতে জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজার ব্যাটিং নেওয়াটা  বিস্ময়কর, যদিও একই রকমভাবে বিস্ময়কর অধিনায়ক হিসেবে বাংলাদেশে আসা এলটন চিগুম্বুরার টানা দুই ম্যাচ বিশ্রামে থাকা! ব্যাট করতে নামার পর শুরুতে আবু  হায়দারের করা ওভারেই দুই ওপেনার মাসাকাদজা ও ভুসি সিবান্দা বুঝিয়ে দেন—আজ আর ধ্রুপদী সংগীতের বোলচাল নয়, আলাপ হবে হার্ডরকের ঝংকার আর উন্মত্ততায়! বাউন্ডারি এসেছে নিয়মিত বিরতিতে, উইকেটের পতন কিংবা বৃষ্টির ফোঁটা—বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি কোনো কিছুই। বিপিএলের সাফল্য আবু হায়দার রনি ভুলে যান নিজের দ্বিতীয় ওভারেই, তিন বাউন্ডারি আর এক ছক্কায় সিবান্দা সেখান থেকে তুলেছিলেন ১৮ রান। টেস্ট ম্যাচের পরিশ্রমী বোলার মোহাম্মদ শহীদ প্রথম টি-টোয়েন্টি উইকেটের দেখা পাওয়ার আগে টানা চার বলে বাউন্ডারি দেখেছেন। মূল তাণ্ডবলীলা চালিয়েছেন ম্যালকম ওয়ালার, ১ রানের জন্য হাফসেঞ্চুরি না পেলেও ৪ ছক্কা আর ২ বাউন্ডারিতে ২৩ বলে ৪৯ রানের ইনিংসটাই সংগ্রহটা ধরাছোঁয়ার বাইরে নিয়ে যায় বাংলাদেশের জন্য। শন উইলিয়ামস ২৬ বলে করেন ৩২ রান। সাকিব ৩ আর আবু হায়দার নেন ২ উইকেট।

সব মিলিয়ে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৮৭, টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে তাদের সর্বোচ্চ।

জবাবে প্রথম ওভারে ইমরুলের বিদায়ের পর সৌম্য সরকার ও সাব্বিরের ব্যাটে খানিকটা আশা জাগলেও সৌম্যর আচমকা বিদায়ে কেটে যায় তালটা। অভিষিক্ত মোসাদ্দেক টি-টোয়েন্টিতে ঘরোয়া ম্যাচেও হার্ডহিটার হিসেবে পরিচিত নন, চারে তার আগমন এবং ১৯ বলে ১৫ রান করে প্রস্থান আরো কঠিন করে তোলে সমীকরণ। সাকিবের মাত্র ৩ রান করে বিদায় নেওয়ার পর রীতিমতো অসম্ভবই হয়ে ওঠে জয়ের দেখা পাওয়া, মাত্র ৬ রান করে মাহমুদউল্লাহর বিদায়ও স্পষ্ট করে দেয় হারের শঙ্কা। শেষ দিকে নুরুল হাসান ও মুক্তার আলী নিয়ম রক্ষার ব্যাটিং করে ব্যবধানটা কমিয়ে এনেছেন শুধু, তাতে প্রতিশ্রুতির ঝলক থাকলেও জয়ের সম্ভাবনা ততক্ষণে উবে গেছে কর্পূরের মতোই। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ১৫৬ রানে থামে বাংলাদেশ, জয় তখনো ৩১ রান দূরে। হাফসেঞ্চুরি না পেলেও ম্যাচসেরার পুরস্কার ঠিকই পেয়েছেন ওয়ালার, আর আগের দুটি ম্যাচে হাফসেঞ্চুরির কাছে গিয়েও করতে না পারা সাব্বির কাল করলেন বটে, কিন্তু হারল দল। তাঁর সান্ত্বনা সেরা বাংলাদেশি খেলোয়াড়ের পুরস্কার।

ব্যক্তিগত একটি ‘ল্যান্ডমার্ক’ স্পর্শ করা যেমন সান্ত্বনা সাকিবের জন্য। খুলনায় তৃতীয় টি-টোয়েন্টি শুরুর আগে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৪০০তম উইকেটের দেখা পেতে আর মাত্র একটি উইকেটেরই প্রয়োজন ছিল সাকিবের, ম্যাচে নিজের অষ্টম বলেই পেয়ে যান কাঙ্ক্ষিত সেই উইকেটের দেখা। ডিপ মিড উইকেটে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন রিচমন্ড মুতুম্বানি। জিম্বাবুয়ের এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যানই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাকিবের ৪০০তম শিকার। ম্যাচে সাকিবের বলে আরো আউট হয়েছেন ভুসি সিবান্দা ও ম্যালকম ওয়ালার। দুজনেই আউট হয়েছেন ক্যাচ দিয়ে, সিবান্দার ক্যাচ ধরেছেন সাব্বির আর ওয়ালারের ক্যাচ ধরেছেন সৌম্য সরকার। সব মিলিয়ে ম্যাচে সাকিবের বোলিং ফিগার ৪-০-৩২-৩। এই নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে সাকিবের উইকেট সংখ্যা হলো ৪৯, আর একটি সাফল্য হলেই টি-টোয়েন্টিতে উইকেটের ‘হাফসেঞ্চুরি’ হয়ে যাবে তাঁর।

সাকিব বাদে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ইতিহাসে ৪০০ উইকেট ও ৮,০০০ রানের ডাবল আছে মাত্র পাঁচজনের। কপিল দেব অবশ্য কখনোই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলেননি, তাই তিন ধরনের ক্রিকেটেই বিশেষণটা খাটে না তাঁর বেলায়! টেস্ট এবং ওয়ানডে মিলিয়ে ৬৮৭ উইকেটের মালিক ১৯৮৩-র বিশ্বকাপজয়ী ভারত অধিনায়কের রান ৯,০৩১। জ্যাক ক্যালিসের ২৫,৫৩৪ রান, ৫৭৭টি উইকেট। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খুব বেশি খেলেননি ক্যালিসও, প্রোটিয়া জার্সিতে ২৫ ম্যাচে মাত্র ৬৬৬ রান ১২ উইকেট। শহীদ আফ্রিদির তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ১১,০৮৫ রান ও ৫৩৩ উইকেট। এ ছাড়া অলরাউন্ডার হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করা শ্রীলঙ্কার বিধ্বংসী উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সনাৎ জয়াসুরিয়া ও নিউজিল্যান্ডের ক্রিস কেয়ার্নসের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অ্যাকাউন্টে ৮ হাজার রান ও ৪০০ উইকেটের বেশি জমা আছে। সাকিবের আগে মাত্র দুজন বাঁহাতি স্পিনার ছুঁয়েছেন সব ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে ৪০০ উইকেট নেওয়ার মাইলফলক, ড্যানিয়েল ভেট্টোরি (৭০৫) ও জয়াসুরিয়া (৪৪০)। তবে বাংলাদেশ ‘ক্যাটাগরি’তে তিনিই প্রথম, অন্য আরো কিছু রেকর্ডের মতো।


মন্তব্য