kalerkantho


কোয়ান্টিকো বিতর্কে হুমকিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত লেখিকা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ জুন, ২০১৮ ১৯:২৭



কোয়ান্টিকো বিতর্কে হুমকিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত লেখিকা

ভারতীয় হিন্দু জাতীয়তাবাদীদেরকে জঙ্গি-সন্ত্রাসী হিসেবে উপস্থাপন করে হলিউডি টিভি সিরিজ কোয়ান্টিকোর বিতর্কিত প্লট সাজানোর অভিযোগে হুমকির মুখে পড়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান লেখিকা শর্বরী জোহরা আহমেদ।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তাকে ধর্ষণ ও পেটানোর হুমকিও দিচ্ছে দুর্বৃত্তরা। যদিও এই প্লট লেখায় তার তেমন একটা ভূমিকা নেই।

শর্বরী জোহরা আহমেদ নামে ওই লেখিকা কোয়ান্টিকোর লেখক দলের সঙ্গে ছিলেন তাদের প্রথম সিজনে এবং সরাসরি স্ক্রিপ্ট লেখার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন শুধু দুটি পর্বের। তার একটিতে একা এবং অন্যটিতে সহ-লেখক হিসেবে।

বারবার নিজের টাইমলাইনে এই তথ্য জানানোর পরও, উগ্র হিন্দুরা ক্রমাগত তাকে নিয়ে ট্রল করে যাচ্ছে। অনেকেই তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছে, হিন্দুদের বিরুদ্ধে ইসলামিক প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছেন তিনি।

এর আগে এক উত্তেজিত টিভি নিউজ সঞ্চালক প্রথম এই সিরিজের প্রধান চরিত্র প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার প্রতি অভিযোগ তোলেন। সেখানে তার বিরুদ্ধে ভারতকে অপমান করার অভিযোগ তোলা হয়, বলা হয় এক বাংলাদেশি আমেরিকান তাতে ইন্ধন যুগিয়েছেন।

শর্বরী বলেন, আমি মনে করেছিলাম ওরা যদি বুঝতে পারে যে আমার কিছু করার ছিলো না, তখন হয়তো এই উন্মত্ততা কমে যাবে। কিন্তু তা হলো না। এখনতো তারা তাদেরও হুমকি দিচ্ছে যারা আমার পক্ষে অবস্থান নিচ্ছে।  তারা আমাকে মুসলিম হিসেবে ভারত বিরোধী ও হিন্দু বিরোধী প্রোপাগান্ডার মেশিন মনে করছে, মনে করছে আমি এই শোয়ের মধ্য দিয়ে ঘৃণা ছড়াচ্ছি। তারা শুধু গুগলে সার্চ দিচ্ছে আর স্ক্রিন ক্রেডিটের দিকে তাকিয়ে রয়েছে সঠিক কারণ জানান জন্য।

দি ব্লাড অব রোমিও নামে হলিউডি টিভি সিরিজ কোয়ান্টিকোর তৃতীয় সিজনের একটি পর্ব প্রচারিত হয় ১ জুন।

সেখানে দেখানো হয়, একটি সন্ত্রাসী আক্রমণের চেষ্টা নস্যাৎ করে দেয় প্রিয়াঙ্কার করা মূল চরিত্র অ্যালেক্স প্যারিস।

বাহ্যত ধারণা করা হচ্ছিলো কাশ্মীরে একটি বৈঠকের পরে পাকিস্তানই এই পরিকল্পনা করেছে। পরে প্রিয়াঙ্কার চরিত্রটি উদ্ধার করে যে আসলে হিন্দু এক ব্যক্তি সেটাকে পাকিস্তানের পরিকল্পনা প্রমাণের চেষ্টা করছিলো।

এই গল্প শুনে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়লে ক্ষমা চাওয়ার কথা বলা হয় এবিসি, ক্রাইম ড্রামা ও প্রিয়াঙ্কাকে। সিরিজটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান প্রিয়াঙ্কারা হয়ে ক্ষমা চায় এবং এতে প্রিয়াঙ্কার কোনো দোষ নেই বলে দাবি করে। পরে প্রিয়াঙ্কাও ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

এবিসি নিটওয়ার্ক প্রিয়াঙ্কার হয়ে কথা বললেও, এখনও কোনো কথা বলেননি শর্বরীর হয়ে।


মন্তব্য