kalerkantho


অক্ষয় কুমার : মানবিক একজন

কৃষক থেকে শুরু করে সেনা সদস্য—সবার সাহায্যে সব সময়ই এগিয়ে আসেন; যদিও নিজের অনুদান নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলতে চান না অভিনেতা

লতিফুল হক    

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১১:১২



অক্ষয় কুমার : মানবিক একজন

নিজে সেনা কর্মকর্তা হতে চেয়েছিলেন বলেই কিনা এই পেশার মানুষের জন্য অগাধ শ্রদ্ধা অক্ষয় কুমারের। যুদ্ধ, জঙ্গি আক্রমণ বা অন্য কোনো কারণে কোনো সেনা সদস্য আহত বা নিহত হলেই এগিয়ে আসেন অভিনেতা। এই যেমন কিছুদিন আগেই ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে দায়িত্ব পালনের সময় নিহত বারো সেনা সদস্যের পরিবারকে এক কোটি রুপির বেশি সাহায্য দিয়েছেন অক্ষয়।

সব মিলিয়ে গেল তিন বছরে অন্তত পাঁচ কোটি রুপি সেনা তহবিলে দিয়েছেন। গেল বছরই ভয়াবহ বন্যায় ভেসে যাচ্ছিল চেন্নাই। তামিলনাড়ুর বন্যাদুর্গতদের জন্যও অক্ষয় এক কোটি রুপি সাহায্য দেন। বলিউড অভিনেতা সালমান খানের ফাউন্ডেশন বিয়িং হিউম্যানে অনুদান দিয়েছেন ৫০ লাখ রুপি। প্রতিবছরই মহারাষ্ট্রে খরা হয়। কাঙ্ক্ষিত ফসল না পেয়ে আত্মহত্যা করে অনেক কৃষক। আত্মহত্যা করা ১৮০টি কৃষক পরিবারকে অক্ষয় দিয়েছেন কোটি রুপির বেশি।

গেল দুই বছর নিয়ম করে এই অর্থ দিয়েছেন অভিনেতা। নিজের ব্যবসাসফল সিনেমা ‘বেবি’র অর্ধেক পারিশ্রমিক তিনি দান করেছিলেন। শুধু আর্থিক অনুদানই নয়, ভূমিকা রাখছেন সামাজিক নিরাপত্তায়ও। তাঁর কারাতে স্কুলে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেকে রক্ষায় পারদর্শী হয়ে উঠেছে চার হাজারেরও বেশি নারী। কয়েক বছর আগে ‘খতরোঁ কি খিলাড়ি’র উপস্থাপনা করেছিলেন। সে সময় এক প্রতিযোগী বাজে পারফরম করার জন্য বাদ পড়েন, যিনি প্রতিযোগিতায় নাম লিখিয়েছিলেন জিতে গেলে সেই অর্থ দিয়ে ক্যান্সারে আক্রান্ত বাবার চিকিৎসা করাবেন বলে। ঘটনা শুনে তখনই ২৫ লাখ রুপির চেক লিখে দেন অক্ষয়।

কয়েক বছর আগে মহারাষ্ট্রে খরার প্রভাবে অনেকগুলো পণ্য উৎপাদনকারী সংস্থা, বিশেষ করে জুস নির্মাণ প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষতির মুখে পড়ে। এসব প্রতিষ্ঠানের অনেক কর্মীর চাকরি হারানোর শঙ্কা তৈরি হয়। অক্ষয় তখন নিজের বিজ্ঞাপন ফি কমিয়ে অর্ধেক করেন, যাতে প্রতিষ্ঠানগুলোর বিজ্ঞাপন খরচ কমে যায়।

বৃহস্পতিবারের প্রিন্ট সংস্করণের বিশেষ আয়োজন 'রঙের মেলা' থেকে 



মন্তব্য