kalerkantho


ছেলেকে 'সুপারহিরো' বানাতে বাবার আত্মহত্যা কিংবা সবিস্তারে

মাহতাব হোসেন   

১৯ জুন, ২০১৮ ১৬:০২



ছেলেকে 'সুপারহিরো' বানাতে বাবার আত্মহত্যা কিংবা সবিস্তারে

বাবা নিজের ছেলেকে 'সুপারহিরো' হিসেবে দেখতে চান- আর এজন্যই নিজের মাথায় গুলি করে আত্মহত্যা করেন। এরকম নজির পৃথিবীতে অনন্য হলেও আশিকুর রহমান পরিচালিত ছবিটিতে তেমনটাই দেখা গেল। ছেলের 'সুপার হিরো'র হবার কোনো বিকল্প পথ ছিল কি না সেটা চিত্রনাট্য লেখকের ভেবে দেখা উচিত ছিল।

নায়িকা বুবলী যার চারিত্রিক নাম সীমা। অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের দূতাবাসে চাকরি করেও স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তা না নিয়ে সহায়তা নেন বাংলাদেশের স্পেশাল ফোর্স অস্ট্রেলিয়া প্রশিক্ষণে যাওয়া থেকে 'সামী'র। অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থানকালীন 'সামী' সুপারহিরো কিংবা শাকিবকে কোনো প্রশিক্ষণ নিতেই দেখা গেল না। তিনি 'সুন্দরী কূটনৈতিক বুবলীর বিশেষ আহবানে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া বিজ্ঞানীর নিরাপত্তার কাজে ব্যস্ত হয়ে গেলেন। মাঝে মধ্যে একোটি রোমান্সে দেখা গেল। কিন্তু মিসাইল আবিস্কারক সেই বিজ্ঞানীকে বাঁচানো গেল না। খুন হলেন। আর পর্দায় দেখানো হলো বিজ্ঞানী তারিক আনামের খুনী তাঁর স্ত্রী।

পুরো ছবিতে বিজ্ঞানীর ল্যাপটপ নিয়ে দৌঁড়াদৌড়ির কাহিনি আবর্তিত হয়েছে। কেননা সেই ল্যাপটপে রয়েছে মিসাইল আবিস্কারের প্রোগ্রাম। যে মিসাইল অন্যান্য মিশাইলের চেয়ে ব্যাতিক্রম। ব্যাতিক্রম কেমন? ছবির শেষের দিকে সেটা পরিস্কার হয়েছে। তার আগে বাকিগল্পগুলো বলি।

বুবলী অর্থাৎ সীমাই শেষের দিকে এসে পল্টি নেন। অর্থাৎ খুনি বিজ্ঞানীর স্ত্রীর পক্ষ নেন। এবং শাকিব অর্থাৎ সামীকে বলেন, সে তাঁকে ব্যবহার করে অস্ট্রেলিয়া থেকে ল্যাপটপ নিয়ে বাংলাদেশে এসেছেন। না হলে সেটা সম্ভব না।এর আগে কয়েকদফা মারপিট করে অস্ট্রেলিয়া থেকে বাংলাদেশে চলে আসেন সামী-সীমা। বাংলাদেশে আসার পরের ঘটনা বুবলীর 'পল্টিবাজি।'  যে ল্যাপটপের বিনিময়ে ৫০ কোটি টাকা চায় বিজ্ঞানীর স্ত্রীর কাছে।

সুপারহিরো ছবির কাহিনি প্রথমদিকে আবর্তিত হয় একজন বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর আবিস্কার নিয়ে। বিজ্ঞানীকে প্রথম ধাপে যাত্রবাড়ি ফ্লাইওভারের ওপর থেকে কিডন্যাপ করা বিজ্ঞানীকে উদ্ধার করে অস্ট্রেলিয়ায় গিয়েছিলেন শাকিব। অস্ট্রেলিয়ায় প্রশিক্ষনে শাকিব গেলেন আবার সেই বিজ্ঞানীও দু'দিন পর স্বস্ত্রীক অস্ট্রেলিয়ায় টুরে গেলেন। এটা কাকতালীয় বটে।

ছবির শেষ ধাপে এসে জানা গেল। সকল 'অসৎ' কাজের মূল হোতা সেই বিজ্ঞানী। যার চরিত্রে অভিনয় করেছেন তারিক আনাম খান। অবশ্য মফস্বল শহরের পোস্টারে পাওয়া যাচ্ছে তাঁকে 'এনাম খান' নামে। চট্টগ্রামে হেলিকপ্টারযোগে শাকিব যান। সেখানে গিয়েই- বুবলী যে তার দলে এটা শাকিব বিপরীত পক্ষকে বুঝিয়ে দেন। এবং একটি ফ্ল্যাশব্যাকের মাধ্যমেই বোঝানোর চেষ্টা করা হয় বুবলী তার দলেই রয়েছেন। তবে দর্শক কতটা বুঝলো সেটা চিত্রনাট্য নির্মাতা মাথায় নেননি।

ছবির শেষ মুহূর্তের কাহিনি ছিল টান টান উত্তেজনায় ভরা। কেননা তারিক আনাম খান তার মিসাইল ছেড়ে দেন মায়ানমারের উদ্দেশ্যে। কিন্তু এটা যদি মায়ানমারে আঘাত হানে তাহলে যুদ্ধ অনিবার্য। কিন্তু দ্রুত বুবলী তারিক আনাম খানকে পেটে ছুড়ি মেরে কম্পিউটারের দখল নিয়ে দুই দুইটা মিশাল মায়ানমার কিংবা বঙ্গোপসাগরে আঘাত হানার আগেই ধ্বংস করে দেন।

পেটে বড় একটা ছুড়ি ঢুকিয়ে দেয়ার পরেও তারিক আনাম খান পরে আবার কম্পিটারে গিয়ে একটি মিসাইল ছেড়ে দেন। এরপর মনিটর ভেঙে দেন। মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যবধানে মিশাইলটি বিষ্ফোরিত হবে আর বাংলাদেশের সাথে প্রতিবেশি দেশের যুদ্ধ লেগে যাবে। এটা তো হতে দিতে পারেন না শাকিব-বুবলী। পরে 'হোম' বাটন প্রেস করে মিশাইলটিকে ফিরিয়ে আনেন চট্টগ্রামে। এসবই হচ্ছিল চট্টগ্রামের একটি ভাঙা জাহাজে। মিশাইলটি ফিরে আসতে সময় নেয় এক মিনিট। এর মধ্যে শাকিব কিছু জ্বালাময়ী বক্তব্য দেন তারিক আনামের উদ্দেশ্যে। এরপর জাহাজ থেকে বেরিয়ে দৌঁড়ে বাইরে এসে হেলিকপ্টারে ওঠেন। এতোকিছু করতে শাকিবের ব্যয় হয় মাত্র এক মিনিট।

এরপর মিসাইলটি চট্টগ্রামে শুধু সেই জাহাজেই এসে পড়ে। বেঁচে যায় বাংলাদেশ। অথচ মিসাইলটির বড় একটি ভূখণ্ডে আঘাত হানার কথা। আর বাবা সাদেক বাচ্চু ছেলে শাকিব অর্থাৎ সামীকে সুপারহিরো বানাতে কেন আত্মহত্যা করেন? সাদেক বাচ্চুকে জীবিত অবস্থায় আটক করে প্রতিপক্ষ শাকিবকে ফাঁদে ফেলতে চায়। শাকিব ফাঁদে পড়লে সুপারহিরো হওয়া হবে না। এজন্য বাবা সাদেক বাচ্চু নিজের মাথায় বন্দুক দিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা করেন।

খুবই চমৎকার চিত্রায়ণ। বেশিরভাগ শুটিং অস্ট্রেলিয়ায়। এটা দর্শকদের বিনোদিত করবে। গানগুলো বেশ দৃষ্টিনন্দন। কিন্তু কাহিনিতে জট রয়েছে। সমীকরণের পর্যায়ে চিত্রনাট্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। যেটা শাকিব ভক্তদের জন্য অত্যন্ত দুর্বোধ্য বটে। প্রেক্ষাগৃহে বসে আশেপাশের আলাপন থেকে অন্তত সেটাই বোঝা গেল। তারপরেও 'সুপারহিরো' দেখে
দর্শকদের মনে হবে- যে পয়সা উসুল হয়েছে। ছবি শেষ হবার আগে এমনটা শোনা গেছে।

উত্তরবঙ্গের বেশ কয়েকটি প্রেক্ষাগৃহে প্রজেকশনে সমস্যা হচ্ছে। যদিও এর আগের বছর 'বস টু' চলাকালীন পর্দা পরিচ্ছন্ন ছিল, সাউন্ড ক্লিয়ার ছিল। কিন্তু সুপারহিরোর ক্ষেত্রে উল্টো দেখা যাচ্ছে। ২৫ ভাগ দৃশ্য পর্দার বাইরে চলে যাচ্ছে। সাউন্ড ক্লিয়ার না, কালারে দারুণ সমস্যা। ব্রাইটনেস একেবারে কম। এসব দর্শকদের হল বিমুখ করবে বলেই দর্শকদের ধারণা।



মন্তব্য