kalerkantho


জয়শ্রীর সঙ্গে সম্পর্কের কথা জেনে ফেলাতেই আকাঙ্ক্ষাকে খুন!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৩:৫৪



জয়শ্রীর সঙ্গে সম্পর্কের কথা জেনে ফেলাতেই আকাঙ্ক্ষাকে খুন!

কলকাতার উদয়ন-কাণ্ডে পানি যত গড়াচ্ছে, তত রঙিন হয়ে খুলছে তার রহস্যের জট। বাঁকুড়ার সেফ হাউসে টানা ৬ ঘণ্টা পুলিশি জেরার মুখে উদয়ন লিখেছে জয়শ্রীর নাম! কে এই জয়শ্রী?

পুলিশ মনে করছে, তার ছেলেবেলার বন্ধু এই জয়শ্রীর সঙ্গে উদয়নের সম্পর্ক জেনে ফেলার কারণেই খুন হতে হয়েছে আকাঙ্ক্ষাকে।

তার বিরুদ্ধে ত্রিকোণ প্রেমের তত্ত্ব প্রমাণের চেষ্টায় ছক কষে তাকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিল উদয়ন। জয়শ্রীর বাড়ি ভোপালে। উদয়নের মায়ের অধীনে কাজ করতেন জয়শ্রীর মা। উদয়ন ও জয়শ্রী, দুজনই তখন অনেক ছোট। দুজনের আলাপ সেই তখন থেকে। পুলিশের অনুমান, এই জয়শ্রীর সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ছিল উদয়নের। যাকে আড়াল করতেই আকাঙ্ক্ষার বিরুদ্ধে ত্রিকোণ প্রেমের তত্ত্ব খাড়া করেছিল উদয়ন। সেই রহস্যের জট খুলতেই আরও একবার ভোপাল যাচ্ছে বাঁকুড়া পুলিশ। সেখানে জয়শ্রীর খোঁজ করার পাশাপাশি উদয়ন সম্পর্কে আরও তথ্য জানতে ভোপালে বসবাসকারী তার তিন মামা ও মাসির সঙ্গেও কথা বলবে পুলিশ। পুলিশ মনে করছে, জয়শ্রীর খোঁজ পেলে এই তদন্ত অনেকটাই গতি পাবে।

জানা গেছে, রাজস্থান ও মুম্বইয়ের যে দুই যুবকের সঙ্গে আকাঙ্ক্ষার প্রেমের সম্পর্কের তত্ত্ব খাড়া করেছে উদয়ন, তা সর্বৈব মিথ্যা। কারণ আকাঙক্ষা খুনের আগে ওই দুই যুবকের কারও সঙ্গে যোগাযোগ ছিল না তাঁর। আকাঙ্ক্ষার কললিস্ট ঘেঁটে সেই তথ্যই সামনে এসেছে। জানা গিয়েছে, আকাঙক্ষার মৃত্যুর পর তাঁর নম্বর থেকে হোয়াটসঅ্যাপ করে যোগাযোগ করা হয় দুই যুবকের সঙ্গে। এখান থেকেই পরিষ্কার যে, উদয়ন ঘটনার মোড় ঘোরাতে চাইছিল। আকাঙ্ক্ষার বিরুদ্ধে ত্রিকোণ প্রেমের মিথ্যা তত্ত্ব প্রমাণ করতে চাইছিল।

গত কয়েকদিনে টানা জেরা শুধু নয়, উদয়নের খুনের ধরন, তার বাড়ির ভিতরের পরিবেশ, তার মানসিক পরিস্থিতি সব কিছু খতিয়ে দেখে পুলিশ জানিয়েছিল, উদয়নের মানসিক পরিস্থিতি ঠিক নেই। আরও ভাল করে বললে বলতে হয়, নিজের সঙ্গে নিজে সে একটি ভার্চুয়াল দুনিয়া তৈরি করে নিয়েছিল। সেখানেই নিজের সঙ্গে নিজেই সে বন্ধুত্ব পাতায়। এই পরিস্থিতিতে সোজা পথের জেরায় সঠিক তথ্য না-ও মিলতে পারে। তাই উদয়নকে জেরার অন্য পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়। তার ভার্চুয়াল দুনিয়ার সামনে বসানো হয় তাকে।

আশেপাশে স্থির একটি পরিস্থিতি তৈরি করে তাকে প্রথমে বলা হয় নিজের আত্মীয়দের নাম লিখে জানাতে। টানা ছ ঘণ্টার জেরায় এর পরই তাকে তার বান্ধবীদের নাম লিখতে বলা হয়। সেই পরিস্থিতিতেই সুতো আলগা হয় উদয়নের মানসিক অবস্থার। খাতায় উঠে আসে জয়শ্রীর নাম। জয়শ্রীর পদবি জানাতে না পারলেও তার সঙ্গে যে উদয়নের ছোটবেলা থেকেই পরিচয়, সে কথা জানায় উদয়ন। উদয়নের মা রাশিবিজ্ঞানের গবেষক ও শিক্ষিকা ছিলেন। তাঁর অধীনে কর্মরত ছিলেন জয়শ্রীর মা। সেখান থেকে জয়শ্রীর সঙ্গে উদয়নের আলাপের শুরু হলেও দ্বাদশ শ্রেণির পর উদয়ন পড়াশোনা ছেড়ে দিলে, জয়শ্রীর সঙ্গে আর কোনও সম্পর্ক ছিল না বলে জেরায় পুলিশকে জানিয়েছে সে। যদিও তার সত্যতা যাচাই হয়নি। সেই সূত্রেই ভোপালে গিয়ে জয়শ্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের তোড়জোড় শুরু হয়েছে।

শুধু জয়শ্রীই নয়, ভোপালে কী পরিস্থিতিতে উদয়ন বেড়ে উঠেছে, তা জানতে চায় পুলিশ। তবেই তার মানসিক গঠন সম্পর্কে অনেকটা স্থির ধারণা করা সম্ভব হবে। পুলিশ সূত্রে খবর, ইংরেজি থ্রিলার বা ভয়ের ছবি দেখা খুব পছন্দ ছিল উদয়নের। শুধু ইংরাজি নয়, সেগুলি হতে হবে আমেরিকান ছবি। অর্থাৎ আরও একবার আমেরিকার সূত্র। প্রথম থেকেই খুনের ঘটনা সামনে আসতেই যেভাবে উদয়ন বারবার আমেরিকার কথা সামনে আনছিল। কেন উদয়নের সঙ্গে বারবার আমেরিকার সূত্র জড়াচ্ছে, তা জানতেই ভোপালে তার মামা ও মাসির সঙ্গে কথা বলবে পুলিশ। একইসঙ্গে তার দুই কাকার সঙ্গেও কথা বলবে বাঁকুড়া পুলিশ বলে জানা গেছে। তাঁদের বাড়ি সল্টলেক ও হাওড়ায়। ভোপালে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পাশাপাশি তদন্তে তাই হাওড়া ও সল্টলেকেও উদয়নের কাকাদের বাড়ি পুলিশ যাবে বলে জানিয়েছে।


মন্তব্য