kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিবিসি বাংলার খবর

পাক-ভারত বৈরিতার বলি 'অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:০৭



পাক-ভারত বৈরিতার বলি 'অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল'

পাকিস্তানি একজন চিত্রতারকা অভিনয় করেছেন, এমন একটি ছবি যাতে নিরাপদে সারা দেশে মুক্তির ব্যবস্থা করা যায় সেই অনুরোধ নিয়ে বলিউডের একদল প্রযোজক আজ ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দেখা করেছেন।
'অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল' নামে এই ছবিটিতে পাকিস্তানি অভিনেতা ফাওয়াদ খান একটি ছোট ভূমিকায় আছেন - আর সে জন্যই মহারাষ্ট্রের কট্টর হিন্দু এমএনএস হুমকি দিয়েছে এই ছবিটি যে সব সিনেমাহলে মুক্তি পাবে সেখানেই তারা হামলা চালাবে।


ছবির পরিচালক করণ জোহর ইতিমধ্যেই এক ভিডিও বার্তায় দেশবাসীর কাছে ছবিটির নিরাপদ মুক্তির আবেদন জানিয়েছেন - তবে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের হস্তক্ষেপের পরও ছবিটির মুক্তি নিয়ে সংশয় কাটছে না।
বলিউডের চিত্রনির্মাতাদের একাংশ আজ (বৃহস্পতিবার) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করে দাবি জানান তাদের সিনেমাতে যদি কোনও পাকিস্তানি অভিনেতা থেকেও থাকেন তারপরও সেই ছবির অধিকার আছে অবাধে মুক্তি পাওয়ার।
বলিউডের ওই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন পরিচালক মুকেশ ভাট।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বেরিয়ে এসে মি ভাট জানান, একজন ভারতীয় নাগরিক হিসেবে সুরক্ষিত থাকার অধিকার তার আছে - সরকারের কাছে সেই প্রত্যাশা তিনি করতেই পারেন। আসন্ন দীপাবলীতে সুস্থ বিনোদনমূলক ছবি যদি কেউ দেখতে চান, রাষ্ট্রের কর্তব্য তাকে নিরাপত্তা দেওয়া এবং যারা বিনা কারণে এই ইস্যুতে হিংসা তৈরি করছে তাদের প্রতিহত করা।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তাদের নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়েছেন বলে প্রযোজকরা জানালেও মি সিং নিজে কিন্তু এ ব্যাপারে এখনও মুখ খোলেননি।
তবে বলিউডের ওই দলটিকে মন্ত্রীর কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন যিনি, সেই বিজেপিরই আর এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও গায়ক বাবুল সুপ্রিয় বলেছেন ভারতে কারওরই অধিকার নেই আইন নিজের হাতে নেওয়ার।
তিনি বলেন, "ছবিটি যে সব মাল্টিপ্লেক্সে মুক্তি পাবে সেখানেই ভাঙচুর চালানো হবে, এটা বলার ক্ষমতা, অধিকার বা ঔদ্ধত্য এমনএনএস-কে কে দিয়েছে? এটা একটা গুন্ডাদের পার্টি - আগেও ওরা ভ্যালেন্টাইনস ডে-তে দম্পতিদের পিটিয়েছে, গ্রিটিংস কার্ডের দোকানে হামলা করেছে"
যে ছবি নিয়ে এত গন্ডগোল, সেই অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল মুক্তি পাওয়ার কথা আসন্ন দীপাবলীর উৎসব মরশুমে।
ছবিটিতে পাকিস্তানি অভিনেতা ফাওয়াদ খান আছেন একটি ক্যামিও রোলে - বলা হচ্ছে ছবিতে তার রোল দশ মিনিটের মতো। তবে পরিচালক করণ জোহর এর মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি ভিডিও বার্তা পোস্ট করে কার্যত মুচলেকা দিয়েছেন - বর্তমান পরিস্থিতিতে তিনি কিছুতেই ছবিতে কোনও পাকিস্তানি অভিনেতাকে নিতেন না।
তিনি বলেন, "গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরে যখন আমি ছবিটা বানাই তখন কিন্তু পরিস্থিতি সম্পূর্ণ অন্য রকম ছিল। আমাদের সরকার তখন প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক তৈরির চেষ্টায় নিয়োজিত ছিল, আমিও সেই প্রয়াসকে সম্মান করেছিলাম। আজ দেশবাসীর যে অনুভূতি সেটাকেও আমি মর্যাদা দিই - এবং পরিস্থিতি এরকম হলে আমিও কিন্তু পাশের দেশের প্রতিভাদের কখনও কাজে লাগাতাম না। "
নিজেকে দেশপ্রেমী বলে পরিচয় দিয়ে এই ভিডিও পোস্টের পরও করণ জোহর যে ছবিটির নিরাপদ মুক্তি নিশ্চিত করতে পেরেছেন তা কিন্তু নয়।
মুম্বই তথা মহারাষ্ট্রের বেশির ভাগ সিনেমা হল মালিক নিজে থেকেই ছবিটে দেখানোর ঝুঁকি নিতে চাইছেন না, আর মাল্টিপ্লেক্সগুলোও এমএনএসের হুমকির মুখে আছে।
এমএনএসের সিনেমা শাখার নেতা আমেয় খোপকার বলছেন, পাকিস্তানি অভিনেতাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে সিনে থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন যে গুজরাট, মহারাষ্ট্র ও গোয়াতে তাদের সব সিনেমা বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে জন্য "আমাদের দলের পক্ষ থেকে তাদের অভিনন্দন জানাই। আর যেসব মাল্টিপ্লেক্স এখনও সিনেমাটা দেখানোর জেদ ধরে আছে তাদের মনে করিয়ে দিতে চাই তাদের আসবাবপত্র, কাঁচ এগুলো কিন্তু দামী ... পাকিস্তানি শিল্পীদের যারাই কাস্ট করবেন তাদের আমরা পেটাব। "
এই ধরনের প্রকাশ্য হুমকির পরও পুলিশ বা প্রশাসন রাজ ঠ্যাকারের দলের বিরুদ্ধে কোনও এখনও ব্যবস্থা নেয়নি। দিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীই বা ঠিক কী আশ্বাস দিয়েছেন তাও এখনও স্পষ্ট নয় - কাজেই ৫৫ কোটি রুপি খরচ করে বানানো ছবিটি নিয়ে করণ জোহরের মুশকিল রয়েই যাচ্ছে!

 


মন্তব্য