kalerkantho


আমার দেহ ডিজেল ইঞ্জিনের মতো, গরম হলে চলতেই থাকে : সালমান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ২১:৫১



আমার দেহ ডিজেল ইঞ্জিনের মতো, গরম হলে চলতেই থাকে : সালমান

বয়স যে একটি সংখ্যা ছাড়া আর কিছুই নয় একটি জীবন্ত উদারহণ হলেন বলিউড ভাইজান খ্যাত সালমান খান। সম্প্রতি তিনি তার ৫২ তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করেছেন। একই দিনে তিনি তার নতুন সিনেমা ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ এর বিশাল সাফল্যও উদযাপন করেছেন।

সালমান খান হয়তো ডিসেম্বেরে আরো এক বছর বুড়ো হয়েছেন কিন্তু টাইগার জিন্দা হ্যায় সিনেমার পর্দায় তার অ্যাকশন দৃশ্যগুলো দেখে আপনি তার বয়স আসলেই কত সে বিষয়টি দ্বিতীয়বার চেক করতে চাইবেন।

সম্প্রতি সালমান মিড ডে-র সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে বলেন, ‘আমার দেহ ডিজেল ইঞ্জিনের মতো। একবার গরম হলে শুধু চলতেই থাকে।’

‘আমি হয়তো হাতে ভর দিয়ে দাঁড়াতে পারি না বা পা উপরে মাথা নিচে দিয়ে কসরত করতে পারি না। তবে আমি দ্রুতগতির মুভমেন্ট করতে পারি। যেমন সামনে বা পিছনের দিকে ডিগবাজি দেওয়া। অথবা ফ্লোর রোলিং করা।’

২০১৬ সালে সুলতান সিনেমায় সালমান তার দেহের অসাধারণ রুপান্তর দিয়ে তার সিনেমার ভক্তদেরকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন। এতে তিনি মধ্যবয়সী এক রেসলার এবং তার তরুণ সংস্করণ দুটি চরিত্রেই অসাধারণ এক অবতারে হাজির হয়েছিলেন। এজন্য সালমান ব্যাপক পরিশ্রম করেছিলেন। সিনেমাটির পরিচালক আলী আব্বাস জাফরী বলেন, ৫০ বছর বয়সে মাত্র ৬ থেকে ৮ মাসের মধ্যে সালমান যা করে দেখিয়েছেন সে জন্য ব্যাপ পরিশ্রমের দরকার। সালমান যখন সেটে ছিলেন না তখনও অন্তত ৪ ঘন্টা ধরে ট্রেনিং নিতে হয়েছে। একজন অভিনেতার জন্য এমন তারকাখ্যাতি উপভোগ করাটা এক কিংবদন্তীই বটে।’ জাফর এক থা টাইগার-এও সালমানের পরিচালক ছিলেন।

সালমান বলেন, এই সিনেমাগুলো করতে আমি রাজি হয়েছি মূলত আমার শারীরিক ফিটনেসকে পরের ধাপে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এজন্য আমি শরীরকে ওজন কমানো থেকে শুরু করে ওজন বাড়ানো এবং পেশীবহুল দেখানোর জন্য অতিরিক্ত শরীরচর্চা করতেও প্রস্তুত ছিলাম। যদিও আমি জানি যে এতে বড় ধরনের কোনো ক্ষতিও হয়ে যেতে পারে। টাইগার জিন্দা হ্যায় (২০১৭), সুলতান (২০১৬), এক থা টাইগার (২০১২) রেস ৩ (২০১৮) এই সিনেমাগুলোই এর প্রমাণ।



মন্তব্য