kalerkantho


ধর্ষণের দৃশ্যের জন্য 'দুশমন' প্রত্যাখ্যান করেছিলেন কাজল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২১:৫৩



ধর্ষণের দৃশ্যের জন্য 'দুশমন' প্রত্যাখ্যান করেছিলেন কাজল

দীর্ঘ ২৫ বছরের অভিনয় জীবনে ৩০টিরও বেশি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন তিনি। কিন্তু সেই অভিনেত্রীই কর্মজীবনের শুরুর দিকে কীভাবে বাছাই করতেন সিনেমা তা এতদিন প্রকাশ্যে নিয়ে আসেননি।

সম্প্রতি পিটিআইকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে, ৪৪ বছর বয়সী অভিনেত্রী কাজল নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম দিকের কাজ নিয়ে খোলামেলাভাবে কথা বলেছেন।

বলিউডে তার প্রথম সিনেমা 'বেখুদি' এবং ১৯৯৪ সালের 'উধার কি জিন্দেগি'সহ তার প্রিয় চলচ্চিত্রের তালিকায় কাজল রেখেছেন 'দুশমন'কে।

কাজল জানিয়েছেন, তানুজা চন্দ্র পরিচালিত ‘দুশমন’ সিনেমাটির কাজ প্রথমে তিনি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। কারণ ওই সিনেমায় ধর্ষণের দৃশ্য ছিল। সে কারণে তিনি অভিনয় করতে রাজি হচ্ছিলেন না।

কাজল বলেন, আমি সিনেমাটিকে 'না' বলেছিলাম। কারণ আমি ধর্ষণের দৃশ্যে অভিনয় করতে চাইনি। আমার মনে হয়েছিল এটা আমার পক্ষে কঠিন। ক্যামেরার সামনে আমার সঙ্গে কেউ এ ধরনের আচরণ করবে, সেটা একেবারেই মেনে নিতে পারছিলাম না।

পরিচালক এবং প্রযোজক পূজা ভাট তখন জানিয়েছিলেন, বডি ডাবল ব্যবহার করে এই দৃশ্যের শ্যুটিং হবে। তখন তিনি রাজি হন।

কাজল বলেন, তারা জানান যে কেবল একটি ক্লোজ শট দরকার এবং বাকিটা তারা ম্যানেজ করে নেবেন। তারা কথা রেখেছিলেন। এত ভালোভাবে শটটি নিয়েছিলেন যে, সিনেমাটি দেখলে এখন বোঝাও যায় না।

সমালোচকদের বহুল প্রশংসা কড়িয়েছে ছবিটি। তাতে কাজল দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় করেন। দুই যমজ বোনের ভূমিকায়। এক বোনকে ধর্ষণ করে খুন করেন আশুতোষ রাণা। প্রতিশোধ মূলক এই সিনেমায় কাজলের সঙ্গে দেখা যায় সঞ্জয় দত্তকে।

সিনেমার অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে কাজল বলেন, যেহেতু দুই বোনের চরিত্রে একই মানুষ অভিনয় করছে সুতরাং এক চরিত্রের সঙ্গে অন্যের তুলনা চলেই আসে। এখানে নিজের সঙ্গেই নিজের তুলনা। এই সিনেমা আমাকে অনেক শিখিয়েছে।



মন্তব্য