kalerkantho


সেই ধুম-৩ থেকেই ক্যাটরিনার প্রেমে পড়েছি : আমির খান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২২:৩৬



সেই ধুম-৩ থেকেই ক্যাটরিনার প্রেমে পড়েছি : আমির খান

‘থাগস অব হিন্দুস্তান’-এর লোগো প্রকাশ্যে আনার পর, পরে একে একে ‘খুদাবক্স’ অমিতাভ, ‘জাফিরা’ ফতিমা সানা শেখ, ‘জন ক্লাইভ’ লয়েড ওয়েনের সঙ্গে আলাপ করিয়েছেন আমির। এবার পালা ‘সুরাইয়া জান’ এর, থুড়ি ক্যাটরিনা কাইফের। সুরাইয়া জান চরিত্রেই থাগস অব হিন্দুস্তানে দেখা যাবে ক্যাটরিনাকে। তাঁর সেই লুক কেমন সেটা এবার প্রকাশ্যে আনলেন প্রযোজনা সংস্থা।

মোশন পিকচারের মাধ্যমে ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’ যে ‘সুরাইয়া জান’-এর সঙ্গে ‘যশ রাজ ফিল্মস’ এর তরফে আলাপ করানো হয়েছে ভালো করে দেখলে সেই সুরাইয়া জানের সঙ্গে ক্যাটরিনার ‘চিকনি চামেলি’ লুকের বেশ মিল পাওয়া যায়। এখানে ‘সুরাইয়া জান’ ক্যাটরিনাকে দেখা যাচ্ছে গর্জিয়াস লেহেঙ্গা পরে নাকে নথ, হাতে মেহেন্দি পরে আদাবের ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে রয়েছে।

এই সেই ‘সুরাইয়া জান’-এর সঙ্গে আলাপ করাতে গিয়ে আমির খান লিখেছেন, ‘সুরাইয়া জান হল সবথেকে সুন্দরী ঠগ, সেই ধুম ৩-র সময় থেকেই ক্যাটরিনার প্রেমে পড়েছি, তবে কিছুইতেই বলে উঠতে পারিনি, কেউ যদি আমার হয়ে তাঁকে একথা জানিয়ে দেন তাহলে ভীষণ ভালো হয়।’

এর আগে এই ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’-এর জন্য আরও এক চমক দিয়েছিলেন আমির। এই ছবির ভিলেন ‘লয়েড ওয়েন’ এর চরিত্রের সঙ্গে আলাপ করিয়েছিলেন। যে চরিত্রটিতে অভিনয় করছেন ব্রিটিশ অভিনেতা জন ক্লাইভ। জল ক্লাইভের সঙ্গে আলাপ করিয়ে আমির লিখেছিলেন, ‘ইনি জন ক্লাইভ, এনাকে রবার্ট ক্লাইভের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলবেন না যেন। ’

তারও আগে ‘দঙ্গল কন্যা’ ফতিমা সানা শেখের ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’-এর ‘যুদ্ধবাজ’ জাফাইরা লুকের সঙ্গেও আলাপ করিয়েছেন আমির। লিখেছিলেন, যুদ্ধবাজ ঠক, এনার থেকে দূরে থাকুন।

তবে এখনও পর্যন্ত ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’- এর সবথেকে চমকদার লুক ছিল অমিতাভের ‘খুদাবক্স’ চরিত্রের লুক। মোশন পিকচারে দেখা গেছে একটা বাজপাখি উড়ে এসে অমিতাভের জাহাজে রাখা কামানের উপর বসছে। আর অমিতাভকে দেখা যাচ্ছে যুদ্ধের পোশাকে তলোয়ার হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে।

জানা যাচ্ছে, ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’ ছবির বেশিরভাগ শ্যুটিংই হয়েছে ইউরোপের মাল্টা উপকূলে। ছবির প্রয়োজনে তৈরি হয়েছে আস্ত দুটি জাহাজ। যে জাহাজ দুটি ১০০০ জন শ্রমিক ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন জাহাজ ডিজাইনাররা মিলে তৈরি করেছেন। ঠগসদের উপর ভিত্তি করে পুরো ছবিটিই ভিস্যুয়্যাল এফেক্টস দিতে চেয়েছিলেন পরিচালক ভিক্টর ওরফে বিজয় কৃষ্ণ আচারিয়া। ফিলিপ মিডোস টেইলর এর লেখা উপন্যাস ‘কনফেশন অফ ঠগস’- অবলম্বনে তৈরি হচ্ছে।



মন্তব্য